বি. এম. জুলফিকার রায়হান, তালা, সাতক্ষীরা (দিনাজপুর২৪.কম) উপজেলার বালিয়া গ্রামে কপোতাক্ষ নদ খনন প্রকল্পের টিআরএম ভুক্ত পাখিমারা বিলের সংযোগ খালের বাঁধ ভেঙ্গে যাওয়ায় বিলের ৬শত বিঘা জমির বোরো ধান তলিয়ে গেছে। এছাড়া খাল সংলগ্ন লোকালয়ে পানি প্রবেশ করায় শতাধিক ঘর-বাড়ি প্লাবিত হয়েছে। ক্ষেতের ধান সহ বাগান নষ্ট হবার পাশাপাশি ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে একাধিক কাঁচা ঘর-বাড়ি। ঘরের মধ্যে পানি প্রবেশ করায় গবাদি পশু নিয়ে অসহায় হয়ে পড়েছে দরিদ্র অনেক পরিবার।
বালিয়া গ্রামের মো. মুজিবুর রহমান গাজী ও হাবিবুর রহমান গাজী জানান, মঙ্গলবার গভীর রাতে জোয়ারের পানির চাঁপে কপোতাক্ষ নদের টিআরএম ভুক্ত খালের সংযোগস্থলের বাঁধ ধ্বসে যায়। এতে মুহুর্তের মধ্যে কপোতাক্ষ নদের লোনা পানি বিলের মধ্যে ও লোকালয়ে প্রবেশ করে। ওই রাতেই গ্রামের লোকজন স্বেচ্ছায় বাঁধ সংস্কারের চেষ্টা করে। কিন্তু জোয়ারের পানির প্রবল চাঁপে বাঁধ আবারও ধ্বসে যায় এবং অনেক স্থানে বাঁধ উপচে’ পানি বিলে ও লোকালয়ে প্রবেশ করে। পানিতে খালপাড় সংলগ্ন হাবিবুর রহমান গাজী, আব্দুল্লাহ গাজী, সাইফুল্লাহ গাজী, কাছেদ মোড়ল জাহাঙ্গীর মোড়ল ও তোজাম মোড়ল সহ শতাধিক ব্যক্তির বাড়ি-ঘর প্লাবিত হয়েছে। বিষয়টি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সহ পানি উন্নয়ন বোর্ডকে অবহিত করার পরও বুধবার সারদিনের মধ্যে তারা কোনও ব্যবস্থা গ্রহন করেনি। যে কারনে বুধবার রাতের জোয়ারে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়েছে।
খেশরা ইউপি চেয়ারম্যান প্রভাষক রাজিব হোসেন রাজু জানান, জোয়ারের পলিবাহিত লোনা পানি বালিয়া, শুভংকরকাঠি ও শ্রীমন্তকাঠি গ্রামের সাড়ে ৫শত বিঘা আয়তনের বিলে প্রবেশ করে। এতে জমির পাঁকা বোরো ধান পানিতে তলিয়ে গিয়ে সম্পূর্ন নষ্ট হওয়াসহ বিলের একাধিক মৎস্য ঘের ভেঁসে গছে। তাছাড়া নদের পানি লোকালয়ে প্রবেশ করায় শতাধিক ব্যক্তির বাড়ি-ঘর, পুকুর, বাগান, কবরস্থান ও রাস্তা প্লাবিত হয়ে কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তাছাড়া পানির চাঁপে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার কাছেদ মোড়ল ও মহাসিন হাজরাসহ একাধিক ব্যক্তির কাঁচা বসত ঘর ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে। যে কোনও মুহুর্তে কাঁচা ঘরগুলি ভেঙ্গে পড়তে পারে বলে ইউপি চেয়ারম্যান আশংকা ব্যক্ত করে প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
তালা উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবীদ মো. সামছুল আলম জানান, পলি জমাট এবং লবন পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় মিষ্টি পানি জাতের বোরোক্ষেত সম্পূর্ন ভাবে নষ্ট হয়ে যেতে পারে। এবিষয়ে খোজখবর নেয়া হচ্ছে এবং কৃষকদের ধানক্ষেত রক্ষার জন্য চেষ্টা চালানো হচ্ছে।
পানি উন্নয়ন বোর্ড এর কেশবপুর অফিসের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. ফিরোজ হোসেন জানান, কপোতাক্ষ নদ খনন প্রকল্প’র নকশা অনুায়ী বালিয়া খাল দিয়ে পাখিমারা বিলে টিআরএম বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। তিনি জানান, বালিয়ায় কপোতাক্ষ নদের সংযোগ খাল দিয়ে টিআরএম বাস্তবায়নের জন্য খালের পাড়ে মজবুত করে বাঁধভেড়ি নির্মান করার সময় স্থানীয় আরশাদ আলী মোড়ল ও আলাউদ্দীন মোড়ল গং বাঁধা দেয়। যে কারনে খাল পাড়ে মজবুত বাঁধভেড়ি নির্মান না করায় জোয়ারের চাঁপে বাঁধ ধ্বসে ও উপচে’ বিল ও লোকালয় প্লাবিত হয়েছে। বুধবার উক্ত বাঁধ ধ্বসে পড়ার খবর পেয়ে তৎক্ষনাত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য খাল রক্ষনাবেক্ষনের জন্য নিয়োজিত ঠিকাদারকে বলা হয়েছে।
এবিষয়ে তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ফরিদ হোসেন বলেন, বিষয়টি এখনও আমাকে কেহ অবহিত করেনি।