মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ফাইল ছবি

(দিনাজপুর২৪.কম)২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের ওইদিনটিকে গণতন্ত্র হত্যার এক নজীরবিহীন কালোঅধ্যায় আখ্যা দিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আওয়ামী লীগের সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল আরও বলেন, গণতন্ত্রের পথচলাকে থমকে দেয়া হয়।  দেশে দেশে নিষ্ঠুর একনায়কদের একদলীয় ব্যবস্থার ন্যায় নিরঙ্কুশ নিয়ন্ত্রিত তথাকথিত হাইব্রিড গণতন্ত্রকে জেঁকে বসানো হয়েছে জনগণের কাঁধের ওপর।  মূলত এটি নাৎসীবাদের বাংলাদেশী সংস্করণ।

তিনি বলেন, দেশে এক ভয়াবহ শ্বাসরুদ্ধকর অবস্থা বিরাজমান।  অবরুদ্ধ জাতির সাফোকেশন ভেন্টিলেট যাতে করা সম্ভব না হয় সেজন্য সব ছিদ্র বন্ধ করে দেয় তারা।  বিরোধী কণ্ঠ, মত ও পথকে নিশ্চিহ্ন করে বেপরোয়া দেশ শাসন করতে গিয়ে জনগণের নাভিশ্বাস উঠেছে।  নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের আকাশচুম্বী মূল্যবৃদ্ধি,  বিদ্যুৎ, পানি ও গ্যাসের ভুতুড়ে বিলে স্বল্প আয়ের মানুষ হিমশিম খাচ্ছে।  আর এসব নিয়ে যাতে কোনো প্রতিবাদ না হয় সেজন্য গণতন্ত্রকে রাষ্ট্র ও সমাজ থেকে উচ্ছেদ করা হয়েছে।  তবে দেশের আপামর নির্যাতিত জনগণ এখন গণতন্ত্র পুণরুদ্ধারের জন্য ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে। জনগণের উদ্বেল অভিযাত্রা যেকোনো মূহূর্তে রাজপথে প্রবল স্রোত তৈরি করবে।

২০১৪ সালে ৫ জানুয়ারি দশম সংসদ নির্বাচনে বিএনপি, বাম মোর্চার দলসহ অধিকাংশ রাজনৈতিক দল বর্জন করেছিল। নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে বিরোধী দল নির্বাচন বর্জন করে। -ডেস্ক