(দিনাজপুর২৪.কম) একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের  অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় কিশোরগঞ্জের তাড়াইলের ‘রাজাকারের দারোগা’ হিসেবে পরিচিত সৈয়দ হাছেন আলী ওরফে হাসান আলীর বিরুদ্ধে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১। তার বিরুদ্ধে আনা ছয়টি অভিযোগের মধ্যে তৃতীয় ও চতুর্থ অভিযোগে মৃত্যুদণ্ড, দ্বিতীয়, পঞ্চম ও ষষ্ঠ অভিযোগে আমৃত্যু কারাদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়েছে। প্রথম অভিযোগ রাষ্ট্রপক্ষ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করতে পারেনি মর্মে এ অভিযোগ থেকে তাকে খালাস দেয়া হয়েছে। মৃত্যু না হওয়া পর্যন্ত গলায় ফাঁসির রজ্জু ঝুলিয়ে অথবা গুলি করে হাসান আলীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা যাবে বলে রায়ে উল্লেখ করেছেন ট্রাইব্যুনাল। বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বে গঠিত তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল গতকাল জনাকীর্ণ আদালতে এই রায় ঘোষণা করে। ট্রাইব্যুনালের অন্য দুই সদস্য বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন ও বিচারপতি আনোয়ারুল হক।
গত ২০শে এপ্রিল রাষ্ট্র ও আসামি উভয়পক্ষের আইনজীবীদের যুক্তিতর্ক (আর্গুমেন্ট) উপস্থাপন শেষে মামলার বিচারিক প্রক্রিয়া শেষ হওয়ায় রায় ঘোষণা অপেক্ষমাণ (সিএভি) রেখেছিলেন ট্রাইব্যুনাল। এই মামলার কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর থেকেই অভিযুক্ত হাসান আলী পলাতক রয়েছেন। গতকাল তার অনুপস্থিতিতেই এই মামলার রায় ঘোষণা করা হয়।
একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের জন্য গঠিত দুটি ট্রাইব্যুনালে এ পর্যন্ত ঘোষিত ১৯টি রায়ে ৫ জন পলাতক আসামির বিরুদ্ধে তাদের অনুপস্থিতিতেই রায় ঘোষণা হলো। আসামির অনুপস্থিতিতে বিচার কার্যক্রম পরিচালনা ও রায় ঘোষণার জন্য গতকাল রায় ঘোষণার আগে হতাশা প্রকাশ করেছেন ট্রাইব্যুনাল। রায়ে উল্লেখ করা হয়েছে, পলাতক হাসান আলী যেদিন গ্রেপ্তার হবেন বা তিনি আত্মসমর্পণ করবেন সেদিন থেকে রায় কার্যকর করা হবে। তবে, আইনানুযায়ী রায় ঘোষণার ত্রিশ দিনের মধ্যে আসামি দণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করতে পারবে। পলাতক হাসান আলীকে গ্রেপ্তারে স্বরাষ্ট্র সচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শককে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়াসহ ইন্টারপোলের সাহায্য নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। হাসান আলীর বিরুদ্ধে ঘোষিত রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছে রাষ্ট্রপক্ষ।
গতকাল সকাল ১১টা ১০ মিনিটে ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বে অন্য দুই বিচারপতি এজলাসে তাদের নিজ নিজ আসন গ্রহণ করেন। এর আগেই রায় শুনতে রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের আইনজীবী, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার সদস্য, মুক্তিযোদ্ধা, সাংবাদিকরা ট্রাইব্যুনালে এসে উপস্থিত হন। ১২৫ পৃষ্ঠা রায়ের সংক্ষিপ্তাংশ পড়ে শোনানোর আগে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম উপস্থিতজনদের উদ্দেশে বলেন, আপনারা সকলেই জানেন এবং বিষয়টি হতাশাজনক যে আমাদের এই বিচারকাজটি আসামির অনুপস্থিতিতে হয়েছে। ট্রাইব্যুনাল শুধু গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করতে পারে। এরপরও আসামি গ্রেপ্তার হয়নি। আসামির উপস্থিতিতে বিচারকাজ হলে আসামি যেমন আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ পেতেন তেমনি বিচারকাজেরও গ্রহণযোগ্যতা বাড়তো বলে  মন্তব্য করে ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান।
যে দুই অভিযোগে মৃত্যুদণ্ড: প্রমাণিত তৃতীয় অভিযোগে বলা হয়েছে, একাত্তরে তাড়াইল থানার শিমুলহাটি গ্রামের পালপাড়ার অক্রুর পালসহ ১২ জনকে হত্যা এবং ১০টি ঘরে লুণ্ঠন ও অগ্নিসংযোগ করে অভিযুক্ত হাসান আলী। চতুর্থ অভিযোগে বলা হয়েছে ভোরগাঁও গ্রামের বেলংকা রোডের সতীশ ঘোষসহ ৮ জনকে হত্যা ও ১০ জনকে অপহরণ ও লুটপাট করে অভিযুক্ত আসামি।
যে তিন অভিযোগে আমৃত্যু কারাদণ্ড: প্রমাণিত দ্বিতীয় অভিযোগে বলা হয়েছে, তাড়াইলের কোনা ভাওয়াল গ্রামের শহীদ তোফাজ্জল হোসেন ভূঁইয়া ওরফে লালু ভূঁইয়াকে হত্যা করে দু’টি ঘরে লুণ্ঠন, দুইজনকে অপহরণ, আটক ও নির্যাতন করে হাসান আলী। পঞ্চম অভিযোগে বলা হয়েছে, একাত্তরে হাসান আলী আড়াইউড়া গ্রামের চামেলী কুমার ঘোষের বসতবাড়িতে হামলা চালিয়ে কামিনী কুমার ঘোষ ও জীবন কৃষ্ণ ঘোষকে হত্যা ও ৬টি ঘরে লুটপাট করে। প্রমাণিত ষষ্ঠ অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, সাচাইল পশ্চিমপাড়া গ্রামের রাশেদ আলী ব্যাপারীকে হত্যা করে এলাকায় লুণ্ঠন ও অগ্নিসংযোগ করে অভিযুক্ত আসামি।
রাষ্ট্রপক্ষের সন্তোষ:  হাসান আলীর বিরুদ্ধে রায়ের প্রতিক্রিয়ায় প্রসিকিউটর মোহাম্মদ আলী বলেন, আমরা অবশ্যই এই রায়ে সন্তুষ্ট। যুক্তিতর্ক ও সাক্ষ্যপ্রমাণের মাধ্যমে রাজাকার হাসান আলীর বিরুদ্ধে আমরা অভিযোগগুলো প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছি। পলাতক হাসান আলী গ্রেপ্তার হলে সরকার সিদ্ধান্ত নেবে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে নাকি গুলি করে তার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করবে। প্রসিকিউটর হায়দার আলী বলেন, আসামি গ্রেপ্তার না হওয়ায় প্রথম থেকেই ট্রাইব্যুনালের অসন্তোষ ছিল। কিন্তু সঠিকভাবে বিচারটা হচ্ছে কিনা সেটাও দেখতে হবে। রায়ের প্রতিক্রিয়ায় পলাতক হাসান আলীর পক্ষে মামলা পরিচালনার জন্য রাষ্ট্র নিযুক্ত আইনজীবী আবদুস শুকুর খান বলেন, আমরা এই রায়ে সন্তুষ্ট নই। পিতার অপরাধে পুত্র হাসান আলীকে সাজা দেয়া হয়েছে। হাসান আলী বা তার পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে আপিলের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

-(দিনাজপুর২৪ ডেস্ক)