(দিনাজপুর২৪.কম) হাওরের ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনে সুনামগঞ্জের শাল্লায় আসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ঢাকা থেকে হেলিকপ্টারযোগে লো-ফ্লাইয়ের মাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্ত কিশোরগঞ্জ, হবিগঞ্জ ও সুনামগঞ্জের হাওর পরিদর্শন করে সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলা সদরের সাহিদ আলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ ও স্থানীয় কৃষকদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে ঘিরে জেলা প্রশাসন ও দলীয়ভাবে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। এলাকার নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য ড. জয়া সেনগুপ্তা, সুনামগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য মহিবুর রহমান মানিক, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এনামুল কবির ইমন কয়েকদিন ধরে শাল্লায় অবস্থান করে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেন। গতকাল থেকে কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেনও এলাকায় অবস্থান করছেন। শাল্লাসহ পার্শ্ববর্তী উপজেলাগুলোতেও সাজ সাজ রব বিরাজ করছে। সকাল সাড়ে ১০টায় শাল্লা উপজেলা সদরের সাহিদ আলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অবতরণ করে পাশে নির্মিত মঞ্চেই ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করবেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রীর সফরের খবরে হতাশার মাঝেও আশার আলো দেখছেন হাওরবাসী। শুধুই ত্রাণ বিতরণ নয়, রাষ্ট্র প্রধানের এ সফরকে বিশেষভাবেই মূল্যায়ন করছেন শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও যোগাযোগ ব্যবস্থাসহ সব ক্ষেত্রেই পিছিয়ে পড়া ভাটির এ জনপদের বিশাল জন-গোষ্ঠী। বুকভরা আশা নিয়ে শাল্লার সাহিদ আলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে উপস্থিত হবেন হাওর পাড়ের লাখো মানুষ। সবার একটিই কথা শুধু ত্রাণ নয়, বেঁচে থাকার জন্য ঘুরে দাঁড়াবার সুযোগ করে দেয়ার। দিরাই ডিগ্রি কলেজের সাবেক প্রিন্সিপাল মিহির রঞ্জন দাস বলেন, একটি এলাকায় যে কোনো কারণেই হোক সরকার প্রধানের আগমন বিশেষ গুরুত্ব বহন করে। মানুষের মধ্যে আশা আকাঙ্ক্ষার সৃষ্টি হয়। আমরা আশাবাদী শুধু ত্রাণ সামগ্রীই নয় দিরাই শাল্লাবাসী অনেক কিছুই পাবে। শাল্লা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ আবদুস শহীদ বলেন, বছরব্যাপী হাওর এলাকায় খাদ্যবান্ধব বিশেষ কর্মসূচি চালু রাখা প্রয়োজন, অনেক মানুষ কষ্ট করছে কিন্তু লাইনে দাঁড়িয়ে চাল ক্রয় করতে পারছে না। তাদের চালক্রয়ের ব্যবস্থা করে দিতে হবে। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যরিস্টার এনামুল কবির ইমন বলেন, প্রধানমন্ত্রী জনগণের কথা শুনতে নিজেই আসছেন। দলীয় সভানেত্রীর আগমনকে সার্থক ও সুন্দর করে তুলতে জেলা আওয়ামী লীগ বিভিন্ন প্রস্তুতি সভাসহ ব্যাপক প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। মুহিবুর রহমান মানিক এমপি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে সুনামগঞ্জবাসীর মাঝে প্রাণের উচ্ছ্বাস সৃষ্টি হয়েছে।  কৃষকের ফসল রক্ষায় সরকার স্থায়ী চিন্তা ভাবনা করছে। ড. জয়া সেনগুপ্তা এমপি বলেন, গণমানুষের নেত্রী, জনগণের কথা শুনতেই হাওর এলাকায় আসছেন, উনার আগমনে হাওর এলাকার দুঃখ-দুর্দশা লাঘব হবে। -ডেস্ক