(দিনাজপুর২৪.কম) কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা মামলায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে বলিউড তারকা সালমান খানকে। একইসঙ্গে তাকে ১০ হাজার রুপি জরিমানা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (০৫এপ্রিল) দুপুরে ভারতের যোধপুরের আদালত২০ বছর আগের এই মামলার রায় ঘোষণা করেন। তবে তিনি আপিল করতে পারবেন।তাকে অন্তত পাঁচদিন জেলে থাকতে হতে পারে বলে জানা যাচ্ছে। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়া।

রায়ের পর্যবেক্ষণে আদালত বলেছে, এই ধরনের কাজ সালমানের ‘অভ্যাসগত অপরাধ’। একই মামলায় অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় খালাস পেয়েছেন বলিউড তারকা টাবু, নীলম, সোনালি বেন্দ্রে, সাইফ আলি খান। নিয়ম অনুযায়ী এখন যোধপুর কারাগারে নেওয়া হবে ৫২ বছর বয়সী এই অভিনেতাকে। ২০০৬ সালেও একই করাগারে পাঁচরাত কাটাতে হয়েছিল তাকে।

এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়, আদালতে রায় ঘোষণার সময় উপস্থিত ছিলেন সালমান। এসময় কালো রঙের ‘লাকি’ শার্টটি পরেছিলেন তিনি।

এর আগে, এই মামলায় বারবার নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করার চেষ্টা করেছেন সালমান। কিন্তু তার কোনো যুক্তিই এবার আদালতে টেকেনি। বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইনের ৯/৫১ ধারায় দোষী প্রমাণিত হয়েছেন সালমান। এই আইনে সর্বোচ্চ ৬ বছরের কারাদণ্ডের এবং সর্বনিম্ন ১ বছরের কারাদণ্ডের বিধান রয়েছে।

১৯৯৮ সালের অক্টোবরে যোধপুরে ‘হাম সাথ সাথ হ্যায়’ ছবির শুটিং চলাকালে কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা করার অভিযোগ ওঠে সালমন খানের বিরুদ্ধে। একই অভিযোগ ওঠে সাইফ আলি খান, টাবু, নীলমসহ একাধিক তারকার বিরুদ্ধে। বিরল প্রজাতির কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা বন্যপ্রাণী আইন অনুযায়ী দণ্ডনীয় অপরাধ। প্রায় দু’দশক ধরে নানা উত্থান পতন হয়েছে ওই মামলার। -ডেস্ক