প্রেস ক্লাবের সামনে জড়ো হয়েছে রাইড শেয়ারিং প্ল্যাটফর্মের চালকরা। ছবি-সংগ্রহীত

(দিনাজপুর২৪.কম) ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ, চট্টগ্রাম, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, বরিশাল, কুমিল্লা, রংপুর ও ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন এলাকায় বাস চলাচল শুরু হয়েছে। আজ বুধবার সকাল থেকে এসব এলাকায় বাস চলাচল শুরু হয়। দেশের সব সিটি করপোরেশন এলাকায় সকাল-সন্ধ্যা গণপরিবহন চালু থাকবে।

রাজধানীতে সকাল ৬টা থেকে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে ফের শুরু করে গণপরিবহন চলাচল। নির্ধারিত হারের চেয়ে ৬০ শতাংশ বেশি ভাড়ায় যাত্রী পরিবহনগুলো রাস্তায় নেমেছে। তবে, খড়্গ থাকছে উবার-পাঠাওসহ সব রাইড শেয়ারিং প্ল্যাটফর্মে। সকাররের নির্দেশনা অনুযায়ী তারা যাত্রী পরিবহন করতে পারছেন না। যে কারণে আজ বুধবার রাজধানীর খিলক্ষেত, তেজগাঁও, প্রেসক্লাবসহ বিভিন্ন এলাকায় বিক্ষোভ করেছে উবার-পাঠাও চালকরা। এমনকি কিছু সময়ের জন্য সড়ক অবরোধও করেছিল তারা।

বিক্ষোভ করতে করতে এখন প্রেস ক্লাবের সামনে অবস্থান করছেন রাইড শেয়ারিং প্ল্যাটফর্মের চালকরা। তারা বলেন, সংসার চালাতে মোটরসাইকেলে রাইড শেয়ারিং করেন তারা। সরকারের নির্দেশনায় গণপরিবহন চললেও মোটরসাইকেল বন্ধ করে তাদের পেটে লাথি মারা হচ্ছে।

রুবেল ইসলাম নামের এক বাইক চালক বলেন, রাইড শেয়ারিং বন্ধ থাকলে আমারা চলবো কীভাবে। অনেকেই করোনায় চাকরি হারিয়ে এই রাইড শেয়ারিংয়ের ওপর নির্ভর করে সংসার চালাচ্ছে। এখন আমাদের সংসার চালানো দায় হয়ে পড়েছে। তাই বাধ্য হয়ে সড়কে নেমে প্রতিবাদ করছি।

এ ছাড়া, গত দুই দিনের মতো আজও সকাল থেকেই লকডাউনে দোকান খুলে দিতে গাউসিয়া-নিউমার্কেট, বসুন্ধরা সিটিসহ অনেক এলাকার ব্যবসায়ী ও কর্মচারীরা বিক্ষোভ করেছেন। সড়কে দাড়িয়ে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেছেন রাজধানীর একাধিক এলাকার ব্যবসায়ীরা। তাদের দাবি, লকডাউনে যেন সল্প পরিসরে ৬ থেকে ৮ ঘণ্টার জন্য হলেও দোকান পাট খুলে দেওয়া হয়। -ডেস্ক