(দিনাজপুর২৪.কম) করোনাভাইরাস প্রতিরোধের লক্ষ্যে চলমান কার্যক্রম সমন্বয় করতে মঙ্গলবার সকালে দেশের ৬৪টি জেলার জেলা প্রশাসকদের সঙ্গে আয়োজিত ভিডিও কনফারেন্সে এই নির্দেশনা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের সেবা নিশ্চিত করতে হবে। কোনভাবেই ব্যাহত হওয়া চলচে না। আমি সবাইকে নির্দেশ দিচ্ছি চিকিৎসকদের নিরাপত্তা দিন। হাসপাতাল যারা আক্রান্ত রোগীর সংস্পর্শে যায়, তারা ছাড়া বাকিরা এর ব্যবহার বন্ধ করুন। পিপিই সবার ব্যবহারের জন্য নয়। এটি ডাক্তার, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, পিপিই হচ্ছে যারা স্বাস্থ্যসেবায় নিয়োজিত তাদের জন্যে, ইদানিং দেখছি যত্রতত্র সবাই এর ব্যাবহার করছে। যাদের দরকার তারাই পাচ্ছে না, প্রথমে চিকিৎসকদের পিপিই প্রয়োজন। অযথা বাড়াবাড়ি করে বাবুর্চি, গেটম্যান, ব্যাংক এ সবাইকে দিয়ে সংকট করবেন না। আমি নিজেও বিব্রত বোধ করেছি এইটা দেখে, আতংকিত হয়ে যাই পাচ্ছেন পাচ্ছেন তাই পড়ছেন। চিকিৎসক ছাড়া অহেতুক যারা যারা পিপিই পড়বেন, তাদের সবাইকে করোনা রোগী দেখতে পাঠাবো।

আর সে সকল গার্মেন্টস পিপিই তৈরি করতে পারবে, তারা যাতে চিকিৎসকদের পরামর্শ নিয়ে তৈরি করে, যাতে কাজের উপযোগী হয়।

সকালে ডিসিদের সঙ্গে প্রহলা বৈশাখ বন্ধের নির্দেশ দিয়ে বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, নববর্ষের অনুষ্ঠান আমরাই শুরু করেছিলাম। কিন্তু তাও আমাদের বন্ধ রাখতে হচ্ছে। মানুষের কল্যাণেই এ অনুষ্ঠান না করার অনুরোধ আপনাদের।

জিনিসের দাম যেন বা বাড়ে সেদিকে নজর দিতে বলেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, জিনিসের দাম যেন না বাড়ে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। মানুষের দুর্যোগের সুযোগ নিয়ে অবাধে দাম বাড়িয়ে মানুষকে কষ্ট দেয়া যাবে না। এ বিষয়টি মানবিক দিক দিয়ে সবাই দেখবেন এটা আমি বিশ্বাস করি।