বি. এম. জুলফিকার রায়হান তালা (দিনাজপুর২৪.কম) স্বামীর সাথে চিকিৎসা নিতে তালা হাসপাতালে আসা হলো না ২ সন্তারের জননী সালেহা বেগমের। চিকিৎসা নিতে আসার পূর্বেই পথিমধ্যে ঘাতক ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে নির্মমভাবে মৃত্যুবরন করতে হলো সালেহা বেগম (৩৪) এর। শনিবার সকাল ১০টার দিকে তালার গোনালী বাজার খেয়াঘাট মোড় এলাকায় মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনায় মৃত্যু হয় তার। ঘটনায় গুরুতর আহত হয় সালেহার স্বামী মাসুদ হোসেন মোড়ল (৩৮)।
স্থানীয় সূত্র জানায়, উপজেলার জেঠুয়া গ্রামের মাসুদ মোড়ল’র স্ত্রী সালেহা বেগম দীর্ঘদিন কিডনি সহ অন্যান্য অসুখে ভুগছিল। যেকারনে ডাক্তার দেখানোর জন্য শনিবার সকালে মাসুদ স্ত্রীকে  সাথে নিয়ে নিজ মটরসাইকেলযোগে তালা হাসপাতালে আসছিল। পথিমধ্যে খুলনা-পাইকগাছা সড়কের গোনালী বাজার খেয়াঘাট মোড় পার হবার সময় কেশবপুরগামী একটি ট্রাক (ঝিনাইদহ-ট-১১-০২৭১) পিছন দিক থেকে এসে মটরসাইকেলটির ধাক্কা দেয়। এতে মটরসাইকেলের পিছনে বসা সালেহা বেগম রাস্তার উপর পড়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলে নিহত হয়। অপরদিকে মটরসাইকেলটি মারাতœক ক্ষতিগ্রস্থ হওয়া সহ সালেহার স্বামী মাসুদ মোড়লও গুরুতর আহত হয়।

দূর্ঘটনার পরপরই ঘাতক ট্রাক পালিয়ে যায় এবং স্থানীয় জনতা সড়ক অবরোধ করে রাখে। ঘটনার সংবাদ পেয়ে তালা থানা পুরিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে প্রায় ৪৫ মিনিট পর সড়ক যোগাযোগ স্বাভাবিক অবস্থায় নিয়ে আসে।

তালা থানার ওসি ছগির মিয়া জানান, দূর্ঘটনায় নিহত সালেহার লাশ উদ্ধার করে থানা আনা হয়। অপরদিকে পালিয়ে যাবার সময় উপজেলার ইসলামকাটী বদরমোড় এলাকা থেকে জনতা ঘাতক ট্রাক সহ ট্রাকের ড্রাইভারকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে।

ওসি আরও জানান, দূর্ঘটনার বিষয়ে নিহতের পরিবার কোনও মামলা না করায় সালেহার মৃতদেহ ময়নাতদন্ত ছাড়ায় পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হয়। এছাড়া মামলা না হওয়ায় ট্রাকের ড্রাইভার কেশবপুর উপজেলার আলতাপুর গ্রামের রহমত আলী বিশ্বাস’র পুত্র আব্দুল হালিম (৪২) কে থানা থেকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। -ডেস্ক