(দিনাজপুর২৪.কম) গাছে বেঁধে গৃহবধূ নির্যাতনকারী সেনা সদস্য শফিকুল শেখ কার স্বামী? তাকে স্বামী দাবি করে পাল্টা পাল্টি সংবাদ সম্মেলন করেছেন নির্যাতিত গৃহবধূ ববিতা খানম ও মাহমুদা আক্তার নামে এক নারী।নড়াইলের শালবরাত গ্রামের শফিকুলকে স্বামীর দাবিতে মাহমুদা আক্তারের সংবাদ সম্মেলনের বিষয়টিকে নিছক ষড়যন্ত্র বলে উল্লেখ করেছেন নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ ববিতা খানম।ববিতা বলেন, ‘গত ২২ জুন ন্যায়বিচারের দাবিতে আমি সংবাদ সম্মেলন করি, তার পাল্টা জবাব দিতে মাহমুদা নামের মেয়েটিকে দিয়ে আসামিপক্ষের লোকজন সংবাদ সম্মেলন করিয়েছেন।’গত বুধবার (২৪ জুন) দুপুরে নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতি মিলনায়তনে মাহমুদা আক্তার নামের ওই কলেজছাত্রী  শফিকুল শেখকে স্বামী দাবি করে সংবাদ সম্মেলন করেন।সংবাদ সম্মেলনে নিকাহনামা দেখিয়ে মাহমুদা আক্তার বলেন, ‘ইসলামী শরিয়া মোতাবেক ২০১২ সালের ১ মে শফিকুলের সঙ্গে আমার বিয়ে হয়। ২০১৩ সালের ২২ জানুয়ারিতে শফিকুলের সঙ্গে ববিতার বিয়ের বিষয়টি ঠিক নয়। তাদের বিয়ের কোনো রেজিস্ট্রেশনই নেই।’মাহমুদা দাবি করেন, ‘ঘটনার দিন ববিতা নির্যাতন মামলার আসামি আজিজুর রহমান আরজু শালবরাত গ্রামে ছিলেন না। এমনকি ঘটনার সঙ্গেও আরজু জড়িত নন।’অন্যদিকে ববিতা খানম বলেন, ‘মাহমুদার দাবি সঠিক নয়। আমার বিয়ের নিকাহনামাই সঠিক। সংশ্লিষ্ট সবাই বিষয়টি অবগত আছেন।’এদিকে, দুটি সংবাদ সম্মেলনের বিষয়ে নড়াইল ও লোহাগড়ায় বিভিন্ন মহলে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা ঝড় বইছে।প্রসঙ্গত, গত ৩০ এপ্রিল সকালে শালবরাত গ্রামে গৃহবধূ ববিতা খানমের শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাকে গাছের সঙ্গে বেঁধে অত্যাচার চালায়।এ ঘটনায় শফিকুল শেখ, শফিকুলের বাবা ছালাম শেখ, মা জিরিনা বেগম, ভাই আবুল হাসান, আজিজুর রহমান আরজুসহ সাতজনের নামে মামলা দায়ের করা হয়। এ মামলার আসামি আজিজুর রহমান আরজু জামিনে থাকলেও অন্যরা জেল-হাজতে আছেন।(ডেস্ক)