(দিনাজপুর২৪.কম) রাশিয়ার একটি ব্যাংকে হামলা চালিয়ে ৩৩ কোটি ৯৫ লাখ রুবেল বা ৬০ লাখ ডলার চুরি করেছে হ্যাকাররা। এ জন্য তারা ব্যবহার করে আন্তর্জাতিক অর্থ লেনদেনের ব্যবস্থা সুইফট। রাশিয়ার ওই ব্যাংকটির সুইফট কোড ভেঙে দিয়ে এর একাউন্টের ভিতরে প্রবেশ করে হ্যাকাররা। এভাবেই গত বছরে চুরি করে নেয় ওই অর্থ। রাশিয়ার কেন্দ্রীয় ব্যাংক এ কথা জানিয়েছে শুক্রবার। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স, অনলাইন দ্য হিমালয়া।

এর মধ্য দিয়ে রাশিয়ার ব্যাংকে ডিজিটাল পদ্ধতিতে ওই অর্থ চুরির খবর প্রকাশ হয়ে পড়ে। সুইফট কোড ব্যবহার করে অনলাইনে একইভাবে বাংলাদেশে রাজকোষ চুরি হয়েছে। একের পর এক সফলভাবে এ রকম হামলা চালাতে সক্ষম হচ্ছে হ্যাকাররা। রাশিয়ায় সফলভাবে এমন হামলা চালানোর পর সুইফট সিস্টেম অপারেটরদের বিষয়টি অবহিত করেছে সেদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক। তারা বলেছেন, চুরি যাওয়া অর্থের পরিমাণ হলো ৩৩ কোটি ৯৫ লাখ রুবেল। তবে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানাতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে রাশিয়ার কেন্দ্রীয় ব্যাংক। উল্লেখ্য, সুইফট কোড ব্যবহার করে প্রতিদিন লাখ লাখ কোটি ডলার অর্থ স্থানান্তর হয়। এর এক মুখপাত্র নাতাশা ডি তেরান রাশিয়ার হ্যাকারের জবাবে বলেছেন, তারা এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করবেন না। তিনি বলেন, যখন এমন কোনো জালিয়াতির খবর আসে আমরা তখন তাদেরকে নিরাপত্তা দেয়ার ক্ষেত্রে সহযোগিতা করি।  রাশিয়ার অর্থ নিয়ন্ত্রকের নিরাপত্তা বিভাগের উপ প্রধান আরটেম সাচেভকে উদ্ধৃত করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক বলেছে, হ্যাকাররা চুরি করা অর্থ তুলে নিয়েছে। যখন তারা কোনো কম্পিউটার নেটওয়ার্কের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয়, তখন বিষয়টি তাদের কাছে খুব সাধারণ হয়ে ওঠে। ব্রাসেলস ভিত্তিক সুইফট বলেছে, গত বছর ডিজিটাল চুরি ক্রমবর্ধমান হারে বেড়েছে। কারণ, হ্যাকাররা হামলা চালাতে অত্যাধুনিক টুলস ও প্রযুুক্তি ব্যবহার করে। গত ডিসেম্বরে সুইফট সিস্টেম ব্যবহার করে রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় ব্যাংক গ্লোবেক্স থেকে ৫ কোটি ৫০ লাখ রুবেল চুরি করার চেষ্টা করে হ্যাকাররা। অন্যদিকে ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে হ্যাকাররা বাংলাদেশ ব্যাংকের একাউন্ট থেকে চুরি করে ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার। তবে কি পরিমাণ সেবা গ্রহণকারী এমন আক্রমণের শিকার হয়েছে তাদের সংখ্যা প্রকাশ করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে সুইফট কর্তৃপক্ষ। কিন্তু কিছু কিছু তার প্রকাশিত হয়ে পড়েছে। -ডেস্ক