(দিনাজপুর২৪.কম)৩ ম্যাচ সিরিজের ২য় ওয়ানডেতে আজ রবিবার আরও ভারতের মুখোমুখি হচ্ছে উজ্জীবীত বাংলাদেশ। মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের বিকেল ৩ টায় ম্যাচটি শুরু হবে। এদিকে সিরিজের ১ম ম্যাচটি বিশাল ব্যবধানে জিতে এখন ফুরফুরে মেজাজে রয়েছে টিম বাংলাদেশ। ফলে আজ ২ ম্যাচ জিতে আগে-ভাগেই সিরিজ জয় নিশ্চিত করতেই মাঠে নামবে টাইগাররা- এমনটাই তাদের একমাত্র লক্ষ্য বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন বাংলদেশ দলের কোচ ও খেলোয়াড়রা। অবশ্য এমনটিই আশা সারাদেশের ভক্ত-সমর্থকদেরও। আর সে কারণে মাঠে বসে খেলা দেখতে আগ্রহীহের কাছে ২য় ওয়ানডের টিকিটের চাহিদা এখন আকাশ ছোঁয়া। কিন্তু স্টেডিয়ামের ধারণ ক্ষমতা মাত্র ২৫ হাজার হওয়ায় টিকিট পরিণত হয়েছে সোনার হরিণে।
লক্ষ্যনীয় হচ্ছে যে, দেশের মাটিতে টানা ৯ ম্যাচে অপরাজিত থেকে আজ ভারতের বিপক্ষে সিরিজ জয়ের ম্যাচ খেলতে নামছে টাইগাররা। জিম্বাবুয়েকে হারিয়েছে ৫-০ তে। পাকিস্তানকে ৩-০ তে। এরপর ভারতকে ৩ ওয়ানডের সিরিজের ১ম ম্যাচেই হারিয়ে দিয়েছে ৭৯ রানে। হয়ে গেলো দেশের মাটিতে টানা ৯ ম্যাচে জয়। এবার দশমটা দরকার। আজ বাংলাদেশের সিরিজ জয়ের মিশন, সেটি ভারতের সিরিজ হার ঠেকানোর লড়াই। দারুণ ব্যাপার তো!
মেলবোর্নে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে সত্যি বড় অন্যায় হয়েছিল বাংলাদেশের সাথে। ৪ মাসের ব্যবধানে ভারতকে ঢাকার মাটিতে লুটিয়ে দিয়ে সেটাই প্রমাণ করেছে টাইগাররা। অনেকের চোখে এটা বাংলাদেশের প্রতিশোধ। বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা প্রতিশোধের কথায় আপত্তি জানান। খেলা এটা! প্রতিশোধের কি আছে। মনে মনে কি লুকিয়ে থাকে ভিন্ন কিছু। প্রতিশোধ নিলে তো আদর্শ হয় সিরিজটাতেই ভারতকে হারিয়ে দিতে পারলে! আর সেটা ১ম ২ ম্যাচে করে ফেলতে পারলে তো কথাই নেই! প্রতিশোধ তো এসবকেই বলে, নাকি!
মিরপুর স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ দলের দিকে তাকালে যে কেউ বলবে এটা সুখের এক সংসার! আর ভারতীয় দলের মাঝে শক্ত চোয়ালের প্রতিযোগিতা! হাসি আছে। কিন্তু প্রাণটা কম। বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে ধোনির দল যেভাবে হেরেছে সেভাবে হারে র‌্যাংকিংয়ের নিচের দল। ভারতকে মাটিতে নামিয়ে এনে এমন হার উপহার দিতে পারা বাংলাদেশ তো সুখী পরিবার হবেই! ভারতের এখন ফেরার লড়াই। কিন্তু ওই যে আরো একটি ব্যাপার আছে। ঘরের মাটিতে শেষ ২ সিরিজে বাংলাদেশ প্রতিপক্ষকে বাংলাওয়াশ করেছে। হোয়াইটওয়াশ এ দেশে চলে না। চলে বাংলাওয়াশ। তা সেই ওয়াশ দেবার আগে টানা জিতে আগে সিরিজ জয় নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশ। পরে দিয়েছে ওয়াশ। ভারতের বিপক্ষেও কি তাই হতে যাচ্ছে!
বাংলাদেশের সামনে একটি প্রেরণা আছে। ১ম ম্যাচে জিতে বাংলাদেশ বিশ্ব র‌্যাংকিংয়ের ৭ নম্বরে চলে গেছে। ভারত ওখানে ২ এ। ব্যাপার হলো আর একটি ওয়ানডে জিতলেই এ বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশ র‌্যাংকিংয়ের আটের মধ্যে রয়ে যাবে। তাতে ২০১৭ ইংল্যান্ড আইসিসি চ্যম্পিয়ন্স ট্রফিতে খেলা হবে নিশ্চিত। একটি ম্যাচ জেতা খুব জরুরি। তাহলে তা আর দেরি করে কি লাভ! ধারাবাহিকতা তো আছেই। সেটাই ধরে রাখলেই হয়!
৪ পেসার নিয়ে ১ম ওয়ানডে খেলতে নেমে চমকে দিয়েছিল টাইগাররা। পরে অবশ্য পেসারদের পারফরম্যান্সে প্রশ্ন তোলার সুযোগটা আসেনি। মুস্তাফিজ ৫ উইকেট নিয়েছেন। তাসকিন আহমেদ নিয়েছেন মহামূল্যবান ২ উইকেট। মাশরাফি ১ উইকেট। রুবেল উইকেট না পেলেও প্রশ্ন তোলার মতো খারাপ করেননি। সুতরাং ৪ পেসার তো খেলবেনই। আসলে বাংলাদেশ চাইছে উইনিং কম্বিনেশন ধরে রাখতে। যে দলটি ১ম ওয়ানডেতে সাফল্য এনে দিয়েছে সে দলটিকেই মাঠে নামাতে চায় টাইগাররা।
এদিকে কাঙ্ক্ষিত টিকিটের আশায় শুক্রবার রাত থেকেই দীর্ঘ লাইনে দাঁড়ান টাইগার সমর্থকরা। ভোরের আলো ফোটার আগেই, মিরপুর ইউনাইটেড কর্মাশিয়াল ব্যাংকের সামনে দেখা যায় টিকিট প্রত্যাশীদের দীর্ঘ লাইন। নারীদের দীর্ঘ লাইন ছিলো চোখে পড়ার মত। কালোবাজারির অভিযোগ পাওয়া না গেলেও, বিশৃঙ্খলার অভিযোগ এনেছেন টিকিট প্রত্যাশীরা। আর দীর্ঘ লাইনের শেষে যারা টিকিট হাতে পেয়েছেন তাদের চোখেমুখে ছিলো ইতিহাসের অংশ হতে পারার আনন্দ।
অন্যদিকে মিরপুরে ভারতকে ৭৯ রানে হারানো ম্যাচে নায়ক বাঁ হাতি পেসার মুস্তাফিজ। ২য় ম্যাচেও তিনি সাফল্য পাবেন, এমনটাই আশা বাংলাদেশের কোচ চন্দিকা হাথুরুসিংহের। তবে মুস্তাফিজকে নিয়ে যে টিম ম্যানেজমেন্টের ভিন্নভাবে মাথা ঘামাতে হচ্ছে সেটা বোঝা গেল বাংলাদেশ কোচের কথায়। তিনি  বলেন, ১ম ম্যাচে সফল মুস্তাফিজের বল সম্পর্কে ভারতের ব্যাটসম্যানরা ভালো ধারণা পেয়েছে। তাই তাকে নিয়ে আমাদের আলাদা করে পরিকল্পনা করতে হচ্ছে। আমার আশা, ১ম ম্যাচের মতো ২য় ম্যাচেও জ্বলে উঠবে সে। দলকে এনে দেবে সাফল্য।
৩ ম্যাচের ওয়ানডের সিরিজে বাংলাদেশের লিড ১-০ এর। মিরপুরের ২য় ওয়ানডে জিতলেই প্রথমবারের মতো ভারতকে সিরিজ হারিয়ে ফেলবে বাংলাদেশ। সে সম্ভাবনা ভালোই দেখছেন হাথুরুসিংহেও। কোচের চোখে আরেকটি জয়ের আশা। তিনি বলেন, আমরাই ফেভারিট তা বলছি না। তবে ২য় ম্যাচেও জয়ের ব্যাপারে আমরা আত্মবিশ্বাসী। ১ম ম্যাচ জয়ের পর আমাদের বিশ্বাসটা বেড়ে গেছে বলেও জানিয়েছেন টাইগার কোচ।
পক্ষান্তরে বাংলাদেশে নয়া সেনসেশন মুস্তাফিজুর রহমান খেলেছেন একটি মাত্র ম্যাচ। আর তাতেই এখন বাংল্যাদেশের চোখের মনি হয়ে উঠেছেন তিনি। ১ম ওয়ানডের ম্যান অফ দ্য ম্যাচ আবার ভারতীয়দের প্রধান শত্রুতে পরিণত হলেন অভিষেক ম্যাচেই। তাকে যতটুকু বোঝার খেলে বুঝেছে ভারতীয় দল। বাকিটা নিশ্চয়ই ভিডিও বিশ্লেষন করে বুঝে নেয়ার চেষ্টা করেছে ধোনি, কোহলিরা। আজ ২য় ওয়ানডেতে ভারত তাই মুস্তাফিজকে অনেকটা বুঝেই খেলবে। যেমনটা আসলে ঘটেনি ১ম ওয়ানডেতে। আর সে কারণেই মুস্তাফিজকে নিয়ে করা পরিকল্পনা বদলাতে হচ্ছে টাইগারদেরও।

বাংলাদেশ স্কোয়াড

মাশরাফি বিন মর্তুজা (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, মোমিনুল হক, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান, সাব্বির রহমান, নাসির হোসেন, আরাফাত সানি, তাসকিন আহমেদ, রুবেল হোসেন, রনি তালুকদার, মুস্তাফিজুর রহমান ও লিটন কুমার দাস।

ভারতীয় স্কোয়াড

মহেন্দ্র সিং ধোনি (অধিনায়ক), শিখর ধাওয়ান, রোহিত শর্মা, বিরাট কোহলি, সুরেশ রায়না, আম্বাতি রাইদু, আজিঙ্কা রাহানে, রবিন্দ্র জাদেজা, ধাওয়াল কুলকার্নি, রবীচন্দ্রন অশ্বিন, স্টুয়ার্ট বিনি, অক্ষর প্যাটেল, মোহিত শর্মা, উমেশ যাদব ও ভুবেনশ্বর কুমার। (ডেস্ক)