বি. এম. জুলফিকার (দিনাজপুর২৪.কম) সিরাজগঞ্জের উকিলপাড়ায় জঙ্গি আস্তানায় র‌্যাবের অভিযানে আটক সন্দেহভাজন ৪ জঙ্গির মধ্যে আমিনুল ইসলাম ওরফে শান্ত (২২) এর বাড়ি তালা উপজেলার খলিলনগর ইউনিয়নের দক্ষিণনলতা গ্রামে। সে যশোরের মনিরামপুর উপজেলার অবসরপ্রাপ্ত আনসার ব্যাটালিয়ান সদস্য বজলুর রহমান’র ছেলে। তবে, তালার দক্ষিণনলতা গ্রামে দীর্ঘবছর ধরে মায়ের সাথে বসবাস করতো। কিন্তু প্রেমজ সূত্রে একই গ্রামে বিয়ে করার পর থেকে শান্ত তার নানা মরহুম হানিফ আলী গাজীর বাড়ি থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।
খলিলনগর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান রাজু ও একই ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান প্রভাষক প্রণব ঘোষ বাবলু জানান, সিরাজগঞ্জে জঙ্গি আস্তানা থেকে শুক্রবার সকালে র‌্যাবের অভিযানে আটক আমিনুল ইসলাম শান্ত’র বর্তমান ঠিকানা তালার দক্ষিণনলতা গ্রামে। এই গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য ও শিক্ষক জি.এম. মোস্তাফিজুর রহমান তিতু তার মামা এবং একই গ্রামের শরিফুল মোড়ল তার শশুর। ঘটনাটি প্রচার হবার পর থেকে এলাকায় চাঞ্চল্য শুরু হয়।
আমিনুল ইসলাম শান্ত’র মামা, দক্ষিণনলতা গ্রামের জি.এম. মোস্তাফিজুর রহমান তিতু জানান, তালা থানায় কর্মরত থাকাবস্থায় আনসার ব্যাটালিয়ান সদস্য মনিরামপুর সদরের বজুুলর রহমানের সাথে তার বোন রোকসানা খাতুন বিথির বিয়ে হয় এবং তাদের একমাত্র সন্তান আমিনুল ইসলাম শান্ত। তিনি জানান, বহু বিবাহিত প্রতারক বজলু বিয়ের পর সন্তান ও স্ত্রী’র খোজখবর নেয়া বন্ধ করে দেয়। ফলে বিথি তার সন্তান আমিনুল ইসলামকে নিয়ে আমাদের এখানে থাকতো। আমিনুল ছোট বেলা থেকে সহজ-সরল প্রকৃতির ছিল। সে তালা বি.দে. সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে সফলতার সাথে এসএসসি, তালা সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি এবং সাতক্ষীরা সরকারি কলেজ থেকে অনার্স ডিগ্রি অর্জন করে।
মোস্তাফিজুর রহমান তিতু বলেন, অনার্স পাশ করার পর আমিনুল ইসলাম প্রেমজ সূত্রে একই গ্রামের শরিফুল মোড়লের মেয়ে হাবিবা খাতুনকে বিয়ে করে। এই বিয়ে নিয়ে পারিবারিক বিরোধ সৃষ্টি হলে সে ও তার মা বিগত প্রায় ২বছর ধরে আলাদা বসবাস শুরু করে। এসময়, সাংসারিক কারনে আমিনুল ইসলাম শান্ত খুলনায় ফুড পান্ডা নামের একটি খাদ্য সরবারহকারী প্রতিষ্ঠানে ডেলিভারী বয়’র চাকরি শুরু করে। এখানে চাকরি করাকালে শান্ত’র ধর্মীয় নীতি পালনে পরিবর্তন আসে এবং হানাফি মাজহাব পরিবর্তন করে নামাজ পড়ার কারনে মামা বাড়ির সাথে তার যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। খুলনায় চাকরি করাকালে সে বিপথগামী হতে পারে বলে জি.এম. মোস্তাফিজুর রহমান জানান।
এবিষয়ে তালা থানার ওসি মো. মেহেদী রাসেল বলেন, আমিনুল ইসলাম শান্ত র‌্যাবের অভিযানে আটক হবার পর তার পরিবারের বিষয়ে ব্যপক খোজ-খবর নেয়া হচ্ছে।
উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার (১৯ নভেম্বর) রাতে রাজশাহীর শাহ মখদুম থানা এলাকায় নব্য জেএমবির আমির মাহবুবসহ চার জনকে আটক করে র‌্যাব-৫। আটক আমিরের তথ্যের ভিত্তিতে শুক্রবার (২০ নভেম্বর) ভোর সাড়ে ৫টা থেকে সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরের শেরখালি উকিলপাড়ায় অভিযান চালান র‌্যাব সদস্যরা। প্রায় পাঁচ ঘণ্টার অভিযানে চার সন্দেহভাজন জঙ্গি কিরন ওরফে শামিম, নাইমুল ইসলাম, আতিয়ার হোসেন ও আমিনুল ইসলাম ওরফে শান্ত আত্মসমর্পন করে। এসময় ওই বাড়ি থেকে বিপুল পরিমাণ জিহাদি বই, দুটি বিদেশি পিস্তল ও বোমা তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার করে র‌্যাব।