(দিনাজপুর২৪.কম) দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় মানুষের মৃত্যুর মিছিল অপ্রতিরোধ্যভাবে বাড়ছে। জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি করছে ঘাতক বাস-ট্রাক চালকদের বেপরোয়া কর্মকাণ্ড। প্রতিদিনই কয়েক ডজন পরিবারে আর্তনাদ সৃষ্টি করছে সড়ক দুর্ঘটনা। এমন কোনো দিন নেই, যেদিন অকালে প্রাণ ঝরছে না।সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সড়ক দুর্ঘটনা এদেশে অনেকটা মহামারীর মতো। তবে গত তিন মাসের পর্যালোচনা বলছে, দুর্ঘটনার ব্যাপকতা বেড়েছে। বর্তমানে পরপর কয়েকটি ঘটনায় এটি অনেক বেশি নজরে এসেছে। মানবাধিকারকর্মীরা বলছেন, বিচারের মুখোমুখি করতে না পারার কারণে এবং ক্ষমতাবানদের ছত্রচ্ছায়ায় চালকরা পার পেয়ে যাওয়ায় কমছে না সড়ক দুর্ঘটনা। প্রতিদিনের মতো শুক্রবার রাত থেকে শনিবার (২৩জুন) সকাল পর্যন্ত ১০ জেলায় ৪০জন নিহত হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। এর মধ্যে গাইবান্ধায় ১৬ জন, রংপুর ৬ জন, চট্টগ্রাম ৩ জন, সিরাজগঞ্জ ২ জন, নাটোর ২ জন, ঢাকা ৪ জন, গোপালগঞ্জ ২ জন, চুয়াডাঙ্গার ১জন, ফরিদপুরের ভাঙ্গায় দুজন এবং লক্ষ্মীপুরে ২জন নিহত হয়েছেন।আামাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর:

গাইবান্ধা: গাইবান্ধার পলাশবাড়িতে রাস্তার পাশের গাছের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে একটি বাস উল্টে অন্তত ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে; আহত হয়েছেন আরও অন্তত ৪০ জন। শনিবার (২৩জুন) ভোর সাড়ে ৪টার দিকে উপজেলার ব্র্যাক মোড়ের কাছে বাঁশকাটা (গরুরহাট) এলাকায় রংপুর-ঢাকা মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে।তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতদের নাম পরিচয় জানা যায়নি। দুর্ঘটনার কারণে সকালে প্রায় দেড় ঘণ্টা রংপুর-ঢাকা মহাসড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে। উদ্ধারকর্মীরা দুর্ঘটনাকবলিত বাসটি সরিয়ে নেওয়ার পর সড়কের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করে। গোবিন্দগঞ্জ হাইওয়ে থানার ওসি আকতারুজ্জামান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ঢাকা থেকে ঠাকুরগাঁও জেলার রানীশংকৈলের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা আলম এন্টারপ্রাইজ পরিবহনের বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের বাঁ পাশে বড় একটি রেইনট্রি গাছের সঙ্গে ধাক্কা খায় এবং উল্টে যায়। এতে বাসটির সামনের অংশ দুমড়ে-মুচড়ে যায়; ঘটনাস্থলেই নিহত হন সাতজন। পুলিশ, হাইওয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আহতদের উদ্ধার করে পলাশবাড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানে আরও নয় জনের মৃত্যু হয়।ওসি জানান, আহতদের মধ্যে কয়েকজনকে রংপুর ও বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। লাশগুলো রাখা হয়েছে গোবিন্দগঞ্জ হাইওয়ে থানায়। পরিচয় শনাক্তের পর সেগুলো পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

রংপুর: রংপুর সদর উপজেলার শলেয়াশাহ বাজারের কাছে রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়কের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা বিআরটিসির একটি দোতলা বাসে ট্রাকের ধাক্কায় ছয়জন নিহত হয়েছেন।শুক্রবার রাত ২টার দিকে এ দুর্ঘটনায় আরও ১৩ জন আহত হয়েছেন। তারাগঞ্জ হাইওয়ে থানার ওসি আবদুল্লাহ হেল বাকি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, দিনাজপুর থেকে ছেড়ে আসা বিআরটিসির ঈদ স্পেশাল দোতলা বাসটি ঢাকা যাচ্ছিল। শলেয়াশাহ বাজারের কাছে এসে বাসের একটি চাকা ফেটে যায়। চালক ও চালকের সহযোগী তখন রাস্তার পাশে বাস থামিয়ে চাকা বদলাতে শুরু করেন। বাসের কিছু যাত্রীও নেমে এসে দাঁড়িয়ে দেখছিলেন।
এমন সময় একটি বালুবাহী ট্রাক এসে পেছন থেকে বিআরটিসির বাসটিকে ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই ছয়জনের মৃত্যু হয়।খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিট এসে আহতদের উদ্ধার করে তারাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। ওসি আবদুল্লাহ হেল বাকি বলেন, নিহতরা সবাই ছিলেন বাসের আরোহী। তাদের মধ্যে নিশাত ও সাজ্জাদ নামে দুইজনের পরিচয় জানা গেছে। “দুজনেরই বয়স ২৫ থেকে ৩০ এর মধ্যে। সম্ভবত গার্মেন্টে কাজ করত। ঈদের ছুটি কাটিয়ে ঢাকায় কাজে ফিরছিল তারা।”

চট্টগ্রাম: চট্টগ্রামের রাউজানে শুক্রবার রাতে একটি যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পুকুরে পড়ে ৩ জন নিহত ও অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে চারজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। রাউজান থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ জানান, খবর পেয়ে স্থানীয় লোকজন প্রথমে উদ্ধারকাজ শুরু করে। পরে রাউজান ও রাঙ্গুনিয়া থানা এবং হাইওয়ে পুলিশ উদ্ধার কাজে যোগ দেয়।তিনি জানান, স্থানীয় বাসটি রাউজান থেকে যাত্রী নিয়ে রাণীরহাটের দিকে যাচ্ছিল। পথে উত্তর রাউজান গহিরার পর পিঙ্ক সিটি নামক স্থানে একটি পুকুরে পড়ে যায়। তবে বাসে মোট কতজন যাত্রী ছিলেন তা জানাতে পারেননি পুলিশের এই কর্মকর্তা।

সিরাজগঞ্জ: সিরাজগঞ্জের বগুড়া-নগরবাড়ী মহাসড়কের রায়গঞ্জের ভুইঢাগাতীতে বাস ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে দু’জন নিহত ও অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন।
শনিবার ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে ভুইয়াগাতী এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। তবে হতাহতদের নাম-পরিচয় তাৎক্ষণিক পাওয়া যায়নি। হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ওসি আব্দুর কাদির জিলানী জানান, বগুড়া থেকে ঢাকাগামী আরকে পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস ভুইয়াগাঁতী এলাকায় পৌঁছলে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে বাসের দুই যাত্রী ঘটনাস্থলেই মারা যান।আহত ২০ যাত্রীকে উদ্ধার করে রায়গঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রসহ বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে ভর্তি করেছে।

গোপালগঞ্জ: গোপালগ‌ঞ্জ সদর উপ‌জেলার ঘোনাড়ায় বাস নিয়ন্ত্রণ হা‌রি‌য়ে একটি রিকশাভ্যানকে ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই দু’জন নিহত ও অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। শ‌নিবার সকাল সাড়ে সাতটার দি‌কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। গোপালগঞ্জ সদর থানার ওসি মো. ম‌নিরুল ইসলাম জানান, টুঙ্গিপাড়া থে‌কে ছে‌ড়ে আসা গোপালগঞ্জগামী এক‌টি লোকাল বাস ঘোনাপাড়া মো‌ড়ে নিয়ন্ত্রণ হা‌রি‌য়ে রাস্তার পা‌শে দাঁ‌ড়ি‌য়ে থাকা একটি রিকশাভ্যানকে ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই দু’জনের মৃত্যু হয়। আহত ১০ জনকে উদ্ধার করে গোপালগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভ‌র্তি করা হ‌য়ে‌ছে বলেও জানান তিনি।

নাটোর: নাটোর শহরে বালুবোঝাই ট্রাকের ধাক্কায় দুই অটোরিকশা আরোহীর মৃত্যু হয়েছে। শনিবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে নাটোর কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে।নিহতরা হলেন নলডাঙ্গা উপজেলার সোনাপাতিল গ্রামের সুদিষ্ণু দেবনাথ (৫৫) ও তার প্রতিবেশী কানাইচন্দ্র (৩০)। সুদিষ্ণুর স্ত্রী ও মেয়েও এ দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন। তাদের রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।সদর থানার ওসি মশিউর রহমান শিকদার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ওই চারজন সকালে অটোরিকশায় করে নাটোরের মিশন হাসপাতালে যাচ্ছিলেন চিকিৎসার জন্য। রাজশাহী থেকে নাটোরগামী একটি বালুবোঝাই ট্রাক পেছন থেকে ওই অটোরিকশাকে ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই দুজনের মৃত্যু হয়।নাটোর কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন আকবর হোসেন জানান, তার চোখের সামনেই এ দুর্ঘটনা ঘটে।তিনি বলেন, “দ্রুতগামী ট্রাকটা মুহূর্তের মধ্যে অটোরিকশাটাকে দুমড়ে-মুচড়ে দিয়ে চলে গেল।” ওসি মশিউর রহমান শিকদার বলেন, দুর্ঘটনা ঘটিয়ে ট্রাক চালক দ্রুত তার গাড়ি নিয়ে ওই এলাকা থেকে চলে যায়। পুলিশ ট্রাকটি শনাক্ত করার চেষ্টা করছে।

ঢাকা: সাভারের ঢাকা-আরিচা সড়কের আমিনবাজারের তুরাগ এলাকায় বাসের সঙ্গে ট্রাকের সংঘর্ষে চারজন নিহত হয়েছেন। এসময় আহত হয়েছেন আরো অন্তত ২০ জন।শনিবার সকাল ৭টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতদের নাম-পরিচয় এখনো জানা যায়নি। আমিনবাজার পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসআই) জামাল উদ্দিন জানান, দ্রুতি পরিব্হনের বাসটি রংপুর থেকে ঢাকার দিকে যাচ্ছিল। আমিনবাজারের তুরাগ এলাকায় ইউটার্ন নেওয়ার সময় বাসটিকে ট্রাকটি পেছন থেকে সজোরে ধাক্কা দেয়। এতে বাসটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়। স্থানীয়রা ঘটনাস্থল থেকে ২৩ জনকে উদ্ধার করে রাজধানীর শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করে। সেখানকার চিকিৎসক তিনজনকে মৃত ঘোষণা করেন। তাঁদের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।এ ঘটনায় সাভার মডেল থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান এসআই।

চুয়াডাঙ্গা: চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার আলোকদিয়া বাজারে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় এক ধানকল মালিক নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন দুই মোটরসাইকেল আরোহী। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল শুক্রবার রাত ১০টার দিকে। নিহত ধানকল মালিক ওবায়দুর রহমান (৪৫) আলোকদিয়া চকপাড়ার মরহুম ইরফান আলীর ছেলে। আহত দুই মোটরসাইকেল আরোহী চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার লক্ষ্মীপুর গ্রামের আব্দুল মালেকের ছেলে মহসিন (৩৫) ও একই উপজেলার ছুটিপুর গ্রামের হাফিজুল বিশ্বাসের ছেলে মাসুদ রানা (৩৬)। তাঁরা খালাতো ভাই। প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে চুয়াডাঙ্গা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপপরিচালক আব্দুস সালাম বলেন, ধানকল মালিক ওবায়দুর চুয়াডাঙ্গা-মেহেরপুর সড়ক ধরে হেঁটে আলোকদিয়া বিশ্বাস তেল পাম্পের দিকে যাচ্ছিলেন। এসময় চুয়াডাঙ্গা থেকে মেহেরপুরগামী একটি মোটরসাইকেল ওবায়দুরকে খুব জোরে ধাক্কা দেয়। এতে পাকা রাস্তার ওপর পড়ে গিয়ে তাঁর মাথা থেঁতলে যায়, বাম পা ভেঙে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান। আহতদের উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক জাকির হোসেন বলেন, আহতদের অবস্থা ভালো না হওয়ায় তাদের চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। চুয়াডাঙ্গা থানার ওসি দেলোয়ার হোসেন বলেন, এ দুর্ঘটনার বিষয়ে মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করে থানায় নেওয়া হয়েছে।

ফরিদপুর: ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার সদরদী এলাকায় চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেললে তুহিন পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস সড়কের পাশের খাদে পড়ে যায়। এতে দুইজন নিহত ও ১৫ জন যাত্রী আহত হয়েছে। খবর পেয়ে ফরিদপুর ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধার কাজ চালায়। শনিবার সকালে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ফরিদপুর ফায়ার সার্ভিসের জ্যেষ্ঠ স্টেশন অফিসার মো. সাইফুজ্জামান জানান, বরিশাল থেকে রাজশাহী গামী তুহিন পরিবহনের ওই বাসটি সকাল সোয়া নয়টার দিকে সদরদী এলাকায় এলে চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে। এতে বাসটি সড়কের পাশের খাদে পড়ে যায়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে আহতদের ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে পাঠালে সেখানে জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক দুই জনকে মৃত ঘোষণা করেন। ভাঙ্গা হাইওয়ে থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নিত্যরঞ্জন মল্লিক জানান, আহতদের ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে নিহত দুইজনের পরিচয় জানাতে পারেননি তিনি।

লক্ষ্মীপুর: লক্ষ্মীপুরে ট্রাক ও সিএনজি চালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে মিলন উদ্দিন (৫৫) ও শাকেরা বেগম (৭০) নামে দুইজন নিহত হয়েছেন। শনিবার (২৩ জুন) সকালে রামগতি উপজেলার আলেকজান্ডার-সোনাপুর সড়কে এই ঘটনা ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, ঘটনাস্থলে যাত্রীবাহী সিএনজি পৌঁছলে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি দ্রুতগামী ট্রাকের সঙ্গে সিএনজিটির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে নারীসহ দুইজন সিএনজি যাত্রী ঘটনাস্থলেই মারা যায়। রামগতি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনিসুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। -ডেস্ক