(দিনাজপুর২৪.কম) প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজিব ওয়াজেদ জয়ের সঙ্গে ইসরায়েলের লিকুদ পার্টির নেতা মেন্দি এন সাফাদির বৈঠকের খবর বিবিসিকে প্রমাণ করতে হবে বলে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী।

মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর ফার্মগেট খামারবাড়ি কৃষিবিদ ইন্সটিটিউশনে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে কৃষক লীগ ঢাকা মহানগর উত্তর আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেন।

মতিয়া চৌধুরী বলেন, ‘জয় তো চ্যালেঞ্জ দিছেন, বৈঠকটি কবে-কোথায়-কখন হইছে তা প্রমাণ করতে। তিনি বলেছেন, আমি এত বছর কোনোখানে যাই নাই।’

তিনি বলেন, ‘আমরা কিন্তু বিবিসিকে অনেক পছন্দ করি। মুক্তিযুদ্ধের সময় আর কিছু না হোক রেডিওটা লাগাইয়া আমরা বিবিসি শুনতাম। সেই বিবিসি একেবারে কোনো রকম যাচাই-বাছাই ছাড়া এই ধরনের একটা খবর পরিবেশন করছে। এইটা কি বিবিসিরে মানায়? আজকে আমরা চ্যালেঞ্জ দিছি। এই চ্যালেঞ্জ তাদের প্রমাণ করতে হবে।’

‘আমি বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগ করি এটা বলতে গর্ভবোধ করি’  ড. কামাল হোসেনের এমন মন্তব্যের সমালোচনা করে কৃষিমন্ত্রী বলেন, ‘উনি ভুলে গেছেন যে, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ও সভাপতিত্বে আওয়ামী লীগ তাকে প্রেসিডেশিয়াল ক্যান্ডিডেট করেছিল। সে দিন শেখ হাসিনাকে উনি সভাপতি হিসেবেই মেনে নিয়েছিলেন। কামাল হোসেনকে ৭৫ এর ১৫ আগস্টের পর মোশতাক সরকারকে স্বীকৃতি না দিতে বিশ্ববাসীর প্রতি আহ্বান জানাতে বলেছিলেন শেখ হাসিনা। তখন ড. কামাল হোসেন বললেন, এটা আমার পক্ষে সম্ভব না।’

মতিয়া চৌধুরী আরো বলেন, ‘এই সত্য আমি কয়েকবার বলেছি, এই পর্যন্ত কামাল হোসেন কোন প্রতিবাদ করতে পারেন নাই।’

তিনি বলেন, শেখ হাসিনা থাকলে দেশ এগিয়ে যায়। আর অন্যরা আসলে দেশে একটা ছ্যারাবেরা লাগে। আমরা সবাই জানি সারা পৃথিবীতে একটা অস্থিরতা আছে। এই অস্থিরতা এতদূর যে হোয়াইট হাউজের পাশে গুলি হয়ে যায়। কই, তাতে কি আমেরিকা ডুইবা গেছে? বাংলাদেশে কিছু হইলে একেক জনের খুব আহা-উহু করার কোন দরকার নাই। আমাদের চ্যালেঞ্জ আমরা নিছি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে।’

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, ‘আপনি ইলেকশন করেন নাই। আপনার ছেলে মারা যাওয়ার পর শেখ হাসিনা আপনার গুলশানের কার্যালয়ে গেল। পৃথিবীতে কোনো দেশে কোনো প্রধানমন্ত্রী ছোট গেট দিয়ে ঢুকেন না। উনি (শেখ হাসিনা) প্রটোকলের দিকে তাকান নাই। আপনি যখন বড় গেট বন্ধ রাখছেন উনি ছোট গেট দিয়ে ঢোকার চেষ্টা করছেন।’

ইসরায়েলের সঙ্গে হাত মিলিয়ে শেখ হাসিনা সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে বিএনপির মাথার স্ক্রু শুধু ঢিলাই হয়নি, দু’একটা পড়ে গেছে বলেও মন্তব্য করেন কৃষিমন্ত্রী।

ঢাকা মহানগর উত্তর শাখার সভাপতি মাকসুদুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, দলটির কৃষিবিষয়ক সম্পাদক ড. আব্দুর রাজ্জাক, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক কর্নেল (অব.) ফারুক খান, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, কৃষক লীগ সভাপতি মোতাহার হোসেন মোল্লা, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খন্দকার শামসুল হক রেজা প্রমুখ।  -ডেস্ক