(দিনাজপুর২৪.কম) আজ নিজের চলচ্চিত্র ক্যারিয়ারের ২৫ বছর পূর্ণ করছেন চিত্রনায়িকা মৌসুমী। ১৯৯৩ সালের ২৫ মার্চ বৃহস্পতিবার মুক্তি পেয়েছিল তার প্রথম ছবি ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’। এই ছবিতে তার নায়ক ছিলেন প্রয়াত সালমান শাহ। এটি পরিচালনা করেন সোহানুর রহমান সোহান। ‘আনন্দমেলা সিনেমা লিমিটেড’র ব্যানারে ছবিটি প্রযোজনা করেছিলেন সিরাজুল ইসলাম ও সুকুমার রঞ্জন ঘোষ। এই ছবি মুক্তির পর রাতারাতিই তারকা বনে যান মৌসুমী ও সালমান শাহ। সালমান আজ নেই, কিন্তু মৌসুমী আছেন। সাফল্যকে সঙ্গী করে ভালোভাবেই কাজ করছেন তিনি। অভিনয়ের বাইরে পরিচালনা করেও সুনাম কুড়িয়েছেন মৌসুমী। পেয়েছেন তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। মৌসুমী বলেন, ‘দেখতে দেখতে এতোটা বছর পেরিয়ে গেলো ভাবাই যায় না। আজ ভীষণভাবে মনে পড়ছে আব্বুর কথা। মনে পড়ছে আমার প্রথম চলচ্চিত্রের হিরো সালমান এবং মান্না ভাইয়ের কথা। কৃতজ্ঞতা ফটোগ্রাফার চঞ্চল মাহমুদ ও রফিকুর রহমান রেকু ভাইয়ের প্রতি। আমি আরো কৃতজ্ঞ ক্যাসেন্ড্রা লিমিটেডের প্রধান শাকিব লোহানী, পরিচালক সোহান ভাই, যাদের চলচ্চিত্রে অভিনয় করে জাতীয় পুরস্কার পেয়েছি প্রয়াত শ্রদ্ধেয় চাষী ভাই, নারগিস আপা এবং রাজের প্রতি। আমার কৃতজ্ঞতা পাঠকপ্রিয় ম্যাগাজিন আনন্দ বিচিত্রা, সিনেমা, প্রিয়জন, চিত্রালী এবং সাংবাদিক বড় ভাই প্রয়াত শ্রদ্ধেয় আওলাদ ভাইয়ের প্রতি। আমার মা, দুই বোন ইরিন, স্নিগ্ধা আমার পাশে থেকেছে সবসময়। আর যে মানুষটির ভালোবাসায় এবং সহযোগিতায় আমি পরিপূর্ণ, তিনি আমার সকল সুখ-দুঃখের সাথী আমার স্বামী ওমর সানী। আমার দুই সন্তান ফারদিন এবং ফাইজাহর জন্য দোয়া করবেন সবাই।’ এদিকে চলচ্চিত্রে অভিনয়ের রজতজয়ন্তীতে আজ ‘মৌসুমী ফ্যান ক্লাব’ মৌসুমী ও সালমান শাহকে নিয়ে বিশেষ এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন মৌসুমী, শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করা হবে সালমান শাহকে। পাশাপাশি অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন চিত্রনায়ক ওমরসানী। তিনি বলেন, ‘রজতজয়ন্তীতে মৌসুমীকে আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা। পরম ভালোবাসা নিয়ে স্মরণ করছি সালমান শাহকে। আল্লাহ যেন তাকে বেহেশত নসীব করেন।’ -ডেস্ক