(দিনাজপুর২৪.কম) সাকিব আল হাসানের সঙ্গে ভারতীয় ক্রিকেট জুয়াড়ি দীপক আগারওয়ালের টেলিফোনে অসংখ্যবার কথোপকথন হয়। হোয়াটস অ্যাপে এই কথোপকথনের পুরোটাই জুড়ে ছিল ম্যাচ পাতানোর প্রসঙ্গ।

বিভিন্ন ম্যাচে দলে অমুক খেলোয়াড় খেলবে কিনা-এমন সব প্রশ্ন এবং উত্তর। গত বছরের ২৩ জানুয়ারি ঢাকায় বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা-জিম্বাবুয়ে তিনজাতি সিরিজ চলাকালে দীপক হোয়াটসঅ্যাপ ম্যাসেজে সাকিবের কাছে এই ভাষায় জানতে চান-‘ব্রো, এই সিরিজে কি কিছু হবে?’

সাকিব পরে অবশ্য আইসিসির কাছে স্বীকার করেন আগারওয়াল তার কাছে এই সিরিজের বিভিন্ন দল সম্পর্কে তার কাছে তথ্যাদি জানতে চেয়েছিলেন। সাকিব এমন ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব পেয়েও সেটা আকসুকে জানাননি।

শুধু তিনজাতি সিরিজই নয়, গত বছর আইপিএল চলাকালে দীপক আগারওয়াল এক ম্যাসেজে সাকিবের কাছে তার ব্যাংক একাউন্ট সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান।

সাকিব সেই প্রশ্নের উত্তরে দীপককে বলেন, ‘আমি তোমার সঙ্গে আগে সাক্ষাত করতে চাই।’

২০১৮ সালের ২৬ এপ্রিল সাকিবের মোবাইলে এমনসব ম্যাসেজ পায় আকসু। আরো অনেক মুছে ফেলা ম্যাসেজের অস্তিত্বও মিলে সেখানে। সাকিব স্বীকার করেন এসব ম্যাসেজ তাকে পাঠিয়েছিলেন দীপক আগারওয়াল।

সাকিব আরও স্বীকার করেন দীপক আগারওয়ালের সঙ্গে কথাবার্তা বলে তিনি বুঝতে পারেন এই লোক ক্রিকেট জুয়াড়ি। কিন্তু তারপরও তিনি এই ক্রিকেট জুয়াড়ির প্রস্তাবের তথ্য আকসুকে দেননি।

আর সেটাই তার বড় ভুল। সেই বড় ভুলে এখন বড় শাস্তি ভোগ করতে হচ্ছে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে। দুই বছরের জন্য সব ধরনের ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ হলেন তিনি। -ডেস্ক