-ফাইল ছবি

(দিনাজপুর২৪.কম) বিএনপির কারাবন্দি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া যে কোন সময় প্যারালাইজড হয়ে যেতে পারেন বলে আশঙ্কা করছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে এমন আশঙ্কার কথা জানান তিনি। মির্জা আলমগীর বলেন, গতকাল ঈদের দিন আমরা আমাদের নেত্রীর সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলাম। কিন্তু সরকার সম্পূর্ণ প্রতিহিংসা পরায়ণ হয়ে আমাদের জেলগেটে আটকে দেয়। খালেদা জিয়ার পরিবারের সদস্য ও স্বজনেরা দেখা করেছেন। তাঁরা বলেছেন, খালেদা জিয়ার শরীরের অবস্থা আগের চেয়ে অনেক নাজুক।

তিনি নিজে হাঁটতে পারছেন না। আগে দেখা করতে গেলে তিনি নিজে হেঁটে এসে দেখা করতে পারতেন। কিন্তু এখন গুরুত্বর অসুস্থ তিনি। অপর এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপি মহাসচিব বলেছেন, খালেদা জিয়া নিঃসঙ্গ অবস্থায় রয়েছেন। ইঁদুর, বিড়াল আর তেলাপোকার সঙ্গে উনাকে বসবাস করতে হচ্ছে। এতে করে তিনি আগের চেয়ে অনেক বেশি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তাঁর কোমর ও প্রতিস্থাপন করা হাঁটুর ব্যথা সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়েছে। চিকিৎসকরাও আশঙ্কা করছেন, দ্রুত সুচিকিৎসা দেয়া না হলে যে কোন সময় তার প্যারালাইজড হয়ে যেতে পারে। তাই আমরা আজকের (রোববার) মধ্যেই উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ইউনাইটেড হাসপাতালে নেয়ার দাবি জানাচ্ছি। খালেদা জিয়াকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসা দেয়ার ব্যাপারে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের প্রস্তাবের প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব বলেন, আমরা আগেই বলেছি, খালেদা জিয়া সিএমএইচে যাবেন না। তিনি বলেন, খালেদা জিয়া জনগণের সম্পদ, জনগণের নেত্রী। আমাদের কাছে তার জীবনের মূল্য অনেক বেশি। ইউনাইটেড হাসাপাতালের প্রতি খালেদা জিয়ার আস্থা রয়েছে। অন্য জায়গায় তাঁর আস্থা নেই। তিনি অন্য কোথাও চিকিৎসা নেবেন না। উনাকে রাজনৈতিক কারণে বন্দি করে রাখা হয়েছে। কিন্তু উনার সঙ্গে রাজনৈতিকসুলভ আচরণ করা হচ্ছে না। খালেদা জিয়া তিনবারের প্রধানমন্ত্রী। তিনি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কোনোদিন পরাজিত হননি। কিন্তু তাঁর সঙ্গে অমানবিক আচরণ করছে সরকার। এ সময় এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা আলমগীর বলেন, সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন মামলায় রাজনৈতিক হীনউদ্দেশ্যে সরকার আমাদের নেত্রীকে কারাগারের নির্জন প্রকোষ্ঠে বন্দি করে রেখেছে। আন্দোলন-সংগ্রামের মাধ্যমেই খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে আনা হবে। অন্য এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপি মহাসচিব বলেন, আসন্ন জাতীয় নির্বাচনের আগে সংসদ ভেঙে দিয়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবি জানাই। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হলে বিএনপি বিপুলভাবে বিজয়ী হয়ে আগামীতে সরকার গঠন করবে ইনশাআল্লাহ।  -ডেস্ক