(দিনাজপুর২৪.কম) ক্রিকেট ম্যাচে শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত যে হাল ছাড়তে হয় না সেটা আবার দেখালেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। ভারতের অধিনায়ক ধোনি ‘ক্যাপ্টেন কুল’ নামে পরিচিত। ক্যারিয়ারের অনেকবার তিনি মাথা ঠা-া রেখে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করে দেখিয়েছেন। বুধবার বাংলাদেশের বিপক্ষেও তেমনটাই দেখালেন। নানা নাটকীয়তা শেষে শেষ বলে বাংলাদেশের জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল ২ রানের। ১ রান হলেই ম্যাচটি টাই হতো। কিন্তু ধোনি পণ করেছিলেন-শেষ বলে বাংলাদেশকে এক রানও নিতে দিবেন না। তা নিয়ে বোলার হার্দিক পান্ডিয়ার সঙ্গে বেশ খানিকটা সময় আলোচনা করেন। তখন পান্ডিয়াকে ধোনি কী বলেছিলেন সেটাও জানা গেছে। আর ওই সুক্ষ পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করার জন্য উইকেটের পেছনে ছিলেন অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি। একটা বিষয় হয়তো অনেকে লক্ষ্য করেছেন। এদিন শেষ বলের সময় উইকেটের পেছনে দাঁড়ানো ধোনির ডান হাতে গ্লাভস পরা ছিল না। গ্লাভসের নিচে পাতলা মোজা মতো যেটা থাকে সেটাই ছিল তার হাতে। তবে বাঁ হাতে গ্লাভস পরা ছিল। ধোনির এমন গ্লাভস খোলার রহস্য কী? আসলে ধোনি শেষ বলে পান্ডিয়াকে বলেছিলেন, কোনো মতেই বলটি ইয়ার্কার দিতে যাবে না। শেষের দিকের ব্যাটসম্যান ইয়ার্কার খেলতে পারবে না- এটা ভেবে ইয়ার্কার দিবে না। কারণ, এতে ব্যাটে না লাগলেও পায়ে বা অন্য কোথাও লেগে বল দূরে চলে যেতে পারে। এক্ষেত্রে বাংলাদেশের দুই ব্যাটসম্যানরা ১ এমন কি ২ রানও নিয়ে ফেলতে পারে। পান্ডিয়াকে বলে গতি বেশি দিতেও নিষেধ করেন। ধোনির পরামর্শ ছিল। বলটি যেন সরাসরি তার হাতে এসে জমা পড়ে। এতে দুই ব্যাটসম্যান রানের জন্য দৌড়ালেও যেন তিনি রানআউট করতে পারেন। আর এ জন্য উইকেটের পেছনে ধোনি এক হাতের গ্লাভস খুলে প্রস্তুত ছিলেন। যাতে বল হাতে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সেটা নিয়েই দৌড়ে গিয়ে স্টাম্প ভাঙতে পারেন। গ্লাভস হাতে থাকলে অনেক সময় অসুবিধা হয়। পা-ুলিপিতে লেখা চিত্রনাট্যের মতোই কাজ করেন ধোনি। যেমন চেয়েছিলেন ঠিক তেমনই বল করেন পান্ডিয়া। পরিকল্পনা মতো শুভাগত হোম ব্যাটে বল ছোঁয়াতে না পারায় বল জমা পড়ে ধোনির হাতে। দুই ব্যাটসম্যান রানের জন্য দৌড় শুরু করেন। ধোনি বল নিয়ে সামনের দিকে দৌড়ে গিয়ে স্টাম্প ভেঙে দেন। মুস্তাফিজুর রহমান রানআউট। ভারতের ১ রানের রুদ্ধশ্বাস জয় এভাবেই নিশ্চত হয়। এক হাতের গ্লাভস খুলে রেখে যে পরিকল্পনা করেছিলেন তা ঠা-া মাথায় কার্যকর করেন ধোনি।-ডেস্ক