-সংগ্রহীত

(দিনাজপুর২৪.কম) বিপিএলের আয়োজকরা বারবারই আয়োজনে কোথাও না কোথাও ব্যর্থতার পরিচয় দিয়ে থাকেন। বিপিএল আর বিতর্ক যেন এক সুতোতেই গাঁথা!

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে এবারের বিপিএলের নামকরণ করা হয়েছে ‘বঙ্গবন্ধু বিপিএল’। বিসিবির নিজ তত্বাবধানে আয়োজিত হচ্ছে এবারের টুর্নামেন্ট। কিন্তু এতে অগোছালো ভাব যেন আরও বেশি উঠছে!

এবারের বিপিএল নিয়ে ক্রিকেটারদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ অনেক আগ থেকেই। অনেকেই বিভিন্ন দলের সঙ্গে ব্যক্তিগত চুক্তিও সেরে ফেলেছিলেন। কিন্তু বিসিবি হঠাৎ করেই সব চুক্তি বাতিল ঘোষণা করে নিজেদের তত্বাবধানে বিপিএল আয়োজনের ঘোষণা দেয়। এতে বড় ধরনের অথনৈতিক ক্ষতির মুখোমুখি হতে হয় ক্রিকেটারদের।

এদিকে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান নিয়েও ছিলো অসন্তোষ। জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি ক্রিকেটারদের এমনকি অধিনায়কদেরও। এ নিয়ে ক্রিকেটারদের মধ্যে অসন্তোষ রয়েছে।

আজ অফিসিয়াল ফটোসেশনও ছিল অগোছালো। বিসিবির পক্ষ থেকে জানানো হয়, আজ বিকেল পাঁচটা থেকে সাড়ে পাঁচটার মধ্যে অধিনায়কদের ফটোসেশন অনুষ্ঠিত হবে। কিন্তু নির্ধারিত সময়ের এক ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও কোন খবর নেই!

পরে খুলনার অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম, চিটাগাংয়ের মাহমুদুল্লাহ, সিলেটের মোসাদ্দেক হোসেন, কুমিল্লার দাসুন শানাকা ও ঢাকার মুমিনুল হক দাঁড়িয়ে গেলেন ফটোসেশনে।

এতেই বিস্ময়ের জন্ম। ঢাকার অধিনায়ক তো মুমিনুল নয়, মাশরাফি বিন মর্তুজা। তাহলে মুমিনুল কেন ফটোসেশনে? রংপুর রেঞ্জার্সের অধিনায়ক মোহাম্মদ নবিই বা কোথায়? অনুষ্ঠানিক ফটোসেশনের কথা বলা হলেও ট্রফিও রাখা হয়নি সেখানে।

পরে জানা গেল, মাশরাফি বিন মর্তুজা অনুশীলন শেষ করেই বেরিয়ে গেছেন। তার বদলে ঢাকার প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুমিনুল। আর ট্রাফিক জ্যামের কারণে আসতে পারেননি নবি! কিন্তু ট্রফি কেন রাখা হয়নি তার উত্তর পাওয়া গেল না কোথাও। -ডেস্ক