(দিনাজপুর২৪.কম) বসুন্ধরা কিংস যেখানে শুরু থেকে সফল, সেখানে সাইফ স্পোর্টিং এখনো শীর্ষ ছোঁয়ার রাস্তা খুঁজে পায়নি। কিংস যেখানে টানা তিন আসরে ফাইনাল খেলছে, সেখানে চারবারে সাইফ প্রথম। তবে ফাইনালের মঞ্চে নবীন সাইফ এদিন লড়াইটা করেছে সমানতালে। কখনো সেমিফাইনালে না ওঠা দলটি ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নদের সঙ্গে ফাইনালে বেশি সুযোগ তৈরি করে। কিন্তু তাদের হতাশ করেছে ক্রসবার। কিংসের গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকু দেয়াল হয়ে দাঁড়ান । কেনেথ, ফাহিম, রহমত মিয়াদের প্রচেষ্টা নস্যাৎ করে বসুন্ধরার ফেডারেশন কাপ জয়ে ভূমিকা রেখেছেন জিকু। তবে গতকাল বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ফাইনালের মূল নায়ক বসুন্ধরা কিংসের আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড রাউল অস্কার বেসেরা।

তার একমাত্র গোলে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে বন্ধ থাকা ফুটবল শুরুর পর প্রথম প্রতিযোগিতায় শিরোপার স্বাদ নিলো কোচ অস্কার ব্রুজনের দল।
সাইফ এই টুর্নামেন্টের শুরু থেকে খেলছে গতিময় ফুটবল। প্রতিপক্ষের পা থেকে বল কেড়ে দ্রুত আক্রমণে ওঠায় তাদের জুড়ি ছিল না টুর্নামেন্টে জুড়ে। নাইজেরীয় কেনেথ ইকেচুকুর পায়ে গোল এসেছে। সেমিফাইনালের পর বসুন্ধরা চেয়ে একদিন বেশি বিশ্রাম পাওয়া দলটি কাল খেলেছেও চমৎকার। ম্যাচের শেষ ত্রিশ মিনিটে গোল করার মতো অন্তত তিনটি প্রচেষ্টা ছিল সাইফ স্পোর্টিংয়ের। সবগুলো আক্রমণই ধুলিস্যাৎ করেন জিকু। পুরো ম্যাচে অন্তত পাঁচটি নিশ্চিত গোল বাঁচিয়েছেন ফাইনালে সেরা হওয়া এই গোলরক্ষক। ম্যাচের ৫২তম মিনিটে কাউন্টার অ্যাটাক থেকে গোল করেন রাউল অস্কার বেসেরা।

এবারের পুরস্কার
* চ্যাম্পিয়ন : বসুন্ধরা কিংস
* রানার্সআপ : সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব
* ফেয়ার প্লে ট্রফি : চট্টগ্রাম আবাহনী লিমিটেড
* ম্যান অব দ্য ফাইনাল : রাউল বেসেরা (বসুন্ধরা কিংস)
* সর্বোচ্চ গোলদাতা : ৫টি, কেনেথ ইকেচুকু (সাইফ), রাউল বেসেরা (বসুন্ধরা কিংস)
* টুর্নামেন্ট সেরা খেলোয়াড় : কেনেথ ইকেচুকু (সাইফ)

-ডেস্ক রিপোর্ট