ফজিবর রহমান বাবু  (দিনাজপুর২৪.কম)  জাতীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল বলেছেন, বর্তমান সরকার ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি আত্ম-মর্যাদাশীল উন্নত রাষ্ট্রের কাতারে নিয়ে যেতে চায়। সেই ক্ষেত্রে আমরা মনে করি নবীন ও তরুন প্রজন্মের শিক্ষার কোন বিকল্প নাই। আগামীতে সুখি-সমৃদ্ধিশীল বাংলাদেশ বিনির্মানের কারিগর হচ্ছে আজকের প্রজন্ম। আজকের বিশ্ব হচ্ছে প্রতিযোগিতামূলক বিশ্ব।
১৫ মার্চ বুধবার সন্ধায় কাহারোল উপজেলার ১নং ডাবোর ইউনিয়নের জয়নন্দ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এর বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, অভিভাবক সমাবেশ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথা গুলো বলেন।
তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে আরো বলেন, শুধু ভালো লেখাপড়া করে জিপিএ-৫ অর্জন করলেই চলবে না। তার পাশাপাশি প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে ভাল মনের মানুষ হিসেবে নিজেকে সমাজে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। আর মেধা ও মননশীলতা বিকাশে মানুষের জীবনে একটি উল্লেখযোগ্য অধ্যায় হচ্ছে খেলাধুলা। জীবনকে আরো সৌন্দর্য্য-মন্ডিত করে গড়ে তুলতে খেলাধুলার কোন বিকল্প নেই। তাই সকল শিক্ষার্থীকে ভাল লেখাপড়ার পাশাপাশি বিভিন্ন ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় বেশি বেশি অংশগ্রহন করা উচিত।
শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে প্রধান অতিথি বলেন, শিক্ষকদের সুন্দর শিক্ষাই পারে শিক্ষার্থীদের সুন্দর মনের মানুষ হিসেবে গড়ে উঠতে। আর স্কুলে শুধু শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়ালেই চলবে না, বরং শিক্ষার মান ভাল করতে হবে। যাতে প্রত্যেক শিক্ষার্থী ভাল শিক্ষা গ্রহণ করতে পারে।
১নং ডাবোর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও জয়নন্দ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এর সভাপতি সত্যজিৎ রায় এর সভাপতিত্বে বিশেষে অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান মো. মামুনুর রশিদ চৌধুরী, কাহারোল থানার মো. মনসুর আলী সরকার , উপজেলা পূজা উদ্যাপন কমিটির সাধারন সম্পাদক রাজেন্দ্র দেব নাথ, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সঞ্জয় কুমার মিত্র ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. কামাল হোসেন।
অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন জয়নন্দ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এর প্রধান শিক্ষক মো. এমদাদুল হক।
পরে বিভিন্ন ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহনকারী বিজয়ী শিক্ষার্থীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন প্রধান অতিথি এমপি গোপালসহ অন্যান্য অতিথিবৃন্দ।
এরপর স্কুলের শিক্ষার্থীদের আয়োজনে এক মনোঞ্জ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠান শেষ হয়।
এর আগে কাহারোল হাটের কাঁচা বাজারে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থ ৪০টি দোকানগুলোর খোজ নিতে ছুটে যান জাতীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল। সেই সাথে দ্রুত সময়ের মধ্যে তাদের পূর্নাঙ্গ পুনর্বাসনের জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও আশ্বাস প্রদান করেন তিনি।