(দিনাজপুর২৪.কম) রাস্তায় ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলাচল এবং লাইসেন্স ছাড়া চালকদের গাড়ি চালানো বন্ধসহ ৯ দফার দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকে ন্যায্য উল্লেখ করে ‘পূর্ণ সমর্থন’ জানিয়েছে বিএনপি। দলের পক্ষ থেকে করা সংবাদ সম্মেলনে সরকারকে ব্যর্থতা স্বীকার করে অবিলম্বে পদত্যাগ করার দাবিও জানিয়েছেন মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বৃহস্পতিবার (০২ আগস্ট) ঢাকার নয়াপল্টনে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অবস্থান ও দাবি তুলে ধরেন বিএনপি নেতা।সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, গয়েশ্বর চন্দ্র রায় প্রমুখ।

ফখরুল বলেন, ‘ছাত্ররা ন্যায্য দাবি করছে। এই দাবি সবার। এই সরকার সকল অনিয়ম, অরাজকতার জন্য দায়ী। দেশে পাশবিক নির্যাতন চলছে। এখানে সরকার বলতে কিছু নেই।’

গত রোববার বিমানবন্দর সড়কে বাস চাপায় দুই কলেজশিক্ষার্থীর মৃত্যুর পরদিন থেকে নিরাপদ সড়কের দাবিতে রাস্তা বন্ধ করে প্রতিবাদ জানাচ্ছে ছাত্ররা। টানা তৃতীয় দিনের কর্মসূচির পর বুধবার বিকালে সব দাবি মেনে নিয়ে ছাত্রদের উঠে যেতে আহ্বান জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। কিন্তু পরদিন বৃহস্পতিবার আগের দিনের মতোই ব্যাপক আকারে ছাত্ররা রাজপথে নেমেছে।

ফখরুল বলেন, ‘পুরোপুরি ব্যর্থ এই অবৈধ সরকার। শুধু নৌমন্ত্রী নয়, সব ঘটনার জন্য অবিলম্বে সরকারকে দায়ী করছি এবং এই অবৈধ সরকারের পদত্যাগ দাবি করছি।’ ‘দেশের সমস্ত জায়গায় অরাজকতা চলছে৷ সরকারের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই৷ প্রতারক সরকার সমস্ত প্রতিষ্ঠান শেষ করে দিয়েছে। নির্বাচন কমিশন একেবারেই শেষ। তারা যেভাবে পারে বিরোধী মতকে দমন করছে। এ বিষয়গুলো জনগণের জানা আছে।’

আগের দিন বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্যেরও নিন্দা জানান ফখরুল।

বঙ্গবন্ধু হত্যায় জিয়াউর রহমানের সম্পৃক্ততার প্রমাণ তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, ‘দুঃখ, তার বিচারটা করতে পারলাম না। তার আগেই সে মারা গেল।’

ফখরুল বলেন, ‘অবৈধ সরকারের প্রধানমন্ত্রী চিরাচরিত নিয়ম অনুযায়ী আবারও জিয়াউর রহমানের উপর আক্রমণ করেছেন। জিয়াউর রহমান নিয়ে কারো কোনে অভিযোগ নেই। কোথাও কেউ বলেনি, কোনো সাক্ষীতে কেউ তাকে দায়ী করেননি, প্রমাণও নেই। অথচ জিয়াউর রহমানকে দায়ী করছেন প্রধানমন্ত্রী।’
‘মূলত বর্তমান পরিস্থিতির মোড় অন্যদিকে ঘুরিয়ে দেয়ার জন্য তিনি এমন বক্তব্য রাখলেন’-বলেন বিএনপি মহাসচিব।

ফখরুল বলেন, ‘তাহলে আমরাও তো দায়ী করতে পারি যে, আপনি বিদেশ থেকে ফিরে আসার ১৭ দিনের মধ্যে জিয়াউর রহমান নিহত হন। কিন্তু এধরনের কথা আমরা সমীচীন মনে করি না। এগুলো করলে অনেক সময় কেঁচো খুঁড়তে গিয়ে সাপ বেরিয়ে আসবে।’

সংবাদ সম্মেলনে স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ভবিষ্যতে যারা দেশ পরিচালনা করবে আমাদের সেই সন্তানেরা গতকাল (বুধবার) যা করেছে, যেভাবে গাড়ি চালকদের লাইসেন্স দেখেছে তাতে আমরা সমর্থন জানাই। আমরা যেটা পারিনি তারা সেটা করে দেখিয়েছে। -ডেস্ক