(দিনাজপুর২৪.কম) বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর উন্নয়নের কাজ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে যখন এগিয়ে যাচ্ছে ঠিক তখনই সৎ ও দুর্নীতিমুক্ত সমাজসেবী ব্যক্তিত্ব মোহাম্মদ আলী চৌধুরী ফুলবাড়ী এলাকার অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করতে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে তার অক্লান্ত পরিশ্রমে, প্রচেষ্টায় ও দৌড় ঝাপের মধ্য দিয়ে বেশ কিছু প্রকল্পের কাজ এগিয়ে নিয়ে গেছেন এবং যাচ্ছেন। জানা যায় ফুলবাড়ী উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের ২টি ওয়ার্ডের সাথে সংযুক্ত রাস্তাটি পাকা না হওয়ায় তিনি রাস্তাটি পাকা করণের জন্য অনেক চেষ্টা করে বাস্তবায়ন করেছেন। বর্তমান আমডুংগি হাটের সাথে সংযুক্ত পাকা করণ কাজের এলজিইডি কর্তৃক টেন্ডারের মাধ্যমে বাস্তবায়ন করেছেন। এ জন্য এই এলাকার মানুষের যাতায়াতের সুবিধা বাড়বে এবং ইউনিয়ন বাসীর গ্রামীণ উন্নয়নের অগ্রযাত্রা বাস্তবায়িত হবে। পাকিস্তান আমলের এই এলাকার বিশিষ্ট দানবীর ও সমাজ সেবক প্রাক্তন এম.এন.এ মরহুম নুরুল হুদা চৌধুরীর সন্তান মোহাম্মদ আলী চৌধুরী গত ৪ বছর আগে এলজিইডি ভবন- ঢাকায় এলাকার মানুষের গণস্বাক্ষর সংগ্রহ করে তাদের পক্ষ হয়ে আবেদন করেন। এরপর একই প্রকল্পের আওতায় রাজারামপুর হিন্দু পাড়া থেকে আমডুঙ্গী হাট পর্যন্ত ৩ কিলোমিটার রাস্তার নির্মাণ কাজ ২০১৪ সালে শেষ হয়েছে। অপর দিকে সেই সূত্র ধরে আমডুঙ্গী হাট থেকে কালির হাট, চোকার হাট, পাঠকপাড়া হাট, বারাই হাট, শিবনগর হাট, ফুলবাড়ী কোলষ্টোরেজ পর্যন্ত প্রায় ১৫ কিলোমিটার রাস্তা পূর্ণ পাকাকরণের জন্য এলজিইডি থেকে টেন্ডার আহব্বান করলে পিরোজপুর জেলার ঠিকাদার কাজটি পেয়েছেন মর্মে বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে। তিনি এই রাস্তাগুলির কাজ করবেন। এই রাস্তাগুলির নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হলে যোগাযোগের ক্ষেত্রে যেমন প্রসার ঘটবে। অন্যদিকে এ এলাকার মানুষের যাতায়াতের সুবিধা বাড়বে এবং গ্রামীণ অর্থনীতির উন্নয়ন ঘটবে। মোহাম্মদ আলী চৌধুরীর সহযোগীতা ও ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এই এলাকার মানুষের উন্নয়ন অব্যাহত রয়েছে।

মোহাম্মদ আলী চৌধুরী ইতিমধ্যে ১৯৭৮ সাল থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে নিজ গ্রাম রাজারামপুরে পিডিবি এর মাধ্যমে গ্রামের  জামে মসজিদ সহ প্রায় ২ শত বাড়ীতে বিদ্যুতায়ন সহ পরবর্তীতে পল্লী বিদ্যুত সমিতি-২ প্রতিষ্ঠাকরণ হয়েছে। জাফরপুর বৃহৎ ব্রীজ, ব্রীজের এপ্রোজ রোডের জন্য জমি অধিগ্রহণ ও অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ শেষে এপ্রোজ রোড নির্মাণ, আমডুঙ্গী  হাট গ্রোথ সেন্টার নির্মাণ, আমডুঙ্গী হাট রক্ষাকল্পে যমুনা শাখা নদীতে প্রতিরক্ষা বাঁধ ও আমডুঙ্গী হাট থেকে ময়দা মিল পর্যন্ত রাস্তা পাকাকরণ করেছেন। এছাড়াও ফুলবাড়ী ও খয়েরবাড়ী খেয়া ঘাটে দীর্ঘদিন পরিত্যাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকা ব্রীজের নির্মাণ কাজ সমাপ্ত করণ এবং পরিশেষে ২০১৩ সালে ফুলবাড়ী সরকারী কলেজে অনার্স কোর্স বাস্তবায়ন শেষে জনগণ মোহাম্মদ আলী চৌধুরীকে লৌহ মানব উপাধিতে ভূষিত করেছেন। মানুষের সন্দেহ দুর করনে জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখা স্মারক নং ০৭/২০০৩-২০০৪ অনুসন্ধান করলে উপরোক্ত বহু প্রকল্পের প্রমাণ পাওয়া যাবে।