(দিনাজপুর২৪.কম) বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া প্রতিবেশী দেশ মিয়ানমারের রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য ২০ লাখ ডলার বা ১৬ কোটি টাকার বেশি জরুরি অনুদান সহায়তা দিয়েছে জাপান সরকার। জাপান দূতাবাস, জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থা-ইউএনএইচসিআর, জাতিসংঘের শিশু তহবিল (ইউনিসেফ) ও আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার (আইওএম) এক যৌথ বিবৃতিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

বাংলাদেশে অবস্থানরত রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য আশ্রয়-বসতি নির্মাণ, চিকিৎসা ও স্বাস্থ্যসেবা প্রদান এবং পানি সরবরাহে খরচ করা হবে। জানা গেছে, এই ২০ লাখ ডলারের মধ্যে আইওএম ১০ লাখ ডলার, ইউএনএইচসিআর ৫ লাখ ডলার ও ইউনিসেফ ৫ লাখ ডলারের সহায়তা কার্যক্রম পরিচালনা করবে।

মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীর দমন-পীড়ন থেকে রক্ষা পেতে দেশটির সংখ্যালঘু রোহিঙ্গাদের অনেকে সীমান্ত অতিক্রম করে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। বাংলাদেশ সম্প্রতি রোহিঙ্গা-সংকট কাটাতে বৈশ্বিক সহযোগিতা চেয়েছে।

জানা গেছে, ২০১৬ সালের অক্টোবরের পর ৭৪ হাজার মানুষ মিয়ানমার থেকে কক্সবাজার জেলায় এসেছে, যাদের মধ্যে প্রায় ৩ দশমিক ৩ শতাংশ অভিভাবকহীন নাবালক।

এর মধ্যে উখিয়া ও টেকনাফ উপজেলার অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্র ও স্থানীয় কমিউনিটিতে অবস্থানরত এই  শিশুদের সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন ও তাদের স্বাভাবিক জীবন ফেরাতে কাজ করবে ইউনিসেফ।

ইউএনএইচসিআরের আওতায় থাকবে কুতুপালং ও নয়াড়ায় নিবন্ধিত শরণার্থী শিবিরগুলো। সেখানকার দুই হাজার ৬০০ পরিবারকে আগামী বর্ষা মৌসুমে টিকে থাকতে প্রয়োজনীয় বিভিন্ন সামগ্রী বিতরণ করবে জাতিসংঘের এই সংস্থা।

কক্সবাজারের স্থানীয় গ্রামগুলোর অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্রে আগে থেকেই অবস্থানরতদের পাশাপাশি নতুন করে আসাসহ ১ লাখ ৩০ হাজারেরও বেশি মানুষের জরুরি প্রয়োজন নিশ্চিতে কাজ করবে আইওএম।

উল্লেখ, চলতি বছর ৩০ মার্চ জাপানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানায়, বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া প্রতিবেশী দেশ মিয়ানমারের রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য ২০ লাখ ডলারের জরুরি অনুদান দেবে জাপান সরকার। -ডেস্ক