কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প। ছবি : ডয়চে ভেলে

(দিনাজপুর২৪.কম) কক্সবাজারের উখিয়া কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাস্পের উত্তপ্ত ছয়টি ব্লক ঘেরাও করে অভিযান পরিচালনা করেছে যৌথবাহিনী। গত সপ্তাহব্যাপী আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আল-ইয়াকিন ও মুন্না বাহিনীর মধ্যেকার সংঘর্ষে ৮ জন নিহত হয়েছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ৫ মামলায় আটক হয়েছেন ২৩ জন।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনায় গত বুধবার ক্যাম্প পরিদর্শন করেন পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মো. আনোয়ার হোসেন। এ সময় তিনি বলেন,  ‘ক্যাম্পে শুধুমাত্র আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর আধিপত্য থাকবে, সন্ত্রাসীদের নয়।’

অভিযানের বিষয়ে কুতুপালং রেজিস্টার্ড রোহিঙ্গা ক্যাম্পের কমিউনিটি চেয়ারম্যান হাফেজ জালাল আহমদ জানান, বৃহস্পতিবার বিকেল চারটা থেকে সেনাবাহিনী, র‌্যাব, জেলা পুলিশ, এপিবিএন ও আনসার সদস্যরা সাঁড়াশি অভিযান শুরু করে।

ক্যাম্প ইনচার্জ কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে ক্যাম্প ইনচার্জ খলিলুর রহমানের সঙ্গে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তারা বৈঠক করেন। ওই বৈঠকেই রোহিঙ্গা ক্যাম্পের কয়েকটি ব্লকে যৌথবাহিনীর অভিযান পরিচালনার সিদ্ধান্ত হয়। এরই প্রেক্ষিতে বিকেল চারটায় অভিযান শুরু হয়।

অতিরিক্ত শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মোহাম্মদ সামসুদদৌজা অভিযানের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘এটি নিয়মিত অভিযানেরই অংশ। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির যাতে কোনো রকম অবনতি না ঘটে তার জন্য এমন অভিযান।’ এ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি। -ডেস্ক