(দিনাজপুর২৪.কম) ক্যাম্প নূ’তে রোমার বিপক্ষে ম্যাচের ৩৮ মিনিটে গোলের উল্লাস করেছে বার্সেলানা। উল্লাস করেছেন মেসিও। কিন্তু গোল উঠেছে রোমার খেলোয়াড় ডি রোসির নামে। মেসির উদ্দেশ্যে দেওয়া পাস বিপদমুক্ত করতে গিয়ে নিজেদের জালে ঢুকিয়ে দিয়েছেন রোমার এই খেলোয়াড়। এরপর দ্বিতীয়ার্ধের ৫৫ তম মিনিটে উদযাপন করেছেন উমতিতি কিন্তু গোল তার নামে উঠিনি। উঠেছে রোমার মোনালাসের নামে। রোমার দুই আত্মঘাতী গোল এবং ৫৯ মিনিটে পিকের ও ৮৭ মিনিটে সুয়ারেজের গোলের সুবাদে ৪-১ গোলে জিতেছে বার্সা। চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিফাইনালের পথে এগিয়ে গেছে ভালভার্দের শিষ্যরা।

(দিনাজপুর২৪.কম) ম্যাচের ৮০ তম মিনিটে পিকে রোমাকে যে গোলটি দিয়েছেন সেটা বার্সাকে আবার ফিরিয়ে দিয়েছে স্বাগতিক দল। সান্তনা বলতে বার্সার মাঠে রোমার ওই একটি অ্যাওয়ে গোল পাওয়া। তবে আত্মঘাতী গোল দুটি অবশ্যই রোমাকে পোড়াবে। কারণ এই গোল দুটি না হলে হয়তো বার্সার মাঠ থেকে ৪-১ গোলের হার নিয়ে ফিরতে হতো না।

ম্যাচের আগে রোমার বিপক্ষে বার্সাকে ফেবারিট ধরা হয়েছে। ফেবারিটের মতোই জয় পেয়েছে বার্সেলোনা। কারণ ঘরের মাঠে ৪-১ ব্যবধানের জেতা মেসিদের সেমিফাইনাল আটকানো রোমার জন্য অসম্ভবের মতো ব্যাপার হবে। প্রথমে দুটি আত্মঘাতী গোল দেওয়ায় বার্সায় জয়ে মাহাত্ম একটু কম ছিল। কিন্তু পিকে এবং সুয়ারেজের গোলে বার্সার জয়টা শেষ পর্যন্ত বার্সাময় হয়েছে।

তবে সুয়ারেজের গোলেও আছে প্রতিপক্ষের ভুলের মাসুল। বদলি হিসেবে নামা ডেনিস সুয়ারেজ ক্রস দিলে রোমার খেলোয়াড়ের পায়ে লেগে সুয়ারেজের কাছে আছে। সুয়ারেজ তা থেকে গোল করতে ভুল করেনি। এছাড়া ম্যাচের ৭২ মিনিটে রোমা আর একটি গোল পেতে পারতো। বার্সার গোলরক্ষক অহেতুক কারিকুরি দেখাতে গিয়ে নিজেদের জালে প্রায় বল ঢুকিয়ে দিয়েছিলেন। কিন্তু শেষমেষ গোল হতে দেননি তিনি। -ডেস্ক