(দিনাজপুর২৪.কম) বড় পুকুরিয়া কয়লাখনি দুর্নীতি মামলায় অভিযোগ গঠনের শুনানির জন্য আগামীকাল রোববার (১৮ ফেব্রুয়ারি) বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে রাজধানীর বকশীবাজারে বিশেষ আদালত ২-এ হাজির করার কথা থাকলেও তা হচ্ছে না।

ওই আদালতে বিডিআর বিদ্রোহের একটি বিস্ফোরক মামলার সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্য রয়েছে বিধায় পিডব্লিউ (প্রোডাকশন ওয়ারেন্ট) জারি সত্ত্বেও বিএনপি প্রধানকে আদালতে হাজির করা হবে না। তবে খালেদা জিয়ার পক্ষে হাজিরা দেবেন তার আইনজীবী এবং বিএনপির আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া।

পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডে পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি খালেদার বিরুদ্ধে কর্তৃপক্ষের কাছে পিডব্লিউ পাঠানো হয়েছে জেনে শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে কারাগেটে আসেন সানাউল্লাহ মিয়া। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘জানতে পারলাম বড় পুকুরিয়া কয়লাখনি মামলায় পিডব্লিউ (প্রোডাকশন ওয়ারেন্ট) হয়েছে। সত্যিই পিডব্লিউ জেলখানায় এসেছে কি-না বিষয়টি জানার জন্য এসেছি।’

এরপর তিনি কারা উপ-মহাপরিদর্শকের (ডিআইজি প্রিজন) কার্যালয়ের দিকে যান। পরে যোগাযোগ করলে সানাউল্লাহ মিয়া বলেন, ‘বকশীবাজারের আদালতে বিডিআর বিদ্রোহের মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ রয়েছে বিধায় খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির করা হবে না।’

আদালতের একটি সূত্রও বলেছে, খালেদা জিয়া যেহেতু কারাগারে আছেন, সেজন্য আদালত পিডব্লিউ পাঠিয়েছেন কারাগারে। তবে রোববার ওই আদালতে আরেকটি মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ রয়েছে বিধায় বিএনপি প্রধানকে হাজির করা হচ্ছে না।

উল্লেখ্য, গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ডের রায়ের পর থেকে রাজধানীর পুরান ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারে আছেন খালেদা জিয়া। মামলার রায় ঘোষণা করেন বিশেষ আদালতের বিচারক ডা. মো. আখতারুজ্জামান। এছাড়া বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ পাঁচ আসামিকে ১০ বছর করে কারাদণ্ড এবং দুই কোটি ১০ লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন- মাগুরার সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) কাজী সলিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমানকে ১০ বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এঁদের মধ্যে তারেক রহমান, কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও মমিনুর রহমান পলাতক। -ডেস্ক