(দিনাজপুর২৪.কম) রাশিয়াই প্রথম করোনাভাইরাসের টিকা তৈরি করেছে বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। আজ মঙ্গলবার রাশিয়ায় মন্ত্রীদের সঙ্গে ভিডিও সম্মেলনে পুতিন বলেন, ‘আজ ওই টিকা পরীক্ষার শেষ ধাপেও সফল হয়েছে।’

বার্তা সংস্থা এএফপি’র প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওই ভিডিও সম্মেলনে পুতিন বলেন, ‘নতুন করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে সারা বিশ্বে রাশিয়াই প্রথম টিকা তৈরি করেছে।’ ওই টিকা ‘দীর্ঘস্থায়ী প্রতিরোধ ক্ষমতা’ গড়ে তুলতে সক্ষম হবে বলেও দাবি করেন তিনি।

টেলিভিশনে সম্প্রচার করা ওই সম্মেলনে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘আজকে সকালে বিশ্বে প্রথম নতুন করোনাভাইরাসের জন্য প্রথম টিকা নিবন্ধন করা হলো।’

পুতিন আরও বলেন, ‘আমার এক মেয়েকেও ওই টিকা দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি আমি এই ভাবে দেখছি যে, সে-ও এই গবেষণায় অংশগ্রহণ করল।’

রাশিয়া যে দ্রুত করোনার টিকা তৈরি করে ফেলবে কিছু দিন আগে থেকেই এই দাবি করে আসছিলেন রুশ বিজ্ঞানীরা। আগামী বছরের মধ্যে ওই টিকা মাসে বেশ কয়েক লাখ ডোজ তৈরি করা হবে বলেই রুশ প্রশাসন সূত্রে জানানো হয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, বর্তমানে বিশ্বে ছয়টি সম্ভাব্য টিকা মানবপরীক্ষার তৃতীয় ধাপে রয়েছে। এর মধ্যে দুটি টিকা রাশিয়ার।

এর আগে রয়টার্স জানায়, রাশিয়ায় অনুমোদন পেতে যাওয়া টিকাটি যৌথভাবে তৈরি করেছে দেশটির গামেলিয়া রিসার্চ ইনস্টিটিউট ও দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। টিকাটি এতে নিরাপদ হিসেবে প্রমাণিত হলে তা স্বাস্থ্যকর্মী ও দেশের জ্যেষ্ঠ নাগরিকদের প্রথমে প্রয়োগ করা হবে। নিবন্ধন দেওয়ার পর টিকাটি আরও ১ হাজার ৬০০ মানুষের ওপর প্রয়োগ করে এর নিরাপত্তা ও কার্যকারিতা নিশ্চিত করা হবে।

সংক্রমণের সংখ্যার দিক থেকে এখন সারা বিশ্বে চতুর্থ স্থানে রয়েছে রাশিয়া। সেখানে আক্রান্তের সংখ্যা ৮ লাখ ৯০ হাজারের বেশি। মৃত্যু হয়েছে প্রায় ১৫ হাজার মানুষের। এমন পরিস্থিতিতে দীর্ঘদিন ধরেই করোনার টিকা তৈরির গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছিলেন রুশ বিজ্ঞানীরা। টিকা তৈরির ক্ষেত্রে রাশিয়াকে সমস্ত ধাপ মেনে চলার জন্য সতর্ক করে দিয়েছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। -ডেস্ক