মোঃ সেতাউর রহমান (দিনাজপুর২৪.কম) রাণীশংকৈল প্রতিনিধি ঃ ঠাকুরগায়ের রাণীশংকৈল জশাহার পুকুরে মাছ চুরি করে নিয়েছে দুর্বৃত্তরা। থানায় মামালা দায়ের, মাছ চোর মোসলেমউদ্দিন পুলিশের হাতে আটক।
অভিযোগ ও সরেজমিনের তথ্যমতে, উপজেলার ভোলাপাড়া ও পশ্চিম কালুগাও জশাহার পুকুরটি সরকারি সম্পত্তি। যাহার জে,এল নং -২৪, দাগ নং ৯/২৭, পরিমান ৪.৪১ একর এবং ০১ নং খতিয়ান ভুক্ত। মধ্য বনগাও মৎস্যজীবি সমবায় সমিতি লিমিটেড গত ১৪২৫ খৃীষ্টাব্দের ১লা বৈশাখ উক্ত জশাহার পুকুরটি সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে সরকারের কাছ থেকে তিন বছরের জন্য বন্দোবস্ত গ্রহণ করে মাছ চাষ শুরু করে। একদল দুস্কৃতিকারী একজন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানের মদোদে সন্ত্রাসী কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে। তারা বছরের শুরু থেকেই দাঙ্গা হাঙ্গামা চালিয়ে আসছে। পুকুরের পাহাদারের জন্য নির্মিত টিনের ঘরটি ভেঙ্গে নিয়ে যায় অসৎ প্রকৃতির লোকগুলো। তাদের বাড়ির বউ বেটিদের লেলিয়ে দিয়ে তারা গা ঢাকা দেয়। বন্দোবস্ত গ্রহণকারীরা পুকুরে গেলে আবুল কাশেম, সহিদুর রহমান, মসলিমউদ্দিনের লোকজন অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকী দেয়। প্রেক্ষিতে বিবাদীগণের বিরুদ্ধে বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত, ঠাকুরগাওয়ে গত ১৫/০৫/২০১৮ইং তারিখ ১৪৪ ধারা নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। যাহার মামলা নং- এম,পি-১১৭/২০১৮। দুস্কৃতিকারীরা তাতেও ক্ষান্ত না হয়ে অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে গত ২১ জুন গভীর রাত আনুমানিক ৩.০০ ঘটিকার সময় উক্ত পুকুরে বড় নেটের জাল দিয়ে সব মাছ মেরে নিয়ে যায়। ফলে বন্দোবস্তকারীরা দেড় লক্ষাধিক টাকার ক্ষতির শিকার হন।
এ ব্যাপারে মধ্য বনগাও মৎস্যজীবি সমবায় সমিতি লিমিটেডের সহ-সভপতি মোঃ মুনজুর আলম বাদী হয়ে রাণীশংকৈল থানায় ২২ জুন বিকালে একটি মামলা করেন। মামলা নং ৩২। মামলায় অভিযুক্ত আসামী মসলিম উদ্দিন (৪৯) পিতা মৃত আঃ গণি কে থানা পুলিশ গ্রেফতার করেন।
এ ব্যাপারে রাণীশংকৈল থানা পুলিশ পরিদর্শক মোঃ সালাউদ্দিন আসামী গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, মাছ চুরির কাজে ব্যবহৃত নেট জাল ও বাকি আসামীদের গ্রেফতার প্রক্রিয়া চলছে।