এম,এ সালাম, হেড অব নিউজ (দিনাজপুর২৪.কম)   গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার প্রতিবছর কোটি কোটি টাকা বাংলাদেশ রেলওয়েতে ভর্তূকি দিচ্ছেন আর এই ভর্তূকি দিতে হচ্ছে কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা কর্মচারীদের কারণে।

দিনাজপুর, সেতাবগঞ্জ, ঠাকুরগাঁও রেলওয়ে ষ্টেশন, সরকারি কোয়াটার, বেসরকারি বস্তি, রেলওয়ে পাবলিক টয়লেট সহ বিভিন্ন দোকানপাটে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান করে প্রতিমাসে সরকারের লক্ষ লক্ষ টাকা আতœসাৎ করেই চলেছেন তারা। শুধু তাই নয় এসব এলাকায় রেলওয়ে সরকারি পরিত্যক্ত কোয়াটার বে-সরকারি লোকদের ভাড়া প্রদান ও দেওয়া হয়েছে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ। ফলে প্রতিমাসে লক্ষ লক্ষ টাকা সরকারি রাজস্বের ক্ষতিসাধন হচ্ছে।

দিনাজপুর সহকারী নির্বাহী প্রকৌশলী (এইএন) অফিসের পাশে মৃত মিজান পোটারের বাসায় মিটার ছাড়া সাইটলাইন, উর্দ্ধতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী ওয়ার্কস (এসএসএই) অফিসের খালাসী মোঃ নাদিম তার পাশের বাসায় তার স্ত্রী মোছাঃ রিনা খাতুন, (এসএসএইওয়ার্কস) অফিসের কাঠমিস্ত্রী বাসায় মিটার ছাড়া সাইটলাইন, স্বামী-স্ত্রী উভয়েই এসএসএই অফিসে কর্মরত। দিনাজপুর রেলওয়ে মসজিদ তৎসংগে গলির ভিতর মসজিদের ইমামের বাড়ীতে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ রয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। উর্দ্ধতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী ওয়ে (এসএসএইওয়ে) অফিসরে চৌকিদার মিলন অবৈধ সরকারি কোয়াটার, অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ, তদসংগে একাধিক ইজিবাইকে অটোচার্জ দেওয়া হয় বলেও অভিযোগ করা হয়। তার পাশে আরও ২টি সরকারি কোয়াটার অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ। সূত্রমতে, সেখান থেকে বস্তিগুলিতেও অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ। সূত্রটি আরও জানায়, দিনাজপুর রেলওয়ে ষ্টেশন ১নং প্লাটফর্মের ওয়াক্তিয়া মসজিদ, পশ্চিম পাশে পুরাতন বিদ্যুৎ অফিস যা বর্তমানে সরকারি কোয়াটার হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে এগুলোতে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ। তার পাশেও ২টি ব্লকও অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ। ষষ্টিতলা রেলঘুন্টির পশ্চিমে সনাতন ধর্মাম্বলী পল্লীতে একটি রেলওয়ে বৈদ্যুতিক পল থেকে প্রায় ১৯টি বাড়ীতে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ। সেতাবগঞ্জে অবসরপ্রাপ্ত আব্দুল জব্বার পদবী ম্যাট অধীন উর্দ্ধতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী ওয়ে এসএসএইওয়ে অফিস সরকারি কোয়াটার অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ। ঠাকুরগাঁও এসএসএইওয়ে কর্মচারী মোঃ ওয়াহেদের সরকারি কোয়াটার থেকে তার পাশের বস্তিতে একাধিক অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ, ঠাকুরগাঁও রেলওয়ে ষ্টেশন, রেলওয়ে পাবলিক টয়লেট অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ সেখান থেকে সাইট লাইন দিয়ে একাধিক দোকানে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ। সূত্রটি জানায়, অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে প্রতিমাসে লক্ষ লক্ষ টাকা উত্তোলণ করছেন হেডমিস্ত্রী মোঃ আলী হোসেন খান পদবী লাইনম্যান গ্রেড-১ম, দিনাজপুর বলে দিনাজপুর রেলওয়ে।

সূত্রটি আরও জানায়, গত ২৭ জুলাই ২০২০ অবৈধ বিদ্যুৎ বিছিন্নকরণ অভিযান পরিচালনা করেন উর্দ্ধতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী (এসএসএই ইলেক পার্বতীপুর এমজি) মোঃ দেওয়ান পেয়ারুল হক, অভিযানে অংশগ্রহন করেন বাংলাদেশ রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনী (আরএনবি) দিনাজপুর। অভিযানের নামে নামমাত্র দুই একটি অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে ভুরিভোজ করে চলে যান।

বাংলাদেশ রেলওয়ে দিনাজপুর, সেতাবগঞ্জ ও ঠাকুরগাঁও এ সকল এলাকায় অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ করে অর্থ উত্তোলণের কথা উর্দ্ধতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী (এসএসএই ইলেক পার্বতীপুর এমজি) মোঃ দেওয়ান পেয়ারুল হকের নিকট জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, আমি নতুন যোগদান করেছি এই অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ প্রসঙ্গে আমাকে জানানো হয়নি আমি কিছুই জানি না। যেহেতু জানালেন পরর্বতীতে অবশ্যই এ সকল অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ কেটে দেওয়া হবে জড়িত ব্যক্তিদের বাংলাদেশ রেলওয়ের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।