ঢাকায় বিভিন্ন এলাকায় বেশ কয়েকটি বাসে আগুন দেওয়া হয়। গতকালকের ছবি

(দিনাজপুর২৪.কম) ঢাকা-১৮ আসনের উপনির্বাচনের দিন রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে বাসে আগুন দিয়ে নাশকতার ১১ মামলায় ২৮ আসামির বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। আজ শুক্রবার ঢাকার দুই মহানগর হাকিম এ রিমান্ডের আদেশ দেন।

শাহবাগ থানায় দায়ের করা দুটি মামলায় ছয় আসামির তিনদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন ঢাকা মহানগর হাকিম ধীমান চন্দ্র মণ্ডলের আদালত। রিমান্ডে যাওয়া আসামিরা হলেন হযরত আলী, মঈনউদ্দিন, আবু সাঈদ শান্ত, আবুল কালাম আজাদ, আবু সুফিয়ান ও সোহেল। তাদের মধ্যে প্রথম তিনজন এক মামলায় এবং পরের তিনজন আরেক মামলার আসামি।

পল্টন থানার এক মামলায় আলিজা আল আহমেদ মিটু ও মেহেদী হাসান ইয়াছিনের তিনদিন করে এবং একে ফজলুর বারী, আলতাফ হোসেন, নাঈম প্রধান, আলিফ মাহমুদ, হুমায়ুন রশীদ টুটুল, খন্দকার মাশুকুর রহমান এবং রাশেদুজ্জামানের পাঁচদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। পল্টন থানা পুলিশ আসামিদের সাতদিন করে রিমান্ড আবেদন করে।

মতিঝিল থানার এক মামলায় আবদুর রহমান তাহেরের দুইদিন এবং আরেক মামলায় জাকির হোসেনের তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। এ দুটি মামলায় তাদের পাঁচদিন করে রিমান্ড আবেদন করা হয়।

বংশাল থানায় দায়ের করা একটি মামলায় দুই আসামি সফিউদ্দিন আহমেদ সেন্টু ও মৃদু রহমান জনি ওরফে মোরশেদুর রহমান জনির দুদিনের রিমান্ডের আদেশ দেন আদালত। সাতদিনের রিমান্ড আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত এ আদেশ দেন।

কলাবাগান থানায় দায়ের করা মামলায় আদালত আসামি মাহিফুর রহমান টিপু ও মাঈনউদ্দিন চৌধুরীর দুইদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। আসামিদের সাতদিন করে রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ।

সূত্রাপুর থানায় দায়ের করা মামলায় চার আসামির তিনদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। সাতদিনের রিমান্ড আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত এ আদেশ দেন।

খিলক্ষেত থানায় দায়ের করা মামলায় দুই আসামি মশিউর রহমান মসি ও ইঞ্জিনিয়ার নজরুল ইসলামের দুইদিনের রিমান্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। সাতদিনের রিমান্ড আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত রিমান্ডের এ আদেশ দেন।

এ ছাড়া রাজধানীর তুরাগ থানায় দায়ের করা একটি মামলায় সোহেল মিয়া নামে এক আসামির তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

এর আগে বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রেসক্লাব, শাহবাগ, মতিঝিল, গুলিস্তান, নয়াপল্টন, বংশাল, বাড্ডাসহ রাজধানীর নয় স্থানে এক ঘণ্টার ব্যবধানে যাত্রীবাহী কয়েকটি বাসে আগুন দেওয়া হয়। আগুনে পুড়ে যাওয়া বাসের মধ্যে তিনটি সরকারি বাস ছিল।

পুলিশের তথ্য অনুযায়ী, দুপুর ১২টার দিকে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের উত্তর পাশে পার্ক করে রাখা একটি সরকারি বাসে প্রথম আগুন দেওয়া হয়। বিকেল সাড়ে ৪টায় ভাটারা এলাকায় আরেকটি বাসে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। রাতে আরও একটি বাসে আগুন দেওয়া হয়। এ ছাড়া আরও কয়েকটি স্থানে বাসে আগুন দেওয়ার ঘটনা ঘটে।

এদিকে বাসে আগুন দেওয়ার ঘটনায় বিভিন্ন থানায় বেশ কয়েকটি মামলা করেছে পুলিশ। এসব মামলায় প্রায় দেড় শতাধিক ব্যক্তিকে আসামি করা হয়। -ডেস্ক