হারুন উর রশিদ সোহেল (দিনাজপুর২৪.কম)  যে কোনো সময় ঘোষণা হতে পারে রংপুর জেলা ও মহানগর ছাত্রদলের কমিটি। এ জন্য কমিটি চূড়ান্ত করা হয়েছে। কমিটিতে কারা আসছেন তা নিয়ে চলছে জেলা ও মহানগর শাখার তৃণমূল নেতাকর্মীদের আলোচনা-সমালোচনা। এ ছাড়াও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে চলছে জেলা ও মহানগরের কমিটিতে সম্ভাব্য পদবিধারীদের নিয়ে তৃণমূল নেতাকর্মী ও অনুসারীদের মন্তব্য পাল্টামন্তব্য। একটি নির্ভরযোগ্য সুত্র জানিয়েছে, আজ বৃহস্পতিবার ও আগামীকাল শুক্রবার অথবা  ্এপ্রিল মাসের প্রথম সপ্তাহের যে কোনো দিন কমিটি ঘোষণা দেয়া হবে। কমিটির গুরুত্বপূর্ণ পদে আনা হয়েছে ২০০০ সাল এবং তার পরে যারা এসএসসি পাস করেছেন তাদের। সূত্র জানায়, মহানগরে সভাপতি পদে কেন্দ্রের তালিকায় আছেন জেলা ছাত্রদলের যুগ্ন সম্পাদক শাহ জিল্লুর রহমান জেমস ও  জেলা ছাত্রদলের প্রচার সম্পাদক জাকারিয়া ইসলাম জিম। তাদের মধ্যে যে কোন একজন হবেন সভাপতি। সাধারন সম্পাদক পদে আলোচনায় আছেন জেলা ছাত্রদলের সহ-সাধারন সম্পাদক শহিদুল ইসলাম শহিদ,জেলা ছাত্রদলের সাহিত্য ও প্রকাশনা বিষয় সম্পাদক নুর হাসান সুমন, সহ ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক  আবিদ হাসান গুড্ডু, রংপুর সরকারী কলেজের ছাত্রদল নেতা আব্দুল্লাহ আল ইমরান, শহীদ জিয়া ব্লাড ডোনেট ফাউন্ডেশনের আহবায়ক মাহবুব হাসান সুমন ও সাংগঠনিক সম্পাদক পদে সাবেক তামপাট ইউনিয়ন ছাত্রদলের আহবায়ক হারুনুর রশিদ সোহেল, রংপুর মহানগর ছাত্রদল নেতা রাজিব চৌধুরী, সাইফুল ইসলাম, আশরাফুল ইসলাম,জেলা ছাত্রদলের স্কুল বিষয়ক সম্পাদক মুন্না হাসান, জেলা সদস্য মুকুট ইসলাম, অন্যদিকে রংপুর জেলা কমিটির সভাপতি হিসাবে বর্তমান জেলা কমিটির সাধারন সম্পাদক মনিরুজ্জামান হিজবুল, কারমাইকেল কলেজ ছাত্রদলের সাবেক আহবায়ক এমএম আলম পান্না, সাধারন সম্পাদক জেলা ছাত্রদলের সহ-সাধারন সম্পাদক শহিদুল ইসলাম শহিদ, তারাগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি ছাদিকুল ইসলাম, পীরগাছা উপজেলা ছাত্রদলের সাধারন সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম,রংপুর সদর উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ছাবিরুল ইসলাম লিটন,সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল্লাহ আলম ইমরান সুজন, শহীদ জিয়া ব্লাড ডোনেট ফাউন্ডেশনের আহবায়ক মাহবুব হাসান সুমন,রংপুর সদর উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি রাশেদুল হক জুয়েল ও সাংগঠনিক সম্পাদক পদে রংপুর সদর উপজেলা ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান সৌরভ। তবে জেলার সভাপতি হিসেবে বর্তমান কমিটির সাধারন সম্পাদক মনিরুজ্জামান হিজবুল ও সাংগঠনিক সম্পাদক পদে সদর উপজেলা ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান সৌরভ সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন। রংপুর জেলার বিএনপি নেতাসহ সাবেক ছাত্রনেতাদের সুপারিশ রয়েছে তাদের জন্য। উল্লেখ্য, রংপুর জেলা ছাত্রদলের সর্বশেষ কমিটি গঠন হয় ২০১০ সালের ২৭ আগষ্ট। আর রংপুর শহর কমিটি গঠন হয় ২০০৪ সালে।

পীরগঞ্জে দুটি ইউপিতে নির্বাচন প্রতীক বরাদ্দ

রংপুরের পীরগঞ্জের বড়আলমপুর ও বড়দরগা ইউনিয়নের নির্বাচনে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। প্রতীক বরাদ্দের পর চেয়ারম্যান প্রার্থীরা জোরেশোরে গনসংযোগে নেমে পড়েছেন।
উপজেলার বড়দরগা ইউপির চেয়ারম্যান মোতাহারুল হক বাবলুর মৃত্যুর পর ওই পদে নির্বাচন হচ্ছে। এতে আ’লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীক নিয়ে মুক্তিযোদ্ধা নুরুল হক, আনারস প্রতীকে প্রয়াত চেয়ারম্যানের কন্যা মাফিয়া আকতার শীলা ও ঘোড়া প্রতীকে এমদাদুল হক নির্বাচন করছেন। অপরদিকে বড়আলমপুর ইউনিয়নে মামলাজনিত কারণে নির্দিষ্ট সময়ের এক বছর পর নির্বাচন হচ্ছে। এখানে চেয়ারম্যান পদে আ’লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকে মোদাববেরুল ইসলাম সাজু, আনারস প্রতীকে আ’লীগ নেতা বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হাফিজার রহমান ও বিএনপি মনোনীত ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে মোস্তাফিজার রহমান নির্বাচন করছেন। বড়আলমপুরে নৌকা প্রতীকের সাথে আনারস প্রতীকের হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হতে পারে বলে ইউনিয়নটির ভোটারদের সুত্রে জানা গেছে। কারণ হাফিজার রহমান সাবেক চেয়ারম্যান এবং ইউনিয়নে তার ব্যাপক সামাজিক বিনিয়োগ রয়েছে বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভোটাররা জানান। অপরদিকে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ঢাকায় অবস্থান করেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় আ’লীগ নেতারা বলছেন, হাফিজার রহমান নিঃসন্দেহে হেভিওয়েট প্রার্থী। কারণ ইউনিয়নে তার সামাজিক কর্মকান্ডগুলোই তাকে এগিয়ে নিয়ে যাবে বলে আমরা মনে করছি। এ ব্যাপারে চেয়ারম্যান প্রার্থী হাফিজার রহমান বলেন, দলীয়ভাবে নৌকা প্রতীক চেয়ে আমি আবেদন করলে তৃণমুল পর্যায় থেকে (উপজেলা ও জেলা) ৩ প্রার্থীর মধ্যে আমাকে ১ম মনোনীত করা হয়েছিল। কিন্তু দল আমাকে মনোনয়ন দেয়নি। আমি মনে করি ইউনিয়নবাসীর কাছে আমার গ্রহনযোগ্যতা রয়েছে, তাই প্রার্থী হয়েছি। দলের অনেক নেতাকর্মীও আমার সাথে আছেন। আগামী ১৬ এপ্রিল ইউনিয়ন দুটিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।