গোপালগঞ্জের ওরাকান্দিতে মতুয়াদের প্রধান মন্দির। ছবি : সংগৃহীত
গোপালগঞ্জের ওরাকান্দিতে মতুয়াদের প্রধান মন্দির। ছবি : সংগৃহীত

(দিনাজপুর২৪.কম)স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের সময় গোপালগঞ্জে শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধি ছাড়াও ওই জেলার ওড়াকান্দি ইউনিয়নের ঠাকুরবাড়িতে যাওয়ার কথা রয়েছে। গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী থানার ওড়াকান্দি ইউনিয়নের ঠাকুরবাড়ি সংলগ্ন এলাকা হিন্দুদের মতুয়া সম্প্রদায়ের তীর্থস্থান হিসেবে বিবেচিত হয়।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, এ মাসের শেষে পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনে মতুয়া ভোটারদের মন জয় করতেই ওড়াকান্দি সফরে গুরুত্ব দিচ্ছেন নরেন্দ্র মোদি। যেদিন মোদির ওড়াকান্দি সফর করার কথা, তার পরদিন থেকেই শুরু হবে পশ্চিমবঙ্গ নির্বাচন। ভারতের রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, পশ্চিমবঙ্গের এবারের নির্বাচনে মতুয়া সম্প্রদায়ের মানুষের ভোট খুবই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠতে পারে।

কারা এই মতুয়া সম্প্রদায়? ওড়াকান্দি কীভাবে তাদের তীর্থস্থান হলো?

বিবিসি বাংলার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের নিম্ন বর্ণ হিসেবে বিবেচিত নমঃশূদ্র গোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত মতুয়ারা। সনাতন হিন্দু সম্প্রদায়ের একটি বিশেষ সম্প্রদায় এই মতুয়ারা, যারা হরিচাঁদ ঠাকুরকে তাদের দেবতা মান্য করে।

গোপালগঞ্জের ওড়াকান্দিতে প্রায় ২১০ বছর আগে জন্ম হয় হরিচাঁদ ঠাকুরের, যিনি এই মতুয়া সম্প্রদায়ের সূচনা করেন। পরবর্তীতে তার ছেলে গুরুচাঁদ ঠাকুরের মাধ্যমে বিস্তৃতি লাভ করে মতুয়া মতবাদ।

ওড়াকান্দিতে হরিচাঁদ ঠাকুর ও গুরুচাঁদ ঠাকুরের বাসস্থান ও এর আশেপাশের এলাকা মতুয়াদের কাছে পবিত্র স্থান হিসেবে গণ্য হয়ে থাকে। মতুয়াদের প্রধান মন্দিরও এখানেই অবস্থিত।

‘হরিচাঁদ ঠাকুর ও গুরুচাঁদ ঠাকুরের “লীলাক্ষেত্র” অর্থাৎ তারা যেখানে থেকেছেন, ধর্ম প্রচার করেছেন, তাদের কর্মক্ষেত্র ছিল-মতুয়াদের কাছে তীর্থস্থান’, বলছিলেন কাশিয়ানী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সুব্রত ঠাকুর, যিনি হরিচাঁদ ঠাকুরের বংশধরও।

সুব্রত ঠাকুর আরও বলেন, ‘সে সময় অবহেলিত, পিছিয়ে পড়া মানুষের অধিকার আদায় ও উন্নয়নের জন্য হরিচাঁদ ঠাকুর ও গুরুচাঁদ ঠাকুর আন্দোলন করেছেন। সমাজ সংস্কার ও শিক্ষার প্রসারের জন্য নানা ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছেন।’

প্রতিবছর হরিচাঁদ ঠাকুরের জন্মতিথিতে সারা বিশ্ব থেকে লাখ লাখ মতুয়া এখানে সমবেত হন এবং পুণ্যস্নানে অংশ নেন। সেসময় কয়েক দিনের জন্য ঠাকুরবাড়ি ও আশেপাশের এলাকায় বিপুল ‘পুণ্যস্নানের সময়টায় প্রায় ১৫ লাখ মানুষের সমাগম হয়। বাংলাদেশ, ভারত ছাড়া আরও কয়েকটি দেশ থেকে মতুয়ারা আসেন তখন। সেসময় আয়োজকদের পাশাপাশি স্থানীয় মানুষজন ও স্বেচ্ছাসেবকদের সহায়তায় পূণ্যার্থীদের থাকা-খাওয়া ও দেখাশোনার ব্যবস্থা করা হয়ে থাকে।’ -ডেস্ক