(দিনাজপুর২৪.কম)করোনায় মৃত্যুহারে শীর্ষে রয়েছে বেলজিয়াম। আন্তর্জাতিক জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডওমিটারে দেয়া সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী, দেশটিতে এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৪৯ হাজার ৯০৬ জন। এতে মারা গেছেন ৭ হাজার ৮৪৪ জন।

সে হিসাবে দেশটিতে প্রতি ১ লাখ মানুষের মধ্যে ৬৬ জন করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন, যা বিশ্বে মৃত্যুহারে সর্বোচ্চ।

ইতিমধ্যে ১২ হাজার ৩০৯ জন সুস্থ হয়েছেন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ২৯ হাজার ৭৫৩ জন। এদের মধ্যে ৬৭৪ জনের অবস্থা গুরুতর।

১ কোটি ১৫ লাখ জনসংখ্যার দেশটিতে এখন পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৪ লাখ ২৩ হাজার ৯৭১টি।

দেশটিতে কেন মৃত্যুহার বেশি এ বিষয়ে অনেকের মত– করোনা নিয়ে তথ্য গোপন না করার কারণে দেশটিতে মৃত্যু বেশি দেখাচ্ছে। তা ছাড়া করোনা উপসর্গ নিয়ে কেউ মারা গেলে তাকে করোনায় মৃত্যু তালিকায় যুক্ত করা হচ্ছে।

দেশটির এক সরকারি কর্মকর্তা বলছেন, আমরা শুধু হাসপাতাল ও কেয়ার হোমে করোনায় মৃতদের হিসাব রাখছি না, করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যায় তাদেরও এ তালিকায় যুক্ত করছি।

এ বিষয়ে গত মাসেই ব্যাখ্যা দিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী সোফি উইলমস।

তিনি বলেছেন, করোনা রোগীর মৃত্যু ও আক্রান্ত নিয়ে সরকার সম্পূর্ণ স্বচ্ছতার সঙ্গে তথ্য সরবরাহ করবে।

বেলজিয়াম যেভাবে করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর হিসাব করছে বিশ্বের কোনো দেশই সেভাবে তা করছে না।

দেশটি স্বাস্থ্য বিভাগের হিসাব অনুযায়ী, করোনায় আক্রান্ত হয়ে সেখানে যারা মারা গেছেন তাদের মধ্যে ৫৩ শতাংশের মৃত্যু হয়েছে কেয়ার হোমে। আর কেয়ার হোমে মারা যাওয়াদের ১৬ শতাংশ করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। সে হিসাবে বাকি সাড়ে ৩ হাজারের বেশি সন্দেহভাজন করোনা রোগী।

উল্লেখ্য, করোনার প্রকোপ কমাতে গত ১৮ মার্চ থেকে দেশটি লকডাউন চলছে। প্রত্যেক পরিবার থেকে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য কিনতে

একজনকে বাইরে যাওয়ার অনুমতি দেয়া হয়েছে। এমন কড়াকড়ির পরও আক্রান্ত ও মৃত্যু বাড়ছে সেখানে।

তথ্যসূত্র: পলিটিকো, ব্রাসেলস টাইমস