(দিনাজপুর২৪.কম) রংপুরের কাউনিয়া উপজেলায় যুবলীগ নেতা শাহ আলমের (২৮) ছুরিকাঘাতে কাঠমিস্ত্রী হেমন্ত কুমার বর্মণ (৩০) নিহত হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।   আজ মঙ্গলবার নিহতের ভাতিজা মোটর সাইকেল মেরামত না করায় চাচা হেমন্ত কুমার বর্মণকে ওই যুবলীগ নেতা ছুরি মেরে হত্যা করেছে বলে নিশ্চিত করেছেন কাউনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন অর রশীদ।

নিহত হেমন্ত কুমার উপজেলার বালাপাড়া ইউনিয়নের নিজপাড়া এলাকার প্রীতিরাম বর্মণের ছেলে। এ ঘটনার পর শাহ আলমকে আটক করেছে পুলিশ।

বালাপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বালাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনছার আলী জানান, নিহত হেমন্ত কুমার আওয়ামী লীগের কর্মী ছিলেন। আর শাহ আলম উপজেলা যুবলীগের সদস্য।

প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে ওসি মামুন জানান, উপজেলা যুবলীগের সদস্য শাহ আলম সকালে তার মোটর সাইকেল মেরামত করতে নিয়ে যান পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের সামনে হেমন্ত কুমারের ভাতিজা বিপ্লবের মোটর সাইকেল গ্যারেজে। শাহ আলম বিভিন্ন সময় তার মোটর সাইকেল মেরামত করলেও টাকা দেন না। তাই বিপ্লব শাহ আলমকে দেখে চা খাওয়ার কথা বলে চলে যান। দীর্ঘ সময় না আসায় ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন শাহ আলম। কিছুক্ষণ পর বিপ্লবের চাচা কাঠমিস্ত্রী হেমন্ত কুমার গ্যারেজে আসেন। বিপ্লব মোটর সাইকেল মেরামত না করে দেওয়ায় তার বিরুদ্ধে হেমন্তকে নালিশ করেন শাহ আলম।

এক পর্যায়ে বিপ্লবকে উদ্দেশ্য করে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকেন। হেমন্ত কুমার গালিগালাজ বন্ধ করতে বললে ক্ষিপ্ত হয়ে শাহ আলম পাশের দোকান থেকে ছুরি নিয়ে এসে হেমন্তের পেটে ঢুকিয়ে দেন। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যান হেমন্ত।

নিহতের লাশ উদ্ধার করে দুপুরে ময়না তদন্তের জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান ওসি। -ডেস্ক