(দিনাজপুর২৪.কম) ভারতীয় সংসদে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাশ করানোর সময় দম্ভের সঙ্গে দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ঘোষণা করেছিলেন, ‘তৈরি থাকুন। সারা দেশজুড়ে এনআরসি আসছে।’ তারপর নাগরিকত্ব বিল পাশ হয়ে যায় সংসদের দুই কক্ষেই। ভারতজুড়ে শুরু হয় বিক্ষোভ।

এক প্রকার চাপের মুখে পড়ে গত রবিবার দিল্লির রামলীলা ময়দানের জনসভা থেকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন, ২০১৪ সালে তাঁর সরকার ক্ষমতায় আসার পর এনআরসি নিয়ে কোথাও কোনও আলোচনা হয়নি। এবার সেই সুরই শোনা গেল অমিত শাহের গলাতেও। যা দেখে অবাক রাজনৈতিক মহলের একাংশ।

মঙ্গলবার মোদীকে সমর্থন করে অমিত শাহ দাবি করেন, ‘‘মন্ত্রিসভা বা সংসদে দেশ জুড়ে এনআরসি করা নিয়ে কোনও আলোচনাই হয়নি। বিরোধীরাই এ নিয়ে সাধারণ মানুষকে ভুল বোঝাচ্ছে।’’

এ দিন অমিত শাহ সকল রাজ্য সরকারের কাছেই জনগণনা (এনপিআর) চালু করার জন্য আবেদন করেন। তাঁর দাবি, এনপিআর ইউপিএ আমলেই স্থির করা হয়েছিল।

অমিতের দাবি, ‘‘এনপিআর ছাড়া কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের পক্ষে উন্নয়ন করা সম্ভব নয়। এ নিয়ে রাজ্য সরকারগুলির মধ্যে যদি কোনও আশঙ্কা থাকে তা হলে তা সরিয়ে দিন।’’

এনপিআর-এর তথ্য এনআরসি-তে ব্যবহার করা যাবে না বলেও দাবি করেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘‘দুটি প্রক্রিয়ার মধ্যে কোনও লেনদেন নেই। এনপিআর-এর জন্য কোনও নথি প্রয়োজন নেই। দশ মিনিটেই এই কাজ হয়ে যাবে।’

এ দিন সাক্ষাৎকারে ডিটেনশন সেন্টার নিয়ে প্রশ্নের উত্তরে অমিত শাহ দাবি করেন, ‘‘এর সঙ্গে এনআরসি অথবা সিএএ-র কোনও যোগ নেই। অনুপ্রবেশকারীদের জন্যই ওই ডিটেনশন সেন্টার তৈরি করা হয়েছে।’’ এ ব্যাপারে ভুল তথ্য ছড়ানো হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। -ডেস্ক