এম.এ সালাম (দিনাজপুর২৪.কম) দিনাজপুর জেলার চিরিরবন্দর উপজেলা থেকে আইডিয়া নিয়ে মোবাইল এ্যাপস বানিয়ে কোটি কোটি টাকার ব্যবসা করছে উবার-পাঠাও! গা শিউরে ওঠার মত কথা হল বিগত ২০১০ সাল থেকে শতাধিক যুবক ঢাকার উবার-পাঠাও এর ন্যায় মটর সাইকেল যোগে চিরিরবন্দর উপজেলার বিন্যাকুড়ি থেকে বিভিন্ন জায়গায় যাত্রী পরিবহন করে জীবিকা নির্বাহ করছেন। কিন্তু মজার ব্যাপার হলো যাঁরা মটর সাইকেল যোগে যাত্রী সেবা দিয়ে টাকা উপার্জন করছেন তারা বেশির ভাগই জানেন না উবার-পাঠাও কি মোবাইল এ্যাপস কি !
সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, দিনাজপুর জেলার ১ মাত্র চিরিরবন্দর উপজেলার বিন্যাকুড়ি বাজারে মটর সাইকেলে যাত্রী পরিবহন করে নিজের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করেছেন বেকার শতাধিক যুবক। গত ১০ বছর ধরে বিন্যাকুড়ী বাজার থেকে যাত্রীর ভাড়া ঠিক করার পর মটরসাইকেল চালক যাত্রীকে পিছনে বসিয়ে গন্তব্য স্থানে পৌঁছে দেয়। দ্রুত সময়ের মধ্যে যাত্রীরা গন্তব্যস্থানে পৌছার কারণে এই বাহনকে বেশী পছন্দ করে থাকে। উপজেলার বিন্যাকুড়ি বাজারে গিয়ে দেখা যায় রাস্তার পার্শ্বে ভাড়ার জন্য মটরসাইকেল স্ট্যান্ড করে করে যাত্রীর জন্য অপেক্ষা করছে শতাধিক মটর সাইকেল চালক। মটর সাইকেল চালক আব্দুল কুদ্দুস বলেন, অনেক কষ্ট করে লেখাপড়া শিখে যখন কোনো চাকরি পাচ্ছি না তখন মটর সাইকেল শো-রুমে কিছু টাকা জমা দিয়ে মোটর সাইকেল ক্রয় করি। সেই মটর সাইকেল ভাড়ায় চালিয়ে কিস্তির টাকা পরিশোধ করছি আর নিজের পরিবারও চালাচ্ছি। অপর চালক মাসুদ রানা বলেন, চাকরি পাওয়া খুবই সমস্যা তাই একটা মটর সাইকেল ক্রয় করে সেই মটর সাইকেল ভাড়ায় যাত্রী বহন করে মটর সাইকেলের কিস্তির টাকা পরিশোধ করে নিজের কর্মস্থানের সৃষ্টি করে পরিবার পরিজন নিয়ে সুখেই আছি। তারা আরও জানান, সময় ও দূরত্ব জানার পর যাত্রীর ভাড়া ঠিক করা হয়। যাত্রী রমজান আলী বলেন, এই এলাকার রাস্তা-ঘাট সরু হলেও মটর সাইকেল চালকের সহযোগিতায় অল্প সময়ের মধ্যেই নির্ধারিত স্থানে পৌঁছাতে পারছি। অনেক সময় রাতে জরুরী রোগী নিয়ে হাসপাতালে যেতে হলেও মটর সাইকেল চালকদের ফোন দিলেই চলে আসে। চিরিরবন্দর উপজেলা চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম তারিক জানান, মটর সাইকেলযোগে অনেক যুবক এখানে জীবিকা নির্বাহ করছে বিষয়টি আমার কাছে অনেক ভালো লেগেছে অপরদিকে ৪নং ইসবপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু হায়দার লিটন বলেন, ইসবপুর ইউনিয়নের বিন্যাকুড়ি বাজারে ভাড়ায় মটর সাইকেলে করে যাত্রী বহন করে শতাধিক বেকার যুবকের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হওয়ায় শতাধিক পরিবার আজ সুখে শান্তিতে বসবাস করছেন। প্রতিদিন একজন মটর সাইকেল চালক প্রায় ১ হাজার টাকা আয় করে তাদের ছেলে-মেয়েদেরকে লেখাপড়া করাতে পারছেন।
চিরিরবন্দর উপজেলায় উবার-পাঠাও এর মতো মটরসাইকেলে যাত্রী সেবা রয়েছে এ বিষয়ে চিরিরবন্দর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আয়েশা সিদ্দীকা জানান, আমি সদ্য যোগদান করেছি তবে শুনেছি বিন্যাকুড়ি থেকে মটরসাইকেল যোগে যাত্রীসেবা দেয়া হয়।