আবদুল কাদের মির্জা। পুরোনো ছবি

(দিনাজপুর২৪.কম) দেশে এখনো ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা হয়নি বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই ও নোয়াখালীর কোম্পানিগঞ্জ উপজেলার বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ অধিকার প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করছেন বলেও মন্তব্য করেন তিনি। আজ বুধবার বসুরহাট পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের রামদি এলাকায় নির্বাচনী পথসভায় এসব কথা বলেন তিনি।

আবদুল কাদের মির্জা বলেন, ‘আমার ভোট আমি দেবো, যাকে ইচ্ছা তাকে দেবো। বঙ্গবন্ধু দেশ স্বাধীন করেছেন এ দেশের মানুষের ভাতের অধিকার, ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে। ভাতের অধিকার প্রতিষ্ঠা হয়েছে, কিন্তু এখনো আমরা ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পারিনি। শেখ হাসিনা তা প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করছেন।’

বসুরহাট পৌরসভায় টানা তৃতীয়বারের মতো আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়া এ মেয়র প্রার্থী বলেন, ‘বাংলাদেশের কে কোথায় কীভাবে ভোট নেবে, সেটা আমি জানি না। আমার এখানে আপনারা কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেবেন। আমি চোখে আঙুল দিয়ে কেন্দ্রীয় সব দলের নেতাদের দেখিয়ে দিমু, গণতন্ত্র কী জিনিস। আমি এককভাবে, আর কেউ না দিলে আমার ভোট তো আমি পাব। ভোটে যে নির্বাচিত হবেন, তাকে অভিনন্দন জানিয়ে নেতাকর্মীদের সঙ্গে চা-মিষ্টি খেয়ে বাড়ি যাব। পরদিন সকালে আবার আপনাদের সঙ্গে দেখা করব।’

ভোটারদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘কিছু লোক প্রতীক্ষায় আছেন ভোটারদের পথে-ঘাটে ধরবেন, বাধা দেবেন, তাদের পেটাবেন। মহিলাদের বলছি,  আপনাদের কেউ বাধা দিলে জুতাপেটা করবেন। আমরা দৃষ্টান্ত স্থাপন করে দেখিয়ে দেবো, আমরা ভোট চুরির নির্বাচন চাই না।’

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদকের ছোট ভাই বলেন, ‘শেখ হাসিনার আন্তরিকতা আছে। তার নেতৃত্বে বাংলাদেশে ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে আপনার পছন্দের লোককে ভোট দেবেন। আমাকে পছন্দ না হলে ভোট দিয়েন না।’

তিনি বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে অনেক ষড়যন্ত্র চলছে। অনেক অস্ত্রশস্ত্র এসেছে। আমাকে মেরে ফেলবে বলা হচ্ছে। আমার পোস্টার ছিঁড়ে ফেলা হচ্ছে। এসব আমার দল থেকে যারা বহিষ্কৃত এবং টেন্ডারবাজি, চাকরি বাণিজ্যের সঙ্গে জড়িত ছিলেন, তারা করছেন। আমি সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোট করলে জাতীয় পর্যায়ে আপনাদের সম্মান বাড়বে।’ -ডেস্ক