(দিনাজপুর২৪.কম) ওস্তাদ বিসমিল্লাহ খান ছিলেন ভারতীয় উচ্চাঙ্গ সঙ্গীতের ইতিহাসে এক বিস্ময়কর নাম। তিনি সেই অল্পসংখ্যক গুণীদের একজন, যিনি ভারতের চারটি বেসামরিক পদকে ভূষিত হয়েছেন। ২০০৬ সালের ২১ আগস্ট মৃত্যুবরণ করেন এই মহামানব।

আগামী ২১ অগস্ট, ভারতরত্ন উস্তাদ বিসমিল্লা খানের ১৪তম মৃত্যুবার্ষিকী দিবস। তার আগেই সানাই মায়েস্ত্রোঁর বাড়ির একাংশ ভেঙে ফেললেন আত্মীয়রা। শুধু তাই নয়, সানাইসহ তার স্মৃতিবিজড়িত বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্র নষ্ট করে ফেলে দেওয়া হয়েছে।

ইন্ডিয়াটাইমসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাড়িটির স্থলে তারা সেখানে কমার্শিয়াল কমপ্লেক্স বানাবেন বলে জানা গেছে। তবে স্থানীয় সচেতন নাগরিকদের অভিযোগের তীর উত্তরপ্রদেশের সরকারের দিকেও। প্রশাসন এমন মহান একজন মানুষের বাড়িটির দিকে কখনোই ফিরে তাকায়নি।

বিসমিল্লাহ খানের ভক্তরা কয়েকবার দাবি তুলেছিলেন, বাড়িটিকে জাদুঘর করা হোক। স্থানীয় প্রশাসনের কাছে আর্জি জানানো হলেও এ ব্যাপারে তারা কোনো উদ্যোগ নেয়নি। শেষ পর্যন্ত বাড়িটি ধ্বংস হলো আত্মীয়দের হাতেই। বিসমিল্লাহ খানের ‘ধর্মের’ কারণেই বাড়িটিকে রক্ষণাবেক্ষণ করেনি উত্তরপ্রদেশের সরকার, এমন অভিযোগও করেছেন কেউ কেউ।

জানা যায়, সত্তরের দশকে যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য বাড়ি উপহারের প্রস্তাব পেয়েছিলেন বিসমিল্লাহ খান। এই বাড়ির মায়া ত্যাগ করতে পারবেন না বলে সেই প্রস্তাবও প্রত্যাখান করেছিলেন তিনি। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত এই বাড়িতেই ছিলেন। একটি বিশাল কক্ষে তার প্রিয় সব বাদ্যযন্ত্রও ছিল। বাড়িটির সঙ্গে গুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে সেসবের বেশ কয়েকটি। বিসমিল্লাহ খানের পালিত কন্যা সংগীতশিল্পী সোমা ঘোষ এমন ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। -ডেস্ক