(দিনাজপুর২৪.কম)  সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি বলেছেন, ‘দেশ থেকে ভিআইপি টিকেট বিক্রি ও প্রদান বন্ধ করতে হবে। পৃথিবীর কোনো দেশে পরিবহনে যাতায়াতের ক্ষেত্রে ভিআইপি সুবিধা না পেলেও বাংলাদেশে এর নজির সর্বক্ষেত্রে। জানি আমার এমন কথায় দেশের অনেক ভিআইপির মন খারাপ হবে। কিন্তু আমি বলব, এ ক্ষেত্রে কিছুই করার নেই।’ সাধারণ মানুষের কাতারে দাঁড়িয়ে টিকিট কেটে চলাচলের চন্য তিনি দেশের সরকারি-বেসরকারি ও রাজনৈতিক ব্যক্তিদের অনুরোধ জানান। একই সঙ্গে কেউ যেন ভিআইপি পরিচয় দিয়ে কোনো টিকিট গচ্ছিত রেখে সাধারণ যাত্রীদের ভোগান্তির সৃষ্টি না করেন— সে জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে সজাগ থাকার নির্দেশ দেন মন্ত্রী। মন্ত্রী এ সময় উপস্থিত প্রকৌশলী ও ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের লোকদের তিরস্কার করে বলেন, ‘আমি কি প্রধানমন্ত্রী যে রোড ডিভাইডার উদ্বোধনের জন্য মহাসড়কের পাশে এভাবে এতোবড় নামফলক ও মঞ্চ বানাতে হবে। আমি চলে যাওয়ার পর এটির রং-চং আর বেশি দিন থাকবে না। তাই এটি ভেঙে ছোট ফলক নির্মাণ করতে হবে।’ তিনি শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিমপাড় সায়দাবাদ এলাকায় মহাসড়কে রোড ডিভাইডার উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের এ সব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, ‘গত ঈদুল ফিতরের পরের দিন মুলিবাড়িতে মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় ১৭ জন নিহত হবার পর ওই স্থান পরিদর্শন শেষে কথা দিয়েছিলাম, আগামী দুই মাসের মধ্যে নিউজার্সি ব্যারিয়ারের আদলে চারটি পয়েন্টে রোড ডিভাইডার স্থাপন করা হবে। সে মোতাবেক কাজ করেছি এবং আজ তার শুভ উদ্বোধন হল। কাথা দিয়ে কথা রক্ষা করতে পেরেছি, এটাই বড় কথা।
ওবায়দুল কাদের এ সময় মহাসড়কে কোনো প্রকার ফিটনেসবিহীন যানবাহন যেন চলাচল করতে না পারে সে জন্য উপস্থিত জেলা প্রশাসক বিল্লাল হোসেন, পুলিশ সুপার মিরাজ উদ্দিন আহমেদকে নির্দেশ দেন। একই সঙ্গে মহাসড়কে কোনো প্রকার পশুর হাট বসতে পারবে না বলেও জানান তিনি।
মহাসড়কের অনেক স্থানের অবস্থা ভাল স্বীকার করে মন্ত্রী বলেন, চলতি মৌসুমে অধিক বৃষ্টিপাত হওয়ায় অনেক জায়গায় বেহাল দশা হয়েছে। এই মুহূর্তে কিছুই করার নেই। তবে এ কারণে যানজট হবে না। মানুষ নির্বিঘ্নে বাড়ি ফিরতে পারবেন।
তিনি এ সময় সড়ক বিভাগের কর্মকর্তাদের দায়িত্ব অবহেলার যে কোনো সংবাদ প্রকাশ করার জন্য উপস্থিত সাংবাদিকদের প্রতি অনুরোধ জানান। পরে মন্ত্রী সায়দাবাদ, মুলিবাড়ী, কোণাবাড়ি এবং নলকাতে স্থাপিত রোড ডিভাইডার পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি সড়ক বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আবু রওশন এবং সিরাজগঞ্জ সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদকে কাজে গাফিলতির জন্য চরমভাবে তিরস্কার করেন।
প্রায় কোটি টাকা ব্যয়ে চারটি পয়েন্টে রোড ডিভাইডারের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদে সেতু বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী কামরুজ্জামান, সড়ক বিভাগের প্রধান (ময়মনসিংহ বিভাগ) প্রকৌশলী সাহাবুদ্দিন, জেলা প্রশাসক মো. বিল্লাল হোসেন, পুলিশ সুপার মিরাজ উদ্দিন আহমেদ, সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু মোহাম্মদ গোলাম কিবরিয়, সাবেক সম্পাদক এ্যাডভোকেট কে এম হোসেন আলী হাসান প্রমুখ।
প্রসঙ্গত, গত আড়াই মাসে বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম মহাসড়কে ১০টি সড়ক দুর্ঘটনায় অর্ধশতাধিক মানুষ নিহত এবং কয়েকশ’ মানুষ গুরুতর আহত হন। -ডেস্ক