google-site-verification: google5ae70a53735248dc.html ভারতে প্রথম দফার ভোটগ্রহণ চলছে - Dinajpur24 | The Largest Bangla News Paper of Bangladesh ভারতে প্রথম দফার ভোটগ্রহণ চলছে - Dinajpur24 | The Largest Bangla News Paper of Bangladesh
  1. dinajpur24@gmail.com : admin :
  2. erwinhigh@hidebox.org : adriannenaumann :
  3. dinajpur24@gmail.com : akashpcs :
  4. AnnelieseTheissen@final.intained.com : anneliesea57 :
  5. maximohaller896@gay.theworkpc.com : betseyhugh03 :
  6. self@unliwalk.biz : brandymcguinness :
  7. ChristineTrent91@basic.intained.com : christinetrent4 :
  8. CorinneFenston29@join.dobunny.com : corinnefenston5 :
  9. rosettaogren3451@dvd.dns-cloud.net : darrinsmalley71 :
  10. Dinah_Pirkle28@lovemail.top : dinahpirkle35 :
  11. emmie@a.get-bitcoins.online : earnestinemachad :
  12. EugeniaYancey97@join.dobunny.com : eugeniayancey33 :
  13. vandagullettezqsl@yahoo.com : gastonsugerman9 :
  14. cruz.sill.u.s.t.ra.t.eo91.811.4@gmail.com : howardb00686322 :
  15. Kristal-Rhoden26@shoturl.top : kristalrhoden50 :
  16. azegovvasudev@mail.ru : latricebohr8 :
  17. jarrodworsnop@photo-impact.eu : lettie0112 :
  18. cruz.sill.u.strate.o.9.18.114@gmail.com : lonnaaubry38 :
  19. corinehockensmith409@gay.theworkpc.com : meaganfeldman5 :
  20. kenmacdonald@hidebox.org : moset2566069 :
  21. news@dinajpur24.com : nalam :
  22. marianne@e.linklist.club : noblestepp6504 :
  23. NonaShenton@miss.kellergy.com : nonashenton3144 :
  24. armandowray@freundin.ru : normamedlock :
  25. rubyfdb1f@mail.ru : paulinajarman2 :
  26. vaughnfrodsham2412@456.dns-cloud.net : reneseward95 :
  27. Roosevelt_Fontenot@speaker.buypbn.com : rooseveltfonteno :
  28. kileycarroll1665@m.bengira.com : sabinechampion :
  29. Sonya.Hite@g.dietingadvise.club : sonya48q5311114 :
  30. gorizontowrostislaw@mail.ru : spencer0759 :
  31. jcsuave@yahoo.com : vaniabarkley :
  32. online@the-nail-gallery-mallorca.com : zoebartels80876 :
বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০৩:৫৮ পূর্বাহ্ন
নোটিশ :
নতুন রুপে আসছে দিনাজপুর২৪.কম! ২০১০ সাল থেকে উত্তরবঙ্গের পুরনো নিউজ পোর্টালটির জন্য দেশব্যাপী সাংবাদিক, বিজ্ঞাপনদাতা প্রয়োজন। সারাদেশে সংবাদকর্মী নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহীরা এখনই প্রয়োজনীয় জীবন বৃত্তান্ত সহ সিভি dinajpur24@gmail.com এ ইমেইলে পাঠান।

ভারতে প্রথম দফার ভোটগ্রহণ চলছে

  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ১১ এপ্রিল, ২০১৯
  • ২ বার পঠিত

-সংগ্রহীত

(দিনাজপুর২৪.কম) ভারতের লোকসভা নির্বাচনে প্রথমদফার ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। কড়া নিরাপত্তার মধ্যে স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার (১১ এপ্রিল) সকাল ৭টা থেকে শুরু হয়েছে। ভোটগ্রহণ চলবে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত। ভারতীয় পার্লামেন্টের নিম্ন কক্ষ লোকসভার ৫৪৩টি আসনে ভোট হবে মোট সাত ধাপে। সরকার গঠন করতে হলে অন্তত ২৭২টি আসন পেতে হবে একটি দলকে। এবার সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে সাত দফায় প্রায় ৯০ কোটি মানুষ তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। ৯০ কোটি ভোটারের এই নির্বাচনকে বলা হচ্ছে বিশ্বের ইতিহাসে সর্ববৃহৎ নির্বাচন।

বিবিসি ও টাইমস অব ইন্ডিয়া জানিয়েছে, আজ ২০ রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের ৯১ আসনে পছন্দের প্রার্থী নির্বাচনে ভোট দিচ্ছেন ভোটাররা।লোকসভা নির্বাচনের পাশাপাশি অন্ধ্রপ্রদেশ ও সিকিমে বিধানসভার ভোটগ্রহণ হবে আজ। এছাড়া ওডিশা রাজ্যের কিছু আসনে বিধানসভার ভোট হচ্ছে। আজ যেসব রাজ্যে সব আসনে ভোট হচ্ছে সেগুলো হলো- অন্ধ্র প্রদেশে, তেলেঙ্গানা, উত্তরাখন্ড, সিকিম, অরুণাচল প্রদেশ, মেঘালয়, মিজোরাম, নাগাল্যান্ড, আন্দামান ও নিকোবর এবং লাক্ষা দ্বীপ।

পশ্চিমবঙ্গের মোট ৪২ আসনের মধ্যে আজ ভোট হবে মাত্র দুটি আসন- কোচবিহার ও আলিপুরদুয়ারে। এছাড়া ভোট অনুষ্ঠিত হচ্ছে আসামের ১৪ আসনের পাঁচটি এবং বিহারের ৪০ আসনের চারটিতে। তাছাড়া জম্মু-কাশ্মীরে ছয়টি আসনের দুটি, মণিপুরের দুটির একটি এবং ত্রিপুরার দুটি আসনের একটিতে ভোট হচ্ছে।

নরেন্দ্র মোদি’র হিন্দু জাতীয়তাবাদী ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচনে ঐতিহাসিক বিজয় লাভ করেছিল। ভারতে লোকসভা বা সংসদের নিম্ন কক্ষে মোট ৫৪৩টি আসন রয়েছে। সরকার গঠন করতে কোনো দল বা জোটের কমপক্ষে ২৭২টি আসন প্রয়োজন হয়।

বিজেপি টানা দ্বিতীয়বারের মত নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়ার উদ্দেশ্যে প্রচারণা চালালেও তাদের কড়া প্রতিদ্বন্দ্বিতার মুখে ফেলছে বিভিন্ন এলাকার শক্তিশালী কিছু আঞ্চলিক দল এবং ভগ্নদশা থেকে পুনরুজ্জীবিত হওয়া প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেস।

কংগ্রেসের শীর্ষ নেতা রাহুল গান্ধীর বাবা, দাদি এবং প্রপিতামহ তিনজনই ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। এবছরের জানুয়ারি মাস থেকে মি. গান্ধীর বোন প্রিয়াঙ্কা গান্ধীও আনুষ্ঠানিকভাবে রাজনীতিতে যোগ দিয়েছেন।

পর্যবেক্ষকদের অনেকে এই নির্বাচনকে কয়েক দশকের মধ্যে অনুষ্ঠিত হওয়া সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচন হিসেবে আখ্যা দিচ্ছেন।নির্বাচনি প্রচারণার সময় থেকেই বিভিন্ন দলের নেতাদের কথার যুদ্ধে ব্যাপক প্রতিদ্বন্দ্বিতা ও তিক্ততার আভাস পাওয়া গেছে।ভোটের লড়াইয়ের হিসেবে ক্ষমতাসীন বিজেপি’র তুরুপের তাস নরেন্দ্র মোদেই, যিনি দাবি করেন যে ভারতের নেতৃত্ব দেয়ার ক্ষেত্রে কঠোর ভাবমূর্তি সম্পন্ন এক নেতার দায়িত্ব পালন করেছেন।

তবে সমালোচকরা মনে করেন অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এবং কর্মসংস্থান তৈরির যে আশ্বাস তিনি দিয়েছিলেন, তা বাস্তবায়িত হয়নি।আর মি. মোদি’র নেতৃত্বে ভারতে ধর্মের ভিত্তিতে বৈষম্যবাদ এবং মেরুকরণের প্রবণতা বৃদ্ধি পেয়েছে বলেও মনে করেন সমালোচকরা।

এক নজরে ভারতের লোকসভা নির্বাচন 
*প্রায় ১৩০ কোটি জনসংখ্যার দেশ ভারতে এবার ভোটারের সংখ্যা প্রায় ৯০ কোটি। যা সমগ্র ইউরোপ ও ব্রাজিলের মোট জনসংখ্যার কাছাকাছি। এর মধ্যে নারী ভোটারের সংখ্যা ৪৩ কোটি ২০ লাখ। দেশটিতে ১৮ বা তার চেয়ে বেশি বয়সের নাগরিকরা ভোটার হতে পারেন। সর্বশেষ ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে নিবন্ধিত ভোটারের সংখ্যা ছিল ৮৩ কোটি। সেবার মোট ভোটারের ৬৬ শতাংশ, অর্থাৎ ৫৫ কোটি ৩০ লাখ ভোটার ভোট দিয়েছিলেন।

* এ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা হয় ১০ মার্চ। প্রায় ছয় সপ্তাহ ধরে মোট সাত দফায় ভোটগ্রহণ হবে।

*প্রথম দফায় বৃহস্পতিবার ১৮ রাজ্যের ৯১ আসনে ভোট হচ্ছে। সকাল ৭টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত একটানা ভোটগ্রহণ চলবে। এই ৯১ আসনে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন প্রায় ১৩শ প্রার্থী।

*এবারের লোকসভা নির্বাচনের জন্য প্রায় ১০ লাখ ভোটকেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে; গত বারের তুলনায় যা ১০ শতাংশ বেশি। কোনো কেন্দ্রই যেন ভোটারদের থেকে দুই কিলোমিটারের বেশি দূরত্বে না থাকে, এই নির্দেশনা মেনেই এবার এতগুলো কেন্দ্র বসানো হয়েছে। নির্বাচনী দায়িত্ব পালনের জন্য কর্মকর্তারা পায়ে হেঁটে, সড়কপথে, বিশেষ ট্রেন, হেলিকপ্টার, নৌকা এমনকী কখনো কখনো হাতির পিঠে চেপে কেন্দ্রে যাবেন।

*২০১৪ সালের নির্বাচনে প্রতিটি সংসদীয় আসনে গড়ে ১৫ জন করে প্রার্থী ছিলেন। এর মধ্যে একটি আসনে ছিলেন সর্বাধিক ৪২ জন প্রার্থী। গতবার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা ৮ হাজার ২৫১ প্রার্থীর মধ্যে নারী ছিলেন মাত্র ৬৬৮ জন। এবারের চিত্রও প্রায় একই রকম।

ভোটের ব্যয়
ভারতীয় একটি সংস্থার হিসেবে ২০১৪ সালের নির্বাচনে প্রায় ৫০০ কোটি মার্কিন ডলার ব্যয় হয়েছিল। দেশটিতে নির্বাচনের অংশ নেয়া দলগুলোকে তাদের আয়ের উৎস প্রকাশ করতে হয়।গত বছর মোদী সরকার নির্বাচনী বন্ড ছাড়ে যা ব্যবসায়ী ও অন্য ব্যক্তিদের পরিচয় গোপন রেখে চাঁদা দেয়ার সুযোগ করে দেয়। বিবিসির প্রতিবেদন অনুযায়ী, দাতারা ইতোমধ্যেই ১৫ কোটি ডলার বন্ডের মাধ্যমে দিয়েছে। যার সিংহভাগই গেছে বিজেপির কাছে।

বিশ্বের সবচেয়ে বড় নির্বাচন?
এই নির্বাচনের ব্যাপকতা আসলে মাথা ঘুরিয়ে দেয়ার মত। ১৮ বা তার চেয়ে বেশি বয়সী প্রায় ৯০ কোটি মানুষ মোট ১০ লাখ পোলিং স্টেশনে ভোট দেবেন। ২০১৪ সালের নির্বাচনে মোট ভোটারের ৬৬% ভোট দিয়েছিলেন এবং ৪৬৪টি দলের ৮ হাজার ২৫০ প্রার্থী সে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলো।

পোলিং স্টেশনে পৌঁছাতে কোনো ভোটারের ২ কিলোমিটারের বেশি সফর করতে হবে না। ভোট গ্রহণের পুরো প্রক্রিয়ায় বিপুল সংখ্যক নির্বাচনি কর্মকর্তা এবং নিরাপত্তা কর্মী নিয়োজিত থাকার কারণে ১১ই এপ্রিল থেকে ১৯শে মে পর্যন্ত ৭টি ধাপে চলবে ভোট গ্রহণ।

১৯৫১-৫২ সালে ভারতের ঐতিহাসিক প্রথম নির্বাচন শেষ হতে সময় লেগেছিল তিন মাস। নির্বাচনি কর্মকর্তারা পশ্চিমবঙ্গে ভোটার যাচাই করার কাগজ পরীক্ষা করছেন ১৯৬২ থেকে ১৯৮৯ পর্যন্ত নির্বাচন শেষ করতে সময় লাগতো ৪ থেকে ১০ দিন। ১৯৮০ সালে হওয়া ৪ দিনের নির্বাচন ভারতের ইতিহাসের সবচেয়ে অল্প সময় ধরে হওয়া নির্বাচন ছিল।

মূল ইস্যুগুলো কী?

এই সহস্রাব্দের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত কোটি কোটি ভারতীয় দারিদ্রমুক্ত হয়েছে ঠিকই, কিন্তু এখনো তাদের সামনে অনেক চ্যালেঞ্জ রয়েছে। মি. মোদির নেতৃত্বে বিশ্বের ষষ্ঠ বৃহত্তম অর্থনীতির স্বাভাবিক গতিতে কিছুটা ভাটা পড়েছে।

বার্ষিক প্রবৃদ্ধির হার ৭% এর আশেপাশে থাকলেও দেশটির অন্যতম প্রধান সমস্যা বেকারত্ব। কর্মসংস্থান সংক্রান্ত নেতিবাচক পরিসংখ্যান প্রকাশ করা হচ্ছে না – এমন অভিযোগ রয়েছে মি. মোদির সরকারের বিরুদ্ধে। এমনকি সম্প্রতি ফাঁস হওয়া এক সরকারি নথিতে দেখা যায় ১৯৭০’এর দশকের পর বর্তমানে ভারতে কর্মসংস্থানের অভাব তূলনামূলকভাবে সবচেয়ে প্রকট।কৃষি খাত থেকে আয়ও অনেকটাই স্থিতিশীল পর্যায়ে পৌঁছেছে। কৃষিপণ্যের মাত্রাতিরিক্ত সরবরাহের কারণে পণ্যের দাম কমে যাওয়ায় কৃষকদের ওপর ঋণের বোঝা বেড়েছে।

প্রত্যাশিতভাবেই নির্বাচনি প্রতিশ্রুতিতে দুই প্রধান দলই গ্রামের দরিদ্র শ্রেণীর চাহিদাকে প্রাধান্য দিয়েছে।ভারতের কৃষকদের জীবনমান উন্নয়নে বিপুল পরিমাণ কল্যাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে বিজেপি; আর কংগ্রেসের প্রতিশ্রুতি দেশের দরিদ্রতম ৫ কোটি পরিবারের জন্য ন্যূনতম আয় নিশ্চিত করার প্রকল্প বাস্তবায়ন।

ফেব্রুয়ারিতে ভারত শাসিত কাশ্মীরে পাকিস্তান ভিত্তিক একটি জঙ্গী সংগঠনের আত্মঘাতী আক্রমণে অন্তত ৪০ জন ভারতীয় প্যারা মিলিটারি পুলিশ মারা যাওয়ার পর জাতীয় নিরাপত্তার বিষয়টিও নির্বাচনের অন্যতম প্রধান একটি ইস্যু হিসেবে প্রাধান্য পাচ্ছে। ঐ ঘটনার পর পাকিস্তানে বিমান হামলা করে ভারত। তারপর থেকেই ক্ষমতাসীন বিজেপি’র নির্বাচনি প্রচারণায় জাতীয় নিরাপত্তার বিষয়টি অন্যতম প্রধান ইস্যু হিসেবে উঠে এসেছে। -ডেস্ক

নিউজট শেয়ার করুন..

এই ক্যাটাগরির আরো খবর