মো.আফজাল হোসেন (দিনাজপুর২৪.কম) দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৩য় ইউনিট উন্নয়ন কাজে শ্রমিকদের বিদ্যুৎ উৎপাদন কাজে নিয়োগের দাবিতে আন্দোলন পরিচালনা কমিটির সংবাদ সম্মেলন। আজ ১৭ই এপ্রিল মঙ্গলবার দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির অস্থায়ী কার্যালয়ে বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৩য় ইউনিট উন্নয়ন কাজে শ্রমিকদের বিদ্যুৎ উৎপাদন কাজে নিয়োগের দাবিতে আন্দোলন পরিচালনা কমিটির সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৩য় ইউনিট আন্দোলন পরিচালনা কমিটির সভাপতি মোঃ হাবিবুর রহমান। তাদের দাবি সমূহ সংবাদ সম্মেলনে পড়ে শুনান বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৩য় ইউনিট আন্দোলন পরিচালনা কমিটির সাধারন সম্পাদক মোঃ আবু সাইদ। সংবাদ সম্মেলনে আন্দোলন পরিচালনা কমিটির সভাপতি মোঃ হাবিবুর রহমান বলেন, তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৩য় ইউনিটে উন্নয়ন কাজে শ্রমিক নিয়োগের জন্য দীর্ঘদিন ধরে নিয়মতান্ত্রিক ভাবে আন্দোলন করে আসছি। গত ২৭ শে মার্চ ৩য় ইউনিটে কর্মরত বাঙালী শ্রমিকদের কর্মবিরতী ঘোষণা করা হয়েছিল। ২৯শে মার্চ দিনাজপুর জেলা প্রশাসক এর অনুরোধে কর্মসূচী সাময়িক স্থগিত করা হয়েছিল। প্রায় ৫০০ শ্রমিক কর্মহীন হয়ে পড়েছে। তাদের কোন কাজ নেই। বেকার জীবন নিয়ে, পরিবার পরিজন নিয়ে দুর্বিসহ জীবন যাপন করছে। আগামী ১৯ এপ্রিল তারিখের মধ্যে বিদ্যুৎ উৎপাদনের ৩য় ইউনিটে শ্রমিকদেরকে নিয়োগ প্রদান না করা হলে, বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৩য় ইউনিটের বাঙালী শ্রমিকরা ২১শে এপ্রিল সকাল ৬টা থেকে অবিরাম কর্মবিরতি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষনা দেন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আন্দোলন পরিচালনা কমিটির সহ সভাপতি মোঃ রফিকুল ইসলাম, সহ সভাপতি মোঃ আরিফ, সহ সাধারন সম্পাদক মোঃ জিন্না, সহ সাধারন সম্পাদক মোঃ রবিউল ইসলাম, কোষাধক্য মোঃ নুর আলম, সদস্য মোঃ বাবু, মোঃ রেজওয়ান , মোঃ আইয়ুব আলী। বড়পুকুরিয়া কয়লা ভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কর্তৃপক্ষ তাদের দাবি মেনে না নিলে আন্দোলন কর্মসূচি চলাকালীন কোন রকম অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটলে তার দায়-দায়িত্ব বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কর্তৃপক্ষকেই বহন করতে হবে।
এ বিষয়ে বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মাহাবুব এর সাথে গতকাল মোবাইল ফোনে কথা বললে তিনি জানান, আমাদের করার কিছু নেই। ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষের বিষয়। আন্দোলন তারা করতে পারে।