পঞ্চগড় থেকে সেলিম সোহাগ (দিনাজপুর২৪.কম)  পঞ্চগড় জেলা বোদা উপজেলা মাড়েয়া ইউনিয়নের শহীদ মুক্তিযোদ্ধা প্রেমহরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুদেব চন্দ্র রায় ও সভাপতি সন্নী রায় বর্মন সহ যোগসাজশ করে স্লিপের ৪০ হাজার টাকা, স্কুল রং বাবদ ১০ হাজার টাকা সর্বমোট ৫০ হাজার টাকা আত্মসাৎ করেন। এই ব্যাপার এলাকার ছাত্র-ছাত্রীর অভিভাবক ও সাধারণ জনগণ চাঞ্চল্য সৃষ্টি করে। সাংবাদিকদের ফোন করে ডেকে নিয়ে যায়। প্রধান শিক্ষক প্রেমহরীকে জিজ্ঞাসাবাদ করিলে ওনি সাংবাদিকদের স্কুল লাইব্রেরীতে বসিয়ে রেখে কাজের কথা বলে চলে যায় এবং ফোন বন্ধ করে রাখেন। স্কুল সভাপতির সাথে কথা বলেন, ওনি বরেন এখন স্কুলের সরঞ্জাম কিনার জন্য আমি বলেছি ওনি আমার কথা রাখেনি আমাকে বলেন আগের বছরের ড্রাম সেট, ফুটবল, ভলিবল, সেগুলো দিয়ে চালিয়ে দিবো আপনার কোন চিন্তা নাই। এই বিষয়ে সহকারী শিক্ষিকা পূর্ণিমা রানীর কাছে জানতে চাইলে ওনি বলেন স্লিপ ও রং এর টাকা ব্যাপারে আমি কিছুই জানি না এবং আমাদের সাথে কোন প্রকার আলাপ আলোচনা মিটিং করেনি। স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে কথা বললে তারা জানায়, আমরা খাতা কলম খেলার সরঞ্জাম পাইনি এবং প্রতিমাসে অভিভাবকদেরক নিয়ে একটি মিটিং করার কথা সেটাও করেন নাই। প্রধান শিক্ষক স্কুল আসেন ১১ টা দিকে ২ টা ক্লাস নিয়ে মোটর সাইকের নিয়ে ফুটকিবাড়ী বাজারে বসে চা পান খায় এবং সময় নানা ভাবে ক্ষেপন করেন। তিনটা বাজলে স্কুল থেকে চলে যায়। তাই আমি পঞ্চগড় জেলা রিপোর্টাস্ ক্লাব সভাপতি হিসেবে জেলা প্রশাসকের কাছে একটি দরখাস্ত করি। অনুলিপি হিসেবে বোদা উপজেলা নির্বাহী অফিসার, বোদা উপজেলা শিক্ষা অফিসার এবং পঞ্চগড় জেলার সকল সাংবাদিককে অনুলিপি হিসেবে প্রেরণ করি। তাই ভবিষ্যতে কোন শিক্ষক স্লিপের টাকা আত্মসাৎ করতে না পারেন।