(দিনাজপুর২৪.কম) ঈশা খান। একদিন আগেও গণ্ডিবদ্ধ ব্যারাকেই সীমাবদ্ধ ছিল তার পরিচিতি। আজ তিনিই আফগানিস্তানের নায়ক। পার্লামেন্ট ভবনে তালেবান হামলা প্রতিরোধ করে বীরের মর্যাদা পেয়েছেন তিনি।

পুরো জাতি তাকে অভিনন্দন জানিয়েছে। দেশটির প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানিও তাকে অভিনন্দন জানাতে কার্পণ্য করেননি। মঙ্গলবার ঈশা খানকে নিজের অফিসে ডেকে নিয়ে একটি নতুন বাড়ি উপহার দিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট। সেই সঙ্গে হবে পদোন্নতি, পাবেন মেডেল।

টুইটারে ঈশার সঙ্গে তোলা ছবি আপডেট করে ঘানি বলেন, ‘আমি ঈশার দৃঢ়তা ও বীরত্বে গর্বিত।’

 সোমবার ওই হামলা প্রতিরোধকালে পার্লামেন্ট ভবনের সামনে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা সার্জেন্ট ঈশা খান একাই হামলাকারী সাত বিদ্রোহীর মধ্যে ছয়জনকে হত্যা করেন।
 যে গাড়িবোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে হামলাটি শুরু করা হয়েছিল খান তার কাছেই দাঁড়িয়ে দায়িত্ব পালন করছিলেন। গাড়িবোমার বিস্ফোরণ ঘটানো সত্ত্বেও নিরাপত্তা বাহিনীর প্রতিরোধে পার্লামেন্ট ভবনে প্রবেশ করতে পারেনি হামলাকারীরা। টুইটারে প্রশংসার বন্যায় ভাসা সার্জেন্ট খান বলেন, ‘আমি তাদের মেরে ফেলি।’
 ‘আমি সেখানে দাঁড়িয়ে ছিলাম, দেখলাম তারা পার্লামেন্টের দিকে দৌড়ে আসছে। আমি একজনকে গুলি করলাম, দেখলাম আরেকজন আসছে। আমি ছয়জনকে গুলি করি, ছয়জনই মারা যায়।’ ‘এই দেশের জন্য আমি জীবন দিয়ে দেব,’ বলেন ঈশা।(ডেস্ক)