(দিনাজপুর২৪.কম) কাপাসিয়ায় বিয়ের আশ্বাস দিয়ে প্রায় তিন বছর প্রেম করে অন্যত্র বিয়ে করার সংবাদে প্রেমিকের বাড়িতে অবস্থান নিয়েছে তানিয়া নামের এক কলেজছাত্রী। প্রেমিকের বাড়ির লোকজন মেয়েকে মারধর করে তাড়ানোর চেষ্টা করেছে এমন লিখিত অভিযোগ নিয়ে তানিয়ার পিতা পুলিশের কাছে গেলেও পুলিশ অভিযোগ গ্রহণ করছে না বলে তিনি জানান।লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার সিংহশ্রী ইউনিয়নের কপালেশ^র গ্রামের আ. রশিদ মাস্টারের ছেলে মোয়াজ্জেম হোসেন রাকিব প্রায় তিন বছর আগে পার্শ্ববর্তী সোহাগপুর গ্রামের মজিবুর রহমানের মেয়ে তানিয়ার সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। এরপর থেকে রাকিব তাকে বিয়ে করার আশ্বাস দিয়ে অনৈতিক সম্পর্ক জড়িয়ে ফেলে। এর মাঝে বিভিন্ন জনের কাছ থেকে বিয়ের প্রস্তাব এলেও রাকিবের আশ্বােস তানিয়া অন্যত্র বিয়েতে রাজি হয়নি। বর্তমানে রাকিবের বাবা মা ছেলের জন্য পাত্রী দেখতে শুরু করলে রাকিব তানিয়াকে জানায় তার পরিবারের লোকজন তানিয়ার মতো দরিদ্র ঘরের মেয়েকে পুত্রবধূ হিসেবে মেনে নেবে না। তাই সে এখন তাকে বিয়ে করতে পারবে না। তানিয়া জানায়, গত ২১ ফেব্রুয়ারি রাতে রাকিব মোবাইল ফোনে জানায় পরদিন শুক্রবার কিশোরগঞ্জের কটিয়াদি উপজেলায় পারিবারিক সিদ্ধান্তে সে বিয়ে করতে যাচ্ছে এবং সে উপলক্ষে কেনাকাটা সম্পন্ন করেছে। তাই সে গতকাল শুক্রবার সকাল ৭টার সময় রাকিবের বাড়িতে গিয়ে বিয়ের দাবিতে অবস্থান গ্রহণ করে। রাকিব তাকে বিয়ে না করলে আত্মহত্যা ছাড়া আর কোনো পথ তার খোলা থাকবে না বলে সে দাবি করে। তানিয়ার পিতা জানান, গতকাল সকালে তাদের না জানিয়ে তানিয়া রাকিবের বাড়িতে চলে যায়। সেখানে গিয়ে মোবাইলে ধারণ করা নানা প্রমাণাদি দেখালে রাকিবের পরিবারের লোকজন তাকে পুত্রবধূ হিসেবে মেনে নিতে রাজি হয়নি। রাকিবের মা সিংহশ্রী মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হোসনে আরা জানান, তার ছেলে একসময় তানিয়ার সাথে প্রেমের সম্পর্কে আবদ্ধ হলেও বর্তমানে সে তানিয়াকে বিয়ে করতে রাজি হচ্ছে না। ছেলে রাজি হলে অবশ্যই তিনি তাকে বিয়ে করাতে আপত্তি করতেন না।-ডেস্ক