আতিউর রহমান (দিনাজপুর২৪.কম) বিরলে উচ্ছেদের হুমকি পেয়ে নিজ জমি রক্ষার্থে সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগিতা চেয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করেছে হীরামনির পরিবার।  শুক্রবার সকালে বিরল প্রেস ক্লাবের সভা কক্ষে সাংবাদিক সম্মেলনে অসহায় পরিবারটির পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, হীরামনি বর্মনীর পুত্র প্রফুল্ল চন্দ্র রায়। তিনি লিখিত বক্তব্যে জানান, উপজেলার মঙ্গলপুর ইউপি’র ৫ নং জেএল ভূক্ত সাকোয়া মৌজার সিএস ১০২ নং খতিয়ান মূলে ২০৭ ও ২১৯ দাগে মোট ২.৯৬ একর পুকুরের মালিক ইসক বর্মন। ইসক বর্মন ভোগদখলে থাকা অবস্থায় অস্বচ্ছতার কারণে এসএ রেকর্ডে জনৈক মহি উদ্দীন গংদের নাম সন্মিবেশিত হওয়ায় তিনি বাদী হয়ে বিগত ১৯৮৪ সালে আদালতে স্বত্তের ঘোষণা মূলক ডিক্রির প্রার্থনা করে মামলা চলাকালীন পরোলক গমন করেন। ইসক বর্মনের কোন পুত্র সন্তান না থাকায় একমাত্র ওয়ারীশ হিসাবে কন্যা হীরামনি বর্মনী বাদী ভূক্ত হয়ে মামলা পরিচালনা করে ১৮৩/৮৪ নং মোকদ্দমায় নালিশী সম্পত্তিতে বিজ্ঞ মুনসেফ আদালত হতে ডিক্রি প্রাপ্ত হোন। পরবর্তীতে নিয়মিত খাজনা প্রদান করে ভোগদখল করতে থাকেন। কিন্তু চলমান ভূমি জরীপ কার্যক্রমে আপত্তি স্তরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম সম্পূর্ণ বে-আইনীভাবে অন্যায়লাভের আশায় ও প্রভাব বিস্তার পূর্বক মহি উদ্দীনগংদের নাম অন্তর্ভূক্ত করান। চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলামসহ তার পুত্র সুমন ও তার সন্ত্রাসী বাহিনীদ্বারা উক্ত সম্পত্তি হতে উচ্ছেদ করার জন্য হীরামনি বর্মনীর পরিবারকে বিভিন্ন প্রকার হুমকি প্রদর্শন করে চলছে। তারা প্রকাশ্যে বলে বেড়াচ্ছে, তাদের কাজে বাঁধা দিলে জীবনে মেরে ফেলে ঘর-বাড়ীতে অগ্নিসংযোগ করে  হীরামনির পরিবারকে নিঃশেষ করে ফেলবে। তাদের অনব্রত হুমকির কারণে হীরামনি পরিবারের লোকজন নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছে। সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্থানীয় সংসদ সদস্যকে হীরামনির পরিবারের উপর হুমকি, অত্যাচার-অনাচার ও দুঃখ দুর্ধশার কথা জানাতে চায় তারা। এমতাবস্থায় নিরাপত্তার জন্য তারা জানাতে চায় দেশের প্রশাসন ও সকল দেশবাসীকে। সাংবাদিক সম্মেলনে হীরামনি বর্মনীর সাথে উপস্তিত ছিলেন, একই গ্রামের যতীন চন্দ্র, বসন্ত কুমার, রমেশ চন্দ্র, অনীল চন্দ্র, ললি চন্দ্র, প্রদীপ চন্দ্র, নির্মল চন্দ্র প্রমূখ।