(দিনাজপুর২৪.কম) বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেছেন, বাংলাদেশ বিমান যাত্রীসেবার মান আরো বাড়ানোর লক্ষ্যে বিভিন্ন কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। আজ শনিবার জাতীয় সংসদে সরকারি দলের সদস্য মমতাজ বেগমের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন। তিনি বলেন, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স লিমিটেড ২০০৭ সালের মার্চ মাস থেকে দেশ ও বিদেশের সকল অফিস থেকে আন্তর্জাতিক গন্তব্যের জন্য ইলেকট্রনিক টিকেট (ই-টিকেট) কার্যক্রম শুরু করে। বিমানে সকল আন্তর্জাতিক যাত্রী দেশ থেকে বিদেশ ও বিদেশে থেকে দেশের অভ্যন্তরে সকল গন্তব্যের জন্য ইলেকট্রনিক টিকেট ও চেক-ইনের মাধ্যমে সেবা গ্রহণের সুযোগ পায়।
রাশেদ খান মেনন বলেন, ২০১৩ সাল থেকে সম্মানিত হজযাত্রীদের জন্যও ইলেকট্রনিক টিকেট চালু করা হয়। দেশের অভ্যন্তরে অভ্যন্তরীণ যাত্রীর জন্য ইলেকট্রিক টিকেট ইস্যু কার্যক্রম ২০১৪ সালের এপ্রিল থেকে চালু হয়েছে। তিনি বলেন, এছাড়াও সিট রিজারভেশন ও টিকেট ক্রয়ের জন্য অনলাইন সিস্টেম আগস্ট ২০১০ থেকে চালু রয়েছে। সম্মানিত যাত্রীগণ বিশ্বের যে কোন প্রান্ত থেকে ঘরে বসে বিমানের ওয়েবসাইট www.biman-airlines-com -এর মাধ্যমে টিকেট বুকিং ও ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে টিকেটের মূল্য পরিশোধ করতে পারেন।
মন্ত্রী বলেন, ২০১৩ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে ইন্টারনেট বুকিং কার্যক্রম আরও আধুনিকভাবে চালু করা হয়েছে। উপরন্তু ২০১৪ সালের ডিসেম্বর থেকে পরিপূর্ণভাবে ‘টিএপি’ (ট্রাভেল এজেন্সি পোর্টাল) পদ্ধতি চালু হওয়ায় এজেন্টরা ইন্টারনেটের মাধ্যমে বুকিং ও টিকেট করার সুযোগ পাচ্ছে। তিনি বলেন, ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বর থেকে রেভিনিউ ইন্টিগ্রিটি (আরআই) ও রেভিনিউ ম্যানেজমেন্ট (আরএম) চালুর ফলে যাত্রী সাধারণের সেবার মান বৃদ্ধি এবং চাহিদামতো টিকেটের সরবরাহ নিশ্চিত করা হয়েছে।
রাশেদ খান মেনন বলেন, বৃদ্ধ এবং অসুস্থ যাত্রীদের উন্নত সেবা প্রদানের জন্য নতুন হুইপ চেয়ার সংগ্রহ করা হয়েছে। তদুপরি হুইল চেয়ার পরিচালনার জন্য মহিলা কর্মীসহ কিছু কর্মীকে নির্দিষ্টভাবে দায়িত্ব প্রদান করা হয়েছে এবং নতুন আরো হুইল চেয়ার ক্রয় প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। যাত্রী সেবার মান্নোয়নে আগমনী ও বহির্গমন যাত্রী হলে দু’টি গ্রাহক সেবা ডেস্ক প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে উন্নত যাত্রী সেবা নিশ্চিত করা হয়েছে।
মন্ত্রী বলেন, সম্মানিত যাত্রীদের সেবার মান উন্নতিকল্পে বিমানের চেক-ইন ব্যবস্থায় অত্যাধুনিক ‘সফটওয়্যার’ প্রবর্তন করার ফলে উন্নত যাত্রীসেবা নিশ্চিত হয়েছে। এই ব্যবস্থা প্রবর্তনের ফলে যে সমস্ত সম্মানিত যাত্রী ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম/সিলেট স্টেশন হয়ে বিদেশ ভ্রমণ করবেন তাদের ট্রানজিট, বোর্ডিং কার্ড মূল স্টেশন থেকে সরবরাহ করা হচ্ছে। তিনি বলেন, ২০১৫ সালে হজযাত্রীদের জন্য ফিরতি বোর্ডিং কার্ড এবং মক্কা ও মদিনায় হজযাত্রীদের হোটেল থেকে তাদের ব্যাগেজ সংগ্রহপূর্বক জেদ্দা এয়ারপোর্টে পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। (ডেস্ক)