স্টাফ রিপোর্টার (দিনাজপুর২৪.কম) দিনাজপুরে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৯টায় গোর-এ-শহীদ কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে। জেলা প্রশাসন ও দিনাজপুর পৌরসভার ব্যবস্থাপনায় এ ঈদগাহ মাঠে ঈদের প্রধান জামাতে ৮-৯ লাখ মুসল্লি এক সাথে নামাজ আদায় করবেন বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এছাড়া জেলা শহর ও এর আশপাশের এলাকার অর্ধশতাধিক ঈদগাহ মাঠে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। তবে আবহাওয়া খারাপ থাকলে সংশ্লিষ্ট এলাকার মসজিদে ঈদের নামাজ আদায় করা হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।
অপরদিকে দিনাজপুর ইনস্টিটিউট মাঠে সকাল সাড়ে ৮টায় আহলে হাদিস অনুসারীদের ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে। এ জামাতে জেলা শহরের আহলে হাদিস অনুসারী মুসল্লিরা ঈদের নামাজ আদায় করবেন বলে সংশ্লিষ্ট কর্তুপক্ষ জানিয়েছে।
দিনাজপুর গোর-এ-শহীদ কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে এবারে ৮-৯ লাখ মুসল্লি এক সাথে নামাজ আদায় করবেন বলে আশা কর্তৃপক্ষের। এটি বাংলাদেশ তথা দক্ষিণ এশিয়া মহাদেশের সর্ববৃহৎ ঈদ জামাত বলে কর্তৃপক্ষের ধারনা। দিনাজপুর জেলা শহর, সদর উপজেলাসহ জেলার অন্য ১২টি উপজেলা, বৃহত্তর দিনাজপুরের অন্যান্য জেলা ও দেশের অন্যান্য স্থান থেকে ঈদের সর্ববৃহৎ জামাতে মুসল্লিরা অংশগ্রহণ করবেন বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।
দিনাজপুর গোর-এ-শহীদ কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে ঈদ জামাতে ইমামতি করবেন দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতাল (সদর হাসপাতাল) জামে মসজিদের খতিব মাওঃ শামসুল হক কাসেমী। তাঁর সহকারী হিসেবে থাকবেন স্টেশন রোড জামে মসজিদ ও পৌরসভার জামে মসজিদের খতিবদ্বয়।
এ মাঠে নামাজ আদায় করবেন জেলা প্রশাসক ড. আ ন ম আবদুছ ছবুর, পুলিশ সুপার মো. হামিদুল আলম, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আজিজুল ইমাম চৌধুরী, দিনাজপুর পৌর মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলমসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, শিক্ষক, চিকিৎসক, আইনজীবী, সাংবাদিক, ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ ও গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এবং সর্বস্তরের ধর্মপ্রাণ মুসল্লিবৃন্দ।
দিনাজপুরের পুলিশ সুপার মো. হামিদুল আলম বিপিএম জানান, বৃহৎ এ ঈদগাহ মাঠে ঈদের জামাতের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ বিভাগের পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। মাঠের চার পাশে ও আশপাশের এলাকায় ৮শ’ পুলিশের সদস্য নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করবে। ছাড়াও র‌্যাব, বিজিবিসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবে বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন পুলিশ সুপার মো. হামিদুল আলম।
জেলা প্রশাসক ড. আ ন ম আবদুছ ছবুর শহরবাসিকে নিজ নিজ জায়নামাজসহ ঈদের বৃহৎ জামাতে অংশগ্রহণের জন্য মুসুল্লিদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন। তবে মুসল্লিদের নিরাপত্তার স্বার্থে ঈদের জামাতে অংশগ্রহণের সময় কোন ধরনের ব্যাগ বা থলি বহন না করতে জেলা প্রশাসক আ ন ম আবদুছ ছবুর ও পুলিশ সুপার মো. হামিদুল আলম মুসুল্লিদের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন।
ঈদের প্রধান জামাত ছাড়াও দিনাজপুর শহরের চাউলিয়াপট্টি-দক্ষিণ লালবাগ ঈদগাহ মাঠ, লালবাগ ঈদগাহ ঈদগাহ মাঠ, বালুয়াডাঙ্গা কাঞ্চন ব্রীজ সংলগ্ন ঈদগাহ মাঠ, কাঞ্চন কলোনী ঈদগাহ মাঠ, পশ্চিম বালুয়াডাঙ্গা মিনার মসজিদ সংলগ্ন ঈদগাহ মাঠ, পাটুয়াপাড়া ঈদগাহ মাঠ, পশ্চিম পাটুয়াপাড়া জামে মসজিদ সংলগ্ন ঈদগাহ, রামনগর ঈদগাহ মাঠ, মুদিপাড়া ঈদগাহ মাঠ, ঘাষিপাড়া ঈদগাহ মাঠ, ফকিরপাড়া ঈদগাহ মাঠ, সুইহারী ঈদগাহ মাঠ, মহারাজা উচ্চ বিদ্যালয় ঈদগাহ মাঠ, দিনাজপুর একাডেমী উচ্চ বিদ্যালয় ঈদগাহ মাঠ, ঈদগাহবস্তি ঈদগাহ মাঠ, পুলহাট ঈদগাহ মাঠ, তফিউদ্দিন মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয় ঈদগাহ মাঠ, ৪নং উপশহর ঈদগাহ মাঠ, ৭নং উপশহর ঈদগাহ মাঠ, ৮নং উপশহর ঈদগাহ মাঠ, রাজবাটি ঈদগাহ মাঠ, শিকদারগঞ্জ ঈদগাহ মাঠ, কাশিপুর উচ্চ বিদ্যালয় ঈদগাহ মাঠসহ প্রায় অর্ধশতাধিক উন্মুক্ত স্থানে এবং মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। তবে আবহাওয়া খারাপ থাকলে সংশ্লিষ্ট এলাকার মসজিদে ঈদের নামাজ আদায় করা হবে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট ঈদগাহ মাঠ কমিটি কর্তৃপক্ষ।
এছাড়া দিনাজপুর শহরের বাইরে ঈদের বড় জামাত অনুষ্ঠিত হবে চেরাডাঙ্গী উচ্চ বিদ্যালয় ঈদগাহ মাঠ ও নশিপুর ঈদগাহ মাঠে। এছাড়া প্রতিটি গ্রামের ঈদগাহ মাঠে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। নামাজ শেষে খুৎবার পর দেশ, জাতি ও মুসলিম উম্মাহর শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ মুনাজাত করা হবে।