(দিনাজপুর২৪.কম) বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী বলেছেন, এতদিনে বোঝা গেল কেন বিএনপি তাদের গঠনতন্ত্রের ৭ ধারা বাতিল করেছিল। এই ৭ ধারা বাতিল করে বিএনপি খুনি, সন্ত্রাসী, জঙ্গি এবং দুর্নীতিবাজদের নির্বাচন করার সুযোগ করে দিয়েছে। বিএনপির যারা মনোনয়ন পেয়েছে তাদের শতকরা ৯০ ভাগই দুর্নীতিবাজ এবং সন্ত্রাসী। গতকাল রোববার সকালে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে জাতীয় সংসদের নির্বাচনের কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নের ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের নির্বাচনি কেন্দ্র কমিটির সঙ্গে যৌথসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। সভায় প্রধান বক্তা ছিলেন- যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মো. হারুনুর রশীদ। সভাপতিত্ব করেন- যুবলীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখার সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট। পরিচালনা করেন- ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রেজা। তিনি বলেন, দুর্নীতিবাজরা যখন নির্বাচন কমিশন থেকে মনোনয়ন বৈধতা পেলো, তখন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নির্বাচন কমিশনকে ধন্যবাদ দিলেন। আর বেগম খালেদা জিয়ার মনোনয়ন যখন বাতিল করা হলো, তখন তারা সমালোচনা করছে। বলছে, নির্বাচন কমিশন পক্ষপাতদুষ্ট। তাহলে বিএনপির যেসব চিহ্নিত দুর্নীতিবাজদের মনোনয়ন নির্বাচন কমিশন বৈধতা দিয়েছে সেটা পক্ষপাতদুষ্ট ছিলো? যেসব সন্ত্রাসীর মনোনয়ন বৈধতা দিয়েছে তা ভুল ছিলো? এটাই হলো বিএনপির রাজনীতি। এই নির্বাচনে বিএনপি জয়ী হলে বাংলাদেশ দুর্নীতিবাজ, সন্ত্রাসী ও জঙ্গি শাসন চালু হবে। যুবলীগ চেয়ারম্যান বলেন, যুবলীগের কাজ কেন্দ্র পাহারা দেয়া নয়, যুবলীগের কাজ হলো জনমত সৃষ্টি করা। তিনি তরুণ ও যুববান্ধব রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনাকে পুনরায় নির্বাচিত করতে ফেসবুক, ইউটিউব ও অনলাইনসহ সোস্যাল মিডিয়ায় রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার উন্নয়ন কর্মকা- যুবলীগের নেতাকর্মীদের তুলে ধরার আহ্বান জানান। এ সময় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখা সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রেজা ৫২৯টি নির্বাচনি কেন্দ্রভিত্তিক কমিটির তালিকা যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মো. হারুনুর রশীদের হাতে তুলে দেন। একাদশ জাতীয় সংসদের নির্বাচনের কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে গতকাল রোববার সকাল ১০টায় ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখার নির্বাচনি কেন্দ্র কমিটির সাথে যৌথসভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তব্য রাখেন ঢাকা মহানগর যুবলীগ দক্ষিণ সহ-সভাপতি মাইনউদ্দিন রানা, আনোয়ার ইকবাল সান্টু, নাজমুল হোসেন টুটুল, মাহবুবুর রহমান পলাশ, আলী আকবর বাবুল, এনামুল হক আরমান, যুগ্ম-সম্পাদক জাফর আহমেদ রানা, ফারুক হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক- মিজানুর রহমান বকুল, গাজী সারোয়ার বাবু, মাকসুদুর রহমান, কাজী ইব্রাহিম খলিল মারুফ, প্রচার সম্পাদক- আরমান হক বাবু, দপ্তর সম্পাদক- এমদাদুল হক এমদাদ, স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক- সৈয়দ মারশীদ শুভ, উপ-দপ্তর সম্পাদক- খন্দকার আরিফ-উজ-জামান প্রমুখ। -ডেস্ক