বায়তুল মোকাররমের গেটের বাইরে মুসল্লিদের দীর্ঘলাইন। ছবি : সংগৃহীত

(দিনাজপুর২৪.কম)  দেশের জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় করেছে হাজারো মুসল্লি। আজ সোমবার এই মসজিদে ঈদের পাঁচটি জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। তবে মসজিদের ভেতরে নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব ও অন্যান্য নির্দেশনা মেনে নামাজ আদায় করলেও গেটের বাইরে তা মানা সম্ভব হয়নি।

আজ বায়তুল মোকাররমে প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হওয়ার পর পরবর্তী জামাতগুলোতে অংশগ্রহণের জন্য হাজার হাজার মুসল্লি মসজিদের বাইরে গেটে দীর্ঘলাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করেন। এ সময় তাদের কেউই নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব মানেননি বলে জানা গেছে।

ঈদের প্রথম জামাত শেষে পরবর্তী জামাতগুলোর জন্য বাইরে অপেক্ষায় ছিলেন শিশু ও বৃদ্ধসহ সব বয়সী মানুষই। এ সময় লাইনে দাঁড়ানো কাউকেই নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব মানতে দেখা যায়নি। তারা সবাই এক প্রকার গায়ে গা লাগিয়ে দাঁড়িয়েছিলেন।

নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব রক্ষার বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নিয়োজিত কর্মীরা জানিয়েছেন, অতিরিক্ত মানুষের চাপের কারণে অনেক চেষ্টার পরেও তাদের নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয়নি।

তারা আরও বলেন, নামাজের জন্য আসা মানুষদের একদিকে ঠিক করে দিলে অপরদিকে আবারও একই অবস্থা ফিরে আসে। বিভিন্নভাবে সাবধান করা হয়, কিন্তু তাতেও সাধারণ মানুষ কথা শোনেননি।

এ ব্যাপারে সাধারণ মানুষ বলেছেন, দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা শুধুমাত্র ঈদের নামাজ আদায়ের জন্য। তবে ইচ্ছে নয়, অনেকটা বাধ্য হয়েই এভাবে লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করেছেন বলে মন্তব্য করেছেন তারা।

উল্লেখ্য, বায়তুল মোকাররমে ঈদের পাঁচ জামাত শেষে খুতবা পেশ করা হয়। এরপর অনুষ্ঠিত হয় দোয়া ও মোনাজাত। মোনাজাতে দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনা করা হয়েছে। পাশাপাশি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও নিহতদের জন্য দোয়া করা হয়েছে। তবে নামাজ শেষে কাউকেই হাত মেলানো বা কোলাকুলি করতে দেখা যায়নি। -ডেস্ক